‘শেখ হাসিনার হাতকে প্রতিনিয়ত শক্তিশালী করতে হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:০১ | প্রকাশিত : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:০২

আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ আধুনিক বাংলাদেশে রূপান্তরিত হয়েছে। আধুনিক বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠা করতে শেখ হাসিনার হাতকে প্রতিনিয়ত শক্তিশালী করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল।

শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবরে ‘প্রজন্ম ৭১’ আয়োজিত শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত চিত্র প্রদর্শনীর দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

আধুনিক বাংলাদেশের কার্যক্রমকে রুখে দিতে ষড়যন্ত্রকারীরা তৎপর উল্লেখ করে মাকসুদ কামাল বলেন, ‘ষড়যন্ত্রকারীরা প্রতিনিয়ত তৎপর। ষড়যন্ত্রকারীরা চায় না দেশের নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট হোক। নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট হচ্ছে আপনারা জানেন, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ যদি থাকে তাহলে সেখানে উন্নয়ন হবেই। উন্নয়নের একটি শর্ত হলো নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ আছে কি-নাই। শুধু রুপপুরের দুই হাজার মেগাওয়াট নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট নয়। দেশের দক্ষিণাঞ্চলে আরও একটি নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে সমীক্ষাটিও ইতিমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে।‘

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতা গ্রহণের পর দেশের অমীমাংসিত সমুদ্রসীমায় নিজেদের নিয়ন্ত্রণ পেয়েছে বাংলাদেশ। শেখ হাসিনার সাহসিকতায় এটি সম্ভব হয়েছে উল্লেখ করে ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, ‘সমুদ্র এলাকার ওপর আমাদের সর্বোপরি সার্বভৌমত্ব ছিল না। আমাদের সমুদ্র এলাকার প্রাকৃতিক সম্পদ থেকে শুরু করে, যে ধরনের মৎস্যসম্পদ ছিল বা আছে সেসব সম্পদের উপরে আমাদের নিয়ন্ত্রণ ছিল না। ভারত এবং মিয়ানমারের সঙ্গে জাতির জনকের কন্যা ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ সালে আন্তর্জাতিক আদালতে সাহস করে আমাদের সমুদ্রের ওপর পরিপূর্ণ সার্বভৌম প্রতিষ্ঠা করার জন্য মামলা করেন। আমরা ভারত থেকে আমাদের সার্বভৌম প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছি। সমুদ্রসীমার উপরে ২০১৪ সালের মিয়ানমারের সঙ্গে মামলা করে আমরা সেখান থেকে জয়যুক্ত হয়ে প্রায় এক লাখ ২০ হাজার বর্গকিলোমিটার সীমার উপর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করি। এখন ভূমির বাংলাদেশের পরিপূর্ণ নিয়ন্ত্রণ এবং সমুদ্রসীমার উপরে আছে বাংলাদেশের পরিপূর্ণ নিয়ন্ত্রণ।‘

সংগঠনটির আয়োজনে ‘প্রজন্মের প্রার্থনা—শতায়ু হোক শেখ হাসিনা’ শীর্ষক চিত্র প্রদর্শনীতে জায়গা পেয়েছে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতির শৈশব, কৈশোর, ব্যক্তি এবং রাজনৈতিক জীবনের ৭৪টি ছবি। এরমধ্যে অনেক ছবিই দুর্লভ। শুক্রবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এ চিত্র প্রদর্শনী চলবে সোমবার পর্যন্ত।

‘গৌরব ৭১’ এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন বলেন, ‘আমরা এখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪টি ছবি প্রদর্শন করছি। এর মধ্যে প্রায় ৩০টি ছবি আছে যা অনেকেই আগে দেখেননি। গত এক বছরের বেশি সময় ধরে আমরা এই দুর্লভ ছবিগুলো সংগ্রহ করেছি।‘

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল আমরা এই প্রদর্শনী শুরু করেছি। গতকাল বিকালে অনেক দর্শনার্থী ছিল। আজ সকালেও অনেক দর্শনার্থী এসেছে। বিকালেও ছিল। মূলত তরুণ প্রজন্ম এবং ধানমন্ডি এলাকার আশপাশের বাসিন্দারা প্রদর্শনী দেখতে আসছেন।’

আগামীকাল রবিবার এবং পরদিন সোমবার চিত্র প্রদর্শনীর তৃতীয় ও চতুর্থ দিনে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিক এবং বিভিন্ন সংগঠনের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত থাকবেন।

এসময় অন্যদের মধ্যে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ববিদ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তরের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তাসবীরুল হক অনু, ‘গৌরব ৭১’ এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন সহ ‘গৌরব ৭১’ এর বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/২৬সেপ্টেম্বর/কারই/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :