ফরিদপুরে জাফর উল্লাহ ও নিক্সন সমর্থকদের সংঘর্ষ, আহত ১০

ফরিদপুর প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২১:৪৬
ভাঙচুর করা পেট্রোল পাম্প।

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরী সমর্থক আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১০জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষের সময় একটি তেলের পাম্প ভাঙচুর করেছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে আজিমনগর ইউনিয়নের তারাইল এলাকায় ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষের সময় কাজী জাফর উল্লাহর সমর্থক সুমন মাতব্বরের হাজী ইরফান উদ্দিন পেট্রোল পাম্পে ভাঙচুর লুটপাট চালানো হয়েছে।

স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা যায়, এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তারাইল ঈশ্বরদী গ্রামের কাজী জাফরউল্লাহ সমর্থক মোখলেসুর রহমান সুমন মাতুব্বরের সঙ্গে একই গ্রামের এমপি নিক্সনের সমর্থক ফারুক তালুকদার সাইদুল শিকদারের দ্বন্দ্ব চলে আসছে। দুই গ্রুপের সঙ্গে এর আগেও কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে।

মঙ্গলবার আজিমনগর ইউনিয়নের ঈশ্বরদী গ্রামের একটি জানা যায় সুমনের লোকজন উপস্থিত হয়। এসময় ফারুক তালুকদার সাইদুল শিকদারের লোকজন সুমন মাতুব্বরের দলের নুরুল ইসলাম মাতুব্বরের ছেলে রাজিব মাতুব্বরকে (২৬) পিটিয়ে গুরুতর আহত করে।

এই সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দুই দলের লোকজন দেশীয় অস্ত্র ঢাল, সড়কি, রামদা ইট পাথর নিয়ে হাইওয়ে এক্সপ্রেস সড়কের উপর সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সময় উভয় পক্ষের অন্তত ১০জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে সুমন মাতুব্বরের হাজী ইরফান উদ্দিন ফিলিং স্টেশন, ৫টি মোটরসাইকেল ২টি দোকানে ভাঙচুর করেছে।

সংবাদ পেয়ে ভাঙ্গা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে এবং যান চলাচল স্বাভাবিক করার পাশাপাশি ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু দেশি অস্ত্র উদ্ধার করেছে।

পেট্রোল পাম্পের মালিক মোকলেসুর রহমান সুমন জানান, আমি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কাজী জাফর উল্লার নৌকার নির্বাচন করেছি। আমাদের তারাইল ঈশ্বরদী গ্রামের ফারুক তালুকদার সাইদুল শিকদার স্বতন্ত্র প্রার্থী নিক্সন চৌধুরী পক্ষে নির্বাচন করেছে। বিষয়ে তাদের সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। আমার সম্মান নষ্ট ক্ষতি করার জন্য আমার লোকজনকে ধরে নিয়ে পা ভেঙে দিয়েছে। কয়েকজনকে মারধর করেছে। আমার পেট্রোল পাম্পটি ব্যাপক ভাঙচুর করেছে, ৫টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে। পেট্রোল পাম্প থেকে কয়েক লক্ষ টাকা ফারুক তালুকদারের লোকজন নিয়ে গেছে।

ব্যাপারে ফারুক তালুকদার জানান, সুমনের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। আমাদের লোকজন পেলেই সুমনের লোকজন মারধর করে। আজকে আমার একজন লোককে মারার কারণে সংঘর্ষ হয়েছে।

বিষয়ে ভাঙ্গা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনির হোসেন জানান, সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

ভাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মামুন আল-রশিদ জানান, সংবাদ পেয়ে পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। তবে ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কেউ অভিযোগ দায়ের করে নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

(ঢাকাটাইমস/২৭ফেব্রুয়ারি/প্রতিনিধি/পিএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :