দুর্বৃত্তদের আগুনে প্রাণ গেল খালা-ভাগ্নির

ভোলা প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:১৫

ভোলার লালমোহনে ঘুমন্ত অবস্থায় দুর্বৃত্তের দেয়া আগুনে পুড়ে খালা-ভাগ্নির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন আরেক নারী। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।  

শুক্রবার রাতে উপজেলার চরভূতা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের খারাকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খালা সুরমা বেগম ঘটনাস্থলে মারা যান। আর ভাগ্নি খাদিজা শনিবার দুপুর ১টার দিকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। আর খাদিজার মা আঙ্গুরা বেগমকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, সুরমা তার স্বামীর সঙ্গে বিরোধের কারণে গত ১০ দিন ধরে বড় বোন আঙ্গুরা বেগমের বাড়িতে ওঠেন। শুক্রবার রাতে খাবার পর তারা ঘুমিয়ে পড়েন। রাতে ওই ঘরের পেছন দিক দিয়ে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে দুর্বৃত্তরা ঘুমন্ত অবস্থায় লেপ-তোষকে আগুন ধরিয়ে দেয়।

ওই বাড়ির যুবক রাকিব জানান, রাত সাড়ে ১২টা থেকে সোয়া ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তাদের আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে যান এবং তাদের হাসপাতালে ভর্তি করেন। কে বা কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা জানা যায়নি বলে জানান রাকিব।

নিহত সুরমার মেঝবোন শাহিনুর ও ভাই মহিউদ্দিন জানান, সুরমার বাবার বাড়ি লালমোহন ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের পন্ডিত বাড়ি। ছয় মাস আগে বোরহানউদ্দিন উপজেলার দেউলা এলাকার রফিকের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বামীর সঙ্গে তার বনিবনা হচ্ছিল না। এ নিয়ে কয়েকবার বিচার সালিশও হয়েছে। ১০ দিন আগে সুরমাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন স্বামী রফিক। তিনি তখন বড়বোন আঙ্গুরার বাড়িতে ওঠেন। এই অগ্নিকা-ের সঙ্গে রফিক জড়িত বলে তারা দাবি করেন।

ভোলার সিভিল সার্জন রথিন্দ্র নাথ মজুমদার ঢাকা টাইমসকে জানান, আগুনে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে, আর আঙ্গুরা বেগম চিকিৎসাধীন। তার শরীরের ৭০ শতাংশ পুড়ে গেছে। অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।  

লালমোহন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর খায়রুল কবীর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় মামলা হচ্ছে। পুলিশ অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে।

(ঢাকাটাইমস/১৯জানুয়ারি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :