রেডিও তরঙ্গে বন্ধুত্বের হাতছা‌নি

মুনীম হোসেন রানা
 | প্রকাশিত : ০৩ এপ্রিল ২০২০, ১১:১৩

১৯৯৪ সা‌লে ভার‌তের ব‌্যাঙ্গালু‌রে অ্যামেচার রেডিওর একটা অনুষ্ঠানে অংশ নি‌য়ে‌ছিলাম। বাংলাদেশ থেকে সাইফ শহীদ (S21A), আমি (S21R) এবং বেক্সিমকোর গ্রুপ ডিরেক্টর ইকবাল ভাই (S21C) স্বপরিবারে যান।

শহীদ ভাই হচ্ছেন বাংলাদেশের অ্যামচার রেডিওর প্রাণ। ওখা‌নে গি‌য়ে উনি পরিচয় করিয়ে দিলেন ওনার রেডিও ফ্রেন্ড ও হরিয়ানা প্রদেশের এক মন্ত্রীর সঙ্গে। তিনি রাজীব গান্ধীর (VU2RG) বিশেষ বন্ধু এবং রেডিও ফ্রেন্ড।

আমিও অনেকের দেখা পেলাম যাদের স‌ঙ্গে নিয়মিত রেডিওতে কথা হতো কিন্তু কখনো দেখা হয়নি। এই পরিচিতি পর্বকে আমরা বলি eyeball QSO বা চোখে চোখে সংযোগ।

অন্যথায় সারাক্ষণ আমরা রেডিও তরঙ্গের মাধ্যমে ফ্রেন্ডশিপ করি। পেয়ে গেলাম সুরি (VU2MY) কে, সে বাংলাদেশ এসে‌ছিল, তাই ওর স‌ঙ্গে eye ball QSO অনেক আগেই একবার হয়েছিল। সুরি রাজীব গান্ধীর কাছের ছিল। রাজীব গান্ধীর হ‌বি ছিল অ্যামেচার রেডিও অপা‌রেট করা। ভার‌তের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে উনি রেডিওতে নিয়মিত সময় দিতেন।

সুরির জোরাজুরিতে আমরা আবার হায়দরাবাদ পাড়ি দিয়ে ওনার বাসায় যাই। ওখানে National Institute of Amateur Radio (NIAR) এ বসে আমরা ডেভেলপমেন্ট-এর অনেক আলাপ আলোচনা করি। এবং গান্ধী পরিবার অ্যামেচার রেডিও জন্য কীভাবে সাহায্য করতো সেগুলো ছাড়াও রেডিও কমিউনিকেশন নিয়ে বিশেষ তথ্য পাই।

South East Asia Network বা SEANET নামে একটা অর্গানাইজেশন আছে, ওখানে আমরা রেডিও hobbyist রা প্রতি বছরের নভেম্বর মাসে একত্রিত হই eyeball QSO র জন্য।

১৯৯৬ এ এটা অনুষ্ঠিত হয়েছিল চেন্নাই এ। অস্ট্রেলিয়া, জাপান সহ প্রায় ২০ টি দেশের রেডিও ফ্রেন্ডরা এসেছিল। আমি কান্ট্রি রিপোর্ট ও বাংলাদেশের অ্যামেচার রেডিও ডেভলপমেন্টের গাইডলাইনগুলো পেশ করি। সন্ধ্যা ছয়টায় আমাকে নিয়ে যাওয়া হল বিশেষ Transmission স্টেশনে, ওই ইভেন্টের জন্য ভারত সরকার একটা বিশেষ কল সাইন দিয়েছিল VU96SEA.

প্রথমে বলিউডের বিখ্যাত তারকা কামাল হাসান (VU2HAS) রেডিওতে একটা কল দিয়ে স্টেশনটা উদ্বোধন করেন। আমাকে সম্মানিত করা হয়েছিল সেদিনকার কন্ট্রোল অপারেটর হিসাবে।

এই স্পেশাল ইভেন্টের লগবুকে এন্ট্রি পাওয়ার জন্য সারা বিশ্ব থেকে radio hobbyist রা এন্টেনা গুলো ওইদিকটায় তাক করে বসে থাকে, রেডিওতে সারাবিশ্ব থেকে প্রচুর কন্টাক্ট হয়েছিল এমনকি বাংলাদেশ থেকেও S21A, S21B, S21AM ও আরো অনেকে যোগাযোগ করেছিল। এই অভিজ্ঞতাগুলোই কিন্তু আমরা ক্রাইসিস পিরিয়ডে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে কাজে লাগাই।

দিল্লি থেকে আসেন সোনিয়া গান্ধী (VU2SON), পরদিন আমরা আরেকটা জায়গায় উনার সাথে ছোট একটা ঘরোয়া অনুষ্ঠান করি। আমাদের সাথে অত্যন্ত কাছে থেকে একটি বেলা কাটান। ১৯৯১ এ রাজিব গান্ধি মারা যাবার পর চেন্নাইয়ে এটাই ছিল ওনার প্রথম প্রকাশ।

সাধারণত আমরা কোন রকম পলিটিক্স এ থাকি না, কিন্তু সেদিনকার অনুষ্ঠানে সোনিয়া গান্ধীর উপস্থিতটা ছিল রাজীব গান্ধীর অ্যামেচার রেডিও প্রতি ভালোবাসার প্রকাশ।

কত রকমের দেশ, বিশাল মহাকাশ, রকমারী মানুষ। রেডিও তরঙ্গে আমরা সবাই এক রেডিও ফ্রেন্ড।

লেখক: মুনীম হোসেন রানা

বাংলাদেশে অ্যামেচার রেডিও ক্লাব (বিএআরএল)- এর সাবেক সাধারণ সম্পাদক

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস)- এর সাবেক সাধারণ সম্পাদক

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী

বাংলাদেশি কল সাইন-S21R

যুক্তরাষ্ট্রের কল সাইন- KF5IVL

(ঢাকাটাইমস/৩এ‌প্রিল/এ‌জেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :