‘যুব বান্ধব প্রজনন স্বাস্থ্যসেবার জন্য নেতৃত্ব প্রয়োজন’

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:০৮

দেশে যুববান্ধব প্রজনন স্বাস্থ্য স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে যুব নেতৃত্ব প্রয়োজন। এর জন্য যুবকদের নেতৃত্বদানের জায়গা তৈরি করে দেয়া এবং প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে সকলকে সচেতন করা জরুরি।

বুধবার যুব পরামর্শ বিষয়ক এক আলোচনায় বক্তারা এ কথা বলেন।

সিরাক-বাংলাদেশ ৫০ জন কিশোর-কিশোরী ও তরুণ নিয়ে ময়মনসিংহে যুব পরামর্শ বিষয়ক আলোচনা সভার আয়োজন করে। এতে অতিথি হিসেবে ছিলেন, জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ) এর প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট ডা. মোহাম্মাদ আবু সাইদ, সিরাক-বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক, এসএম সৈকত, ইয়েলো বিরিক রোড এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর মিস ফারিন দোউলাহ।

আয়োজকরা জানান, যুব সভার অন্যতম উদ্দেশ্য হল কিশোর-কিশোরী ও তরুণদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যের তথ্য ও সেবার বিদ্যমান অবস্থা চাহিদা ও প্রাপ্তির মাঝে যে ব্যবধান তা তুলে ধরা।

ডা. মোহাম্মাদ আবু সাইদ বলেন যুবদের জন্য একটি সমন্বিত যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা, শিক্ষা, তথ্য প্রচার, প্রজনন স্বাস্থে যুবদের জন্য সহজলভ্যতা আনা প্রয়োজন।  এটি একমাত্র সম্ভব যদি যুব নেতৃত্ব সামনে আনা হয়।তিনি বলেন, যুবদের স্বাস্থ্য সেবা ও ঝুঁকির বিষয়ে জানাতে হবে।

আবু সাইদ বলেন, যৌন ও প্রজনন স্বাস্থের সেবাসমূহ যুববান্ধব করে যুবদের হাতের কাছে পৌঁছানো অন্যতম চ্যালেঞ্জ।

সিরাক বাংলাদেশ এর নির্বাহী পরিচালক এস এম সৈকত বলেন, আইসিপিডি ২৫ বিষয়ক নাইরোরি সামিট উন্নয়নের অংশীদারদের সমন্বয়ে একটি অন্তভূক্তিমূলক প্ল্যাটফর্ম তৈরি করবে যা পরিবর্তনকে গতিশীল করবে এবং কায়রোর প্রতিশ্রুতিসমূহ অর্জন করতে পদক্ষেপ গ্রহন করবে। সমভাবে প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার গুরুত্বপূর্ণ।

ইয়েলো বিরিক রোড এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর মিস ফারিন দোউলাহ বলেন, আমাদের সকলের নিজেদের যৌন স্বাস্থ্য ও অধিকার নিয়ে আরও সোচ্চার হতে হবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, মিসরের রাজধানী কায়রোয় ২৫ বছর আগে অনুষ্ঠিত জনসংখ্যা ও উন্নয়ন-বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের (আইসিপিডি) সম্মেলনের প্রধান লক্ষ্য ছিল উন্নয়ন কৌশলে জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং যৌন ও প্রজননস্বাস্থ্যের বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত করা। সে সম্মেলনে ১৭৯টি দেশের সরকার একত্রিত হয়ে প্রত্যেক ব্যক্তির যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের স্বাধীনতাকে মানবাধিকার হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে। এরপর থেকে এ বিষয়ে বেশ অগ্রগতি হয়েছে।

কায়রোতে দেয়া প্রতিশ্রুতিসমূহ বাস্তবায়ন করার তাগিদ থেকেই কেনিয়া ও ডেনমার্ক এর সরকার, এবং জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ) এক সামিটের আয়োজন করেছে। আগামী ১২ থেকে ১৪ নভেম্বর প্রতিশ্রুতিগুলোকে বেগবান করুন' শিরোনামে নাইরোরি সামিট হবে। সিরাক-বাংলাদেশ আগামী ২০ থেকে ২১ অক্টোবর বাংলাদেশ ৪র্থ জাতীয় যুব পরিবার পরিকল্পনা সম্মেলন করবে। যেখানে আসিপিডি বিষয়ক বিষয়ক একটি জাতীয় যুব ছায়া প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে।

অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন সিরাক-বাংলাদেশ প্রতিনিধি শাহিনা ইয়াসমিন, রোকনল রাব্বি, নুসরাত শারমিন রেশমা, মিজানুর রহমান পাভেল, মুসাব্বির হুসাইন প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/৪সেপ্টেম্বর/জেআর/ ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :