এক রাতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গাসহ নিহত ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১১:১১
জয়পুরহাটে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত আমিনুল ইসলাম

দেশের তিন জেলায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুই রোহিঙ্গাসহ চারজন নিহত হয়েছেন। চারটি বন্দুকযুদ্ধই হয়েছে গতকাল রাতের বিভিন্ন সময়ে।

এর মধ্যে কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন দুই রোহিঙ্গা। এছাড়া ময়মনসিংহে ডিবি পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত এবং জয়পুরহাটে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন এক ডজন মামলার এক আসামি। ঢাকা টাইমসের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর

কক্সবাজার

জেলার টেকনাফ উপজেলায় মাদকবিরোধী অভিযানের মধ্যে বিজিবির সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুই রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন, যারা ইয়াবা পাচারকারী বলে দাবি করছে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীটি।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে তিনটার দিকে উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের লম্বাবিল এলাকায় এই বন্দুকযুদ্ধ হয়।

নিহতরা হলেন উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা সুলতান আহম্মেদের ছেলে মো. আবুল হাসিম এবং একই ক্যাম্পের আবু সিদ্দিকের ছেলে নুর কামাল।

বিজিবির ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিজিবি জানায়, মিয়ানমার থেকে নাফনদী হয়ে একটি ইয়াবার চালান বাংলাদেশ প্রবেশ করবে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ভোরে সেখানে অভিযানে যায় বিজিবি। বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে পাচারকারীরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। আত্মরক্ষার্থে বিজিবিও পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে অস্ত্রধারী ইয়াবা পাচারকারীরা পিছু হটলে ঘটনাস্থল থেকে ওই দু’জনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আটক করা হয়। পরে তাদের টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

বন্দুকযুদ্ধের পর ঘটনাস্থল থেকে ৫০ হাজার পিস ইয়াবা, একটি দেশীয় তৈরি অস্ত্র ও দুটি কিরিচ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীটি। অভিযানে বিজিবির তিন সদস্যও আহত হয়েছেন।

জয়পুরহাট

বৃহস্পতিবার দিবাগত শেষ রাতে জেলার পাঁচবিবি উপজেলার ভুতগাড়ী গ্রামে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় আমিনুল ইসলাম ক্যাসেট নামে এক ব্যক্তি। যার বিরুদ্ধে অপহরণসহ এক ডজনের মতো মামলা আছে। এ সময় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

নিহত আমিনুল জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার পিয়ারা গ্রামের শাহাবুল ইসলামের ছেলে।

পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুনসুর রহমান জানান- অপহরণ, মুক্তিপণ আদায়, মাদক কারবার, ছিনতাইসহ প্রায় এক ডজন মামলার পলাতক আসামি  ছিলেন আমিনুল।

শুক্রবার রাতে একই উপজেলার ভুতগাড়ী গ্রামে ক্যাসেটসহ তার দলবল নতুন করে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের জন্য একত্রিত হচ্ছিলেন এমন সংবাদ পেয়ে পুলিশের টহল দল ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে তারা গুলি ছুঁড়লে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোঁড়ে। এতে অন্যেরা পালিয়ে গেলেও ক্যাসেট গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। আহত পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

ময়মনসিংহ

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে জেলার গফরগাঁও উপজেলায় গোয়েন্দা পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত নিহত হয়েছেন। তার নাম আব্দুল মোতালেব। তিনি রসুলপুর ছয়আনি এলাকার কেটু শেখের ছেলে।

ডিবি পুলিশ জানায়, রসুলপুর আঞ্চলিক সড়কে ডাকাতির প্রস্তুতির খবর পেয়ে ডিবি পুলিশ সেখানে অভিযান চালাতে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতরা গুলি ছুঁড়লে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোঁড়ে। একপর্যায় তারা পিছু হটে ও পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান ও ১৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ডাকাত মোতালেবকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ কামাল আকন্দ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহত ডাকাত সদস্যের বিরুদ্ধে পাঁচটি ডাকাতির মামলা ছিল।

ঢাকাটাইমস/১৮অক্টোবর/প্রতিনিধি/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :