২৪ কোটি টাকা কোথায় পেলেন ৩ হাজার টাকা বেতনের হিসাবরক্ষক

হাসান মেহেদী, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২১ নভেম্বর ২০২৩, ১২:৪২ | প্রকাশিত : ২১ নভেম্বর ২০২৩, ০৮:২০

আকরাম মিয়া। রাজধানীর ডেমরা এলাকার ড. মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজে মাসিক তিন হাজার টাকা বেতনে হিসাবরক্ষক পদে যোগদান করেন ২০১০ সালে। এখন তিনি সেই কলেজের প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা। আছে কোটি কোটি টাকা। আছে অর্থপাচারের অভিযোগও। তবে তার এ অর্থের বৈধ কোনো উৎস নেই বলে উঠে এসেছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধানে। ইতোমধ্যেই তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুদক।

ঢাকা টাইমসের অনুসন্ধানেও আকরাম মিয়ার দুর্নীতির বেশ কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। তার বেসিক ব্যাংকের মাতুয়াইল শাখায় পাঁচটি স্থায়ী হিসাবে জমা আছে ২৪ কোটি ২৯ লাখ ৮৯ হাজার ৫২৪ টাকা।

ড. মাহবুবুর রহমান মোল্লার কলেজ থেকে পাওয়া তথ্য বলছে, চাকরিতে যোগদান থেকে ২০২২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত আকরাম কলেজ থেকে চাকরি বাবদ সর্বসাকুল্যে আয় করেন ৪২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৪৩ টাকা। তাহলে কীভাবে তার ব্যক্তিগত হিসাবে ২৪ কোটি টাকা এলো, সেই হিসাব এখন পর্যন্ত আকরাম মিয়া এবং কলেজ কর্তৃপক্ষ দিতে পারেননি দুদককে।

আকরাম মিয়ার এমন আয়ের উৎসের খোঁজে অনুসন্ধানে নেমে দুদক বেসিক ব্যাংক মাতুয়াইল শাখায় হিসাব নং-৬১১৮-০১-০০১০৬৩৭, ৬১১৮-০১-০০১০৬৪২, ৬১১৮-০১-০০১০৬৫৮, ৬১১৮-০১- ০০১০৬৬৩ এবং ৬১১৮-০১-০০১০৬৭৯ এ ২৪ কোটি টাকার বেশি জমা থাকার প্রমাণ পেয়েছে।

এ বিষয়ে দুদক আকরাম মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি ব্যাংকে রাখা টাকা ড. মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজের বলে দাবি করেন। এ বিষয়ে আকরাম মিয়ার নামে কলেজের কোনো অর্থ জমা করা হয়েছে কি না দুদক জানতে চাইলে কলেজ কর্তৃপক্ষ কোনো তথ্য দিতে পারেনি।

এরপর সোমবার দুর্নীতি দমন কমিশনের উপপরিচালক শারিকা ইসলাম বাদী হয়ে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন আকরাম মিয়ার বিরুদ্ধে। বিষয়টি ঢাকা টাইমসকে নিশ্চিত করেছেন কমিশনের উপপরিচালক (জনসংযোগ) আকতারুল ইসলাম।

মামলা সূত্রে ঢাকা টাইমস জানতে পেরেছে, আকরাম মিয়া ২০১৭ সালের ৩ ডিসেম্বর আইএফআইসি ব্যাংকের কোনাপাড়া শাখায় ১৪ কোটি টাকার একটি এফডিআর হিসাব খোলেন। তবে ২০১৭ সাল থেকে কলেজের অর্থ আকরাম মিয়ার ব্যাংক একাউন্টে রাখার বিষয়ে কলেজের গভর্নিং বর্ডির কোনো অনুমোদন বা রেকর্ডপত্র প্রদান করতে পারেনি। কলেজের আয়-ব্যয় খাতওয়ারী হিসাবভুক্ত করে কলেজের নিজস্ব ব্যাংক একাউন্টে রাখার বিধান রয়েছে, তা কোনো কর্মচারীর ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাবে রাখার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছে দুদক।

দুদক সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের ১৪ জুন একই ব্যাংকের একই শাখায় অপর দুটি স্থায়ী ফিক্সড ডিপোজিট হিসাব খুলে ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকা এবং ৩৩ লাখ ৩০ হাজার ৫৩০ টাকা জমা রাখেন। পরবর্তীতে দুটো পে-অর্ডারের মাধ্যমে আইএফআইসি ব্যাংকের কোনাপাড়া শাখা থেকে মোট ১৯ কোটি ৪৮ লাখ ৯৩ হাজার টাকা স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের মাতুয়াইল শাখায় দুইটি হিসাব নম্বরে স্থানান্তর করেন। এই ব্যাংকের দুইটি হিসাবই আকরাম মিয়া তার নিজের নামে খোলেন।

এরপর ওই অর্থ চতুর আকরাম মিয়া ২০২২ সালের ২২ ডিসেম্বর স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের মাতুয়াইল শাখা থেকে পাঁচটি পে-অর্ডারের মাধ্যমে বেসিক ব্যাংকের মাতুয়াইল শাখায় স্থানান্তর করেন এবং একই মাসের ২৭ তারিখে তার নামে বেসিক ব্যাংকে ফিক্সড ডিপোজিট একাউন্ট খুলে টাকাগুলো জমা রাখেন।

দুদকের তথ্য বলছে, আকরাম মিয়া এই টাকাগুলো অসাধু উপায়ে অর্জন করেছেন এবং দখলে রেখেছেন। যার বৈধ কোনো উৎস নেই।

এ বিষয়ে ড. মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজের প্রধান হিসাবরক্ষক আকরাম মিয়ার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

দুর্নীতি দমন কমিশনের উপপরিচালক শারিকা ইসলাম ঢাকা টাইমসকে বলেন, প্রধান হিসাবরক্ষক আকরাম মিয়ার মানি লন্ডারিংয়ের বিষয়ে মামলা হয়েছে। তবে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এখনও নিয়োগ হয়নি। তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্তপূর্বক এ আসামিকে আইনের আওতায় আনবেন বলেও জানান দুদক কর্মকর্তা শারিকা ইসলাম।

(ঢাকাটাইমস/২১ নভেম্বর/এইচএম/আরআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :