ডেঙ্গুতে প্লাটিলেট কমার চেয়ে যেসব লক্ষণে মৃত্যুঝুঁকি বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৮ নভেম্বর ২০২২, ১৫:২১

দেশজুড়ে চলছে ডেঙ্গুর তাণ্ডব। এ রোগে আক্রান্তরা বা তাদের স্বজনরা তখনই বেশি চিন্তিত হয়ে পড়েন যখন রক্তের প্লাটিলেট কমতে থাকে। তবে প্লাটিলেট কমে যাওয়া নয় বরং রক্তচাপ কমে যাওয়া, অবসাদগ্রস্ততা, ঘাম হওয়া ও বমিভাব- এসব লক্ষণে ডেঙ্গু রোগীদের মৃত্যুঝুঁকি অনেক বেশি।

মঙ্গলবার রাজধানীর দারুস সালামে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব হেলথ সায়েন্সেসে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে এমনটাই জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের (এনসিডিসি) লাইন ডিরেক্টর রোবেদ আমিন।

এই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ, রক্তচাপ কমে যাওয়া, অবসাদগ্রস্ততা, ঘাম হওয়া ও বমিভাব জাতীয় লক্ষণ দেখা দিলে ডেঙ্গু রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করে ফ্লুইড বা স্যালাইন দেওয়া জরুরি। সঠিক সময়ে সঠিক ফ্লুইড না দিলে রোগীর মৃত্যুঝুঁকি বেড়ে যায়।

শরীরে ডেঙ্গু রোগের বিস্তার ঘটে এডিস নামক এক মশার কামড়ে। যারা জমে থাকা পরিষ্কার পানিতে জন্মায়। কিন্তু দেশ থেকে এই মশা কিচুতেই নির্মূল করা যাচ্ছে না। এর কারণ কী?

এ প্রসঙ্গে রোবেদ আমিন বলেন, ‘পৃথিবীর কোনো দেশই এডিস মশা পুরোপুরি নির্মূল করতে পারেনি। এ মশা নিয়ন্ত্রণে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা জরুরি। কিন্তু সেটি নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। বাড়িতে বাড়িতে ছাদবাগান হচ্ছে। এসব গাছের টবে পানি জমে আছে কিনা, তা নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে না।’

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিতে সিটি করপোরেশনেরও সীমাবদ্ধতা আছে বলে মনে করেন রোবেদ আমিন। তিনি বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের লোকেরা বাড়ির ভেতরে গিয়ে মশা মারতে পারবে না। এক্ষেত্রে নিজেদেরই আরও বেশি সচেতন হতে হবে। আশা করি, বৃষ্টি না হলে নভেম্বরের শেষ দিকে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব চলে যাবে।’

সরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগে মৃত্যুর সংখ্যা কম দাবি করে এই বিশেষজ্ঞ বলেন, বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু আক্রান্তের মৃত্যু বেশি হচ্ছে। তারা ডেঙ্গুর চিকিৎসায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) নির্দেশনা অনুসরণ করলে মৃত্যুর হার কমে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছরে ১ জানুয়ারি থেকে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মোট ১৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন সর্বমোট ৪৩ হাজার ৯৮২ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৪০ হাজার ৫৩৫ জন।

(ঢাকাটাইমস/৮নভেম্বর/এজে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :