রাজধানীতে চুরি হওয়া মোটরসাইকেল দুই হাত বদলে বিক্রি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১০ আগস্ট ২০২২, ২১:৫২

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে নকল চাবি দিয়ে মোটরসাইকেল চুরি করে নাম মাত্র দামে মুন্সীগঞ্জ, শরিয়াতপুর, ফরিদপুর, মাগুরাসহ অন্যান্য জেলায় বিক্রি করত। বিশেষ করে সোহেল ঢালীর হয়ে তিনজন মোটরসাইকেল চুরি করত। পরে বিক্রি করার জন্য অন্য গ্রুপের কাছে দিত। দুই হাত ঘুরে চোরাই মোটারসাইকেল পৌঁছায় যেত গ্রাহকের কাছে।

লালবাগ কেল্লার সামনে থেকে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) এক কর্মকর্তার ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল চুরির ঘটনার তদন্ত নেমে এমন তথ্য পেয়েছে পুলিশে। ওই ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে লালবাগ থানা পুলিশ।

বুধবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) লালবাগ বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) জাফর হোসেন সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান। এসময় লালবাগ বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার কুদরত-ই-খুদা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন- চক্রের মূলহোতা সোহেল ঢালী ও তার সহযোগী সুনীল দাস, আওয়াল, হুমায়ুন, হৃদয়, রনি কুত্তা রনি ও স্বাধীন সরকার। এসময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন এলাকা থেকে চুরি করা ১০টি মোটরসাইকেল ও চুরিতে ব্যবহৃত বেশ কিছু নকল চাবি উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, যেসব মোটরসাইকেলে অতিরিক্ত লক দেয়া থাকে না এবং দুর্বল লক, সেগুলো টার্গেট করত চক্রটি। এরপর চক্রটি তাদের কাছে থাকা মাস্টার চাবি দিয়ে ৪০ থেকে ৫০ সেকেন্ডের মধ্যে মোটরসাইকেল চুরি করে পালিয়ে যেত। পরে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকায় এসব মোটরসাইকেল বিক্রি করত।

জাফর হোসেন বলেন, গত মাসের ২৪ জুলাই লালবাগ কেল্লার সামনে থেকে এক এনএসআই কর্মকর্তার মোটরসসাইকেল চুরি হয়ে যায়। লালবাগ থানায় চুরির অভিযোগ করলে শুরু হয় তদন্ত। প্রথমে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং এলাকা থেকে চোর চক্রের মূলহোতা সোহেল ঢালী ও তার সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের কাছ থেকে বেরিয়ে আসে এসব তথ্য। এছাড়া তাদের দেখানো মতে মুন্সিগঞ্জ লৌহজং হলুদিয়া বাজারের ফায়সালের মোটরসাইকেল গ্যারেজের সামনে থেকে উদ্ধার করা হয়। এরপর তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে শরীয়তপুর ও মুন্সীগঞ্জ থেকে চক্রের বাকিদের গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, লালবাগ জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) কে এন রায় নিয়তির নেতৃত্বে মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। চোর চক্রের অন্যতম হোতা সোহেল গত ৫ থেকে ৬ বছর ধরে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিলেন। চোর চক্রের সদস্যরা নকল চাবি ব্যবহার করে মুহূর্তেই মোটরসাইকেল চুরি করে পালিয়ে যেতেন। চক্রের বাকি সদস্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

চক্রের মূলহোতা সোহেল ঢালীর নামে শরিয়াতপুরের বিভিন্ন থানায় চারটি, তার সহযোগী সুনীল দাসের নামে সারা দেশের বিভিন্ন থানায় ১০টি, আওয়ালের নামে কেরানীগঞ্জ ও মাগুরা সদর থানায় তিনটি ও মুন্সীগঞ্জ লৌহজং থানায় হৃদয় ও স্বাধীন সরকারের নামে একটি করে মামলা রয়েছে। এছাড়া এই চুরির ঘটনায় তাদের নামে রাজধানীর লালবাগ থানায় আরও একটি করে চুরির মামলা হয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

(ঢাকাটাইমস/১০আগস্ট/এএইচ/কেএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :