আগেও বাংলাদেশে যাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২১ মে ২০২৪, ১৯:৫১ | প্রকাশিত : ২১ মে ২০২৪, ১৮:৪০

উল্লেখযোগ্য দুর্নীতিতে জড়িত থাকা, গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান, সরকারি প্রতিষ্ঠান ও প্রক্রিয়ার প্রতি জনগণের বিশ্বাসকে ক্ষুণ্ন করতে ভূমিকা রাখার অভিযোগে বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ ও তার পরিবারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার দিবাগত রাতে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর এক বিবৃতিতে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

তবে বাংলাদেশের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের ওপর এটাই প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা নয়। এর আগেও মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) ও সংস্থাটিতে দায়িত্ব পালন করা সাত কর্মকর্তার ওপর ওই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল।

২০২১ সালের ১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে পৃথকভাবে এ নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট (রাজস্ব বিভাগ) ও পররাষ্ট্র দপ্তর। যা এখনো বহাল আছে। তখন বলা হয়েছিল, এসব কর্মকর্তার সম্পদ জব্দ হবে। নিষেধাজ্ঞার আওতায় আসার পরপর ডেবিট-ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে ঝামেলায় পড়েন একাধিক কর্মকর্তা। যা তখন বিভিন্ন গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়।

এদিকে নতুন করে নিষেধাজ্ঞার আওতায় এসেছেন সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদ। এই তালিকায় আজিজের পরিবারের সদস্যরাও আছেন।

যেসব অভিযোগ আজিজের বিরুদ্ধে

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদ তার ভাইকে বাংলাদেশে অপরাধমূলক কার্যকলাপের জন্য জবাবদিহিতা এড়াতে সাহায্য করেছেন। আর এটা করতে গিয়ে তিনি সরকারি প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করে উল্লেখযোগ্য দুর্নীতিতে জড়িত হয়েছেন। এ ছাড়া অন্যায়ভাবে সামরিক খাতে কন্ট্রাক্ট পাওয়া নিশ্চিত করার জন্য তিনি তার ভাইয়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছেন। একই সঙ্গে নিজের ব্যক্তিগত সুবিধার জন্য সরকারি নিয়োগের বিনিময়ে ঘুষগ্রহণ করেছিলেন।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার এক বিবৃতিতে বলেন, দুর্নীতিতে উল্লেখযোগ্য সম্পৃক্ততার কারণে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সাবেক প্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদের বিরুদ্ধে এই পদক্ষেপ নিয়েছে পররাষ্ট্র দপ্তর। তার (আজিজ আহমেদ) কর্মকাণ্ড বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি প্রতিষ্ঠান ও প্রক্রিয়ার প্রতি জনগণের আস্থা ও বিশ্বাসকে ক্ষুণ্ন করতে ভূমিকা রেখেছে।

তবে অভিযোগ প্রসঙ্গে আজিজ আহমেদ সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, 'আমি কোনো অপরাধ করিনি যে, শাস্তি পেতে হবে। তারা আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ তুলেছে, তার কোনো প্রমাণ থাকলে আমাকে দিক।'

আজিজ আহমেদের ভাই শীর্ষ সন্ত্রাসী হারিছ আহমেদ ও জোসেফ আহমেদ। আরেক ভাই আনিস আহমেদ। তিনজনই যাবজ্জীবন ও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন। সেনাপ্রধান থাকাকালে সরকার ২০১৯ সালে তাদের সাজা মওকুফ করে। পরে তারা বিভিন্ন অপকর্ম করেছেন।

এর আগে যারা এসেছেন নিষেধাজ্ঞার আওতায়

মানবাধিকার লঙ্ঘনে সম্পৃক্ততার অভিযোগ এনে ২০২১ সালে দেওয়া নিষেধাজ্ঞায় র‌্যাবের দুইজন মহাপরিচালকের (ডিজি) নাম আছে। এর মধ্যে সাবেক ডিজি ও তৎকালীন পুলিশপ্রধান ড. বেনজীর আহমেদ এবং তৎকালীন মহাপরিচালক (ডিজি) ও বর্তমান পুলিশপ্রধান চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন আছেন। বেনজীর অবসরে গেলে আবদুল্লাহ আল মামুন ডিজি থেকে পুলিশপ্রধান হন। নিষেধাজ্ঞার আওতায় র‌্যাবের সাবেক চারজন অতিরিক্ত মহাপরিচালকও (এডিজি) আছেন। তারা হলেন-সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন্স) তোফায়েল মোস্তাফা সরোয়ার, সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন্স) মো. জাহাঙ্গীর আলম ও সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন্স) মো. আনোয়ার লতিফ খান। তাছাড়া র‌্যাব-৭ এর সাবেক অধিনায়ক মিফতাহ উদ্দীন আহমেদের নামও আছে এই তালিকায়।

বেনজীর আহমেদ এবং র‌্যাব-৭ এর সাবেক অধিনায়ক মিফতাহ উদ্দীন আহমেদের ওপর যে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে তাতে অভিযোগ আনা হয়, ২০১৮ সালের মে মাসে কক্সবাজারের টেকনাফে পৌর কাউন্সিলর একরামুল হককে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনে সম্পৃক্ততার জন্য এ দুজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলো।

২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২০ সালের ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত র‍্যাবের ডিজি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন বেনজীর আহমেদ। আর চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন ২০২০ সালের ১৫ এপ্রিল থেকে ২০২২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত র‍্যাব মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন।

এদিকে মো. আনোয়ার লতিফ খান ২০১৬ সালের ২৮ এপ্রিল থেকে ২০১৮ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন্স) পদে ছিলেন। জাহাঙ্গীর আলম ২০১৮ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ২৭ জুন, তোফায়েল মোস্তাফা সরোয়ার ২০১৯ সালের ২৭ জুন থেকে ২০২১ সালের ১৬ মার্চ এবং এ কে আজাদ ২০২১ সালের মার্চ থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত এডিজি ছিলেন।

বাংলাদেশে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ

তখন যুক্তরাষ্ট্রের রাজস্ব বিভাগের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ সরকারের মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধের অংশ হিসেবে র‌্যাবের যে কার্যক্রম, তার বিরুদ্ধে ব্যাপক ও গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে। এ মানবাধিকার লঙ্ঘন ও আইনের শাসনের প্রতি অবজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা স্বার্থ ও বাংলাদেশের মানুষের অর্থনৈতিক উন্নতিকে হুমকির মুখে ফেলছে।

মার্কিন দপ্তরটি উল্লেখ করে, র‌্যাব ২০০৪ সালে গঠিত হয়। এর সদস্য হন পুলিশ, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) থেকে আসা সদস্যরা।

বিজ্ঞপ্তিতে বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) বরাত দিয়ে বলা হয়, র‌্যাবের বিরুদ্ধে ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত (নিষেধাজ্ঞার আগ পর্যন্ত) ৬০০টির বেশি গুম, ২০১৮ সাল থেকে ৬০০ জনকে বিচারবহির্ভূত হত্যা এবং নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। কিছু প্রতিবেদন বলছে, এসব ঘটনা বিরোধী দলের সদস্য, সাংবাদিক এবং মানবাধিকারকর্মীদের ওপরও ঘটানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, নিষেধাজ্ঞার আওতায় আসা কর্মকর্তাদের কারও নামে কিংবা কোনো মার্কিন নাগরিকের জিম্মায় কোনো সম্পদ থেকে থাকলে তা জব্দ হবে। বিষয়টি অফিস অব ফরেন অ্যাসেটস কন্ট্রোলকে (ওএফএসি) অবহিত করতে হবে। ওএফএসির বিশেষ অনুমতি বা অন্য কোনো ছাড় না থাকলে মার্কিন নাগরিক বা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য চিহ্নিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে লেনদেন নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের অগ্রগতি কতদূর?

সম্প্রতি বাংলাদেশে সফরে আসা সহকারী মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু’র সঙ্গে বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান সাংবাদিকদের বলেন, জাস্টিস ডিপার্টমেন্টকে হোয়াইট হাউস থেকে র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বলা হয়েছে। তবে তার এমন বক্তব্যের পর মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র এমন কিছু করছে না, এটি সঠিক নয়। যুক্তরাষ্ট্র র‍‍্যাবের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করছে না।

(ঢাকাটাইমস/২১মে/এসএস/ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

সরকারি কর্মকর্তারা দুর্নীতি করে, দোষ হয় রাজনীতিবীদদের: সংসদে দুই এমপি

ঈদযাত্রার ১৩ দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২৩০: বিআরটিএ

জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র: পিটার হাস

৪৪তম বিসিএসের পুনর্বিন্যাসকৃত মৌখিক পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ

নীতিমালা লঙ্ঘন করায় চার মেডিকেল কলেজের কার্যক্রম স্থগিত: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মতিউর ও তার স্ত্রী-সন্তানদের ব্যাংক-বিও হিসাব স্থগিতের নির্দেশ

বাংলাদেশের উন্নয়নে পাশে থাকবে চীন: লিউ জিয়ানচাও

পাসপোর্ট কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদে বেনজীরের ৭ পাসপোর্টের সন্ধান

‘ডিএনএ ল্যাবরেটরিকে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্নে পরিণত করা হবে’

পদ্মা সেতুর দুই বছর: ১ হাজার ৬৪৮ কোটি টাকা আয়

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :