ইন্টারপোলের রেড নোটিশে ৭৮ বাংলাদেশি

ঢাকাটাইমস ডেস্ক
| আপডেট : ১৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৯:১৮ | প্রকাশিত : ১৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:৪৩

গত বছর লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যাকাণ্ডের পর মানবপাচারকারীদের ধরতে ইন্টারপোলের সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ৷ তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত ছয়জনকে গ্রেপ্তারে রেড নোটিশ জারি করেছে পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থাটি৷ এর মধ্যে দুজন গ্রেপ্তার হয়েছেন৷ সবমিলিয়ে বাংলাদেশের ৭৮ নাগরিকের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের রেড নোটিশ জারি আছে৷

তবে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা পাচার করে ক্যানাডায় পলাতক পিকে হালদারের বিরুদ্ধে পুলিশ সদর দপ্তরে থেকে রেড নোটিশ জারির অনুরোধপত্র পাঠানো হলেও ইন্টারপোলের লাল তালিকায় তা প্রকাশিত হয়নি৷ একাধিক সূত্র জানায়, সংস্থাটি নিজেরা তথ্য পরীক্ষা করে সন্তুষ্ট হলে তালিকায় কারো নাম অন্তর্ভুক্ত করে৷ অন্যদিকে কুয়েতে আটক এমপি পাপুলের বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি৷

বাংলাদেশের যে দুই পলাতক মানবপাচারকারী গ্রেপ্তার হয়েছেন তারা হলেন: মাদারীপুরের শাহাদাত হোসেন এবং কিশোরগঞ্জের জাফর ইকবাল৷ এই মানবপাচার চক্রের মোট ছয়জনের বিরুদ্ধে নোটিশ জারি আছে৷ শাহাদাত হোসেনকে বিমানবন্দর থেকে সিআইডি গ্রেপ্তার করেছে৷ আর জাফর ইকবালকে ইটালিতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ ইতালির পুলিশ ১০ জানুয়ারি পুলিশ সদর দপ্তরের ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরোকে (এনসিবি) চিঠি দিয়ে প্রেপ্তারের খবর জানিয়েছে৷ জাফরকে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে৷ এজন্য সর্বোচ্চ ৪০ দিন সময় লাগতে পারে৷

বাংলাদেশ পুলিশ জানিয়েছে, গত বছরের মে মাসে লিবিয়ার মিজদাহ শহরে মানবপাচারকারীরা গুলি করে ২৬ জন বাংলাদেশিকে হত্যা করে, সেই মামলায় শাহাদাত ও জাফর আসামি৷ আরও চার আসামি হলেন বাংলাদেশি মিন্টু মিয়া, স্বপন, নজরুল ইসলাম মোল্লা ও তানজিরুল৷ তাদের ধরিয়ে দিতে গত নভেম্বরে ইন্টারপোল রেড নোটিশ জারি করে৷

সিআইডি'র এএসপি জিসানুল হক বলেন, ‘আমরা তদন্ত করছি৷ ছয়জনের বাইরে আরও জড়িত যাদের নাম আসবে তাদের ধরার জন্যও রেড নোটিশ জারির অনুরোধ করবো ইন্টারপোলকে৷ এই ছয়জনের জন্য আমরাই রেড নোটিশ জারির অনুরোধ করেছিলাম৷’

তিনি জানান, এর আগে ইন্টারপোলের সহায়তায় দুবাইতে বাংলাদেশি একটি মানবপাচারকারী দলকে আটক করা হয়েছে৷ কুয়েতেও মানবপাচারকারীদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে৷ তাদের ব্যাপারেও ইন্টারপোলের সহায়তা নেয়া হবে৷ ইন্টারপোলের সাথে বাংলদেশ পুলিশ ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে৷

এমপি পাপুলের ব্যাপারে কী হবে?

এদিকে কুয়েতের কারাগারে গত সাত মাস ধরে আটক আছেন লক্ষ্মীপুরের এমপি শহীদ ইসলাম পাপুল৷ তার বিরুদ্ধে অর্থ ও মানব পাচারের অভিযোগে বিচার চলছে৷ ২৮ জানুয়ারি রায় ঘোষণা করা হবে৷ তার বিরুদ্ধে এখনো বাংলাদেশে কোনো সংসদীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়নি৷ স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, পাপুলকে কুয়েতে আটকের বিষয়টি তাকে কেউ আনুষ্ঠানিকভাবে (চিঠি দিয়ে) জানায়নি৷ তাই তিনি ব্যবস্থা নিতে পারছেন না৷ যদিও তার আটকের বিষয়টি সংসদে আলোচনা হয়েছে৷

পাপুলের বিরুদ্ধে দুদক অর্থ পাচারের মামলা করেছে৷ তার স্ত্রী সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা ইসলাম, মেয়ে ওয়াফা ইসলাম ও শ্যালিকা জেসমিন প্রধানের বিরুদ্ধেও মামলা করেছে দুদক৷ দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম বলেন, ‘পাপুল তো কুয়েতে আটক আছেন৷ তার বিচার চলছে৷ তাকে আটক করতে আর রেড নোটিশ দরকার নাই৷ আর কুয়েতের মামলা এবং সাজা যদি হয় তা শেষ হওয়ার পর তাকে দেশে আনার আইনগত প্রক্রিয়া শুরু হবে৷'

এএসপি জিসানুল হক বলেন, ‘এমপি পাপুল সাহেবের বিরুদ্ধে সিআইডির দায়ের করা মানিলন্ডারিং ও মানব পাচার মামলার তদন্ত চলছে৷ তদন্ত শেষ হলে পরবর্তী প্রক্রিয়া নিয়ে সিআইডি কাজ করবে৷’

পিকে হালাদার প্রসঙ্গ

লিজিং কোম্পানি দিয়ে জালিয়াতি করে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগের মামলার আসামি পিকে হালদারকে ধরতেও রেড নোটিশ জারির আবেদন করেছে পুলিশ৷ যদিও নামটি এখনও ইন্টারপোলের বাংলাদেশি ‘ওয়ান্টেড পার্সন’ এর তালিকায় নেই৷ দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম বলেন, ‘আমাদের অনুরোধে পুলিশ সদর দপ্তরতো রেড নোটিশ আবেদন করেছে৷ এখন কবে তারা নোটিশ জারি করবেন সেটা তো আমরা বলতে পারব না৷’

সিআইডির এএসপি বলেন, ‘আমরা অনুরোধ পাঠাবার পর রেড নোটিশ প্রকাশ করতে ইন্টারপোল সময় নেয়৷ দণ্ডপ্রাপ্ত হওয়া না হওয়া তাদের কাছে মুখ্য নয়৷ তারা যদি তথ্য প্রমাণ দেখে সন্তুষ্ট হয় তাহলে রেড নোটিশ প্রকাশ করে৷ প্রকাশ করতে কিছু দিন সময় লাগে৷’

৭৮ বাংলাদেশি

ইন্টারপোলের লাল তালিকায় এখন ৭৮ বাংলাদেশির নাম ও পরিচয় আছে৷ তাদের মধ্যে গ্রেপ্তারকৃত ওই দুজন মানবপাচারকারীও আছেন৷ তালিকায় যাদের নাম আছে তাদের অপরাধের ধরনও বলা আছে৷ আছে ঠিকানা, বয়স ও ছবি৷

৭৮ জনের মধ্যে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতকদের নামও আছে৷ আছে যুদ্ধাপরাধ মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতকদের নাম৷ বঙ্গবন্ধুর খুনি নূর চৌধুরী, খন্দকার আব্দুর রশীদ, নাজমুল আনসার, শরিফুল হক ডালিম, আহমেদ শরিফুল হোসেন, মোসলেম উদ্দিন, রাশেদ চৌধুরীর নাম আছে৷ যুদ্ধাপরাধের মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতকদের মধ্যে আবদুল জব্বার ইঞ্জিনিয়ার ও মাওলানা আবুল কালাম আজাদ আছে তালিকাতে৷

২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা মামলায় পলাতক মাওলানা তাজউদ্দিন, সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক অভি ও বিএনপি নেতা হারিস চৌধুরীর নাম ও ছবিও আছে এই তালিকায়৷

মানব পাচারকারী, হত্যা মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামিসহ বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশে শীর্ষ সন্ত্রাসী যারা পলাতক তাদের নামেও রেড নোটিশ জারি করা হয়েছে৷ সূত্র: ডয়চে ভেলে

(ঢাকাটাইমস/১৭জানুয়ারি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :