এডেন উপসাগরে মার্কিন জ্বালানি ট্যাঙ্কার হামলার দাবি হুতির

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:১১
ফাইল ছবি

এডেন উপসাগরে মার্কিন পতাকাবাহী, মালিকানাধীন তেল ট্যাঙ্কার এমভি টর্ম থর-এ হামলা চালানোর দাবি করেছে ইয়েমেনের সশস্ত্র গোষ্ঠী হুতি। খবর রয়টার্সের।

রবিবার টেলিভিশন ভাষণে ইরান-সম্পর্কিত গোষ্ঠীর সামরিক মুখপাত্র ইয়াহিয়া সারিয়া বলেছেন, বেশ কয়েকটি উপযুক্ত নৌ ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে লক্ষ্যবস্তু করা হয় ট্যাঙ্কারটিকে।

তিনি আরও বলেন, গাজায় ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে শিপিং লেন আক্রমণ অব্যহত থাকবে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর সেন্ট্রাল কমান্ড (সেন্টকম) জানিয়েছে, মার্কিন রণতরী ইউএসএস মেসন, শনিবার ইয়েমেনের হুথি নিয়ন্ত্রিত এলাকা থেকে এডেন উপসাগরে উৎক্ষেপণ করা একটি জাহাজ-বিরোধী ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র গুলি করে ভূপাতিত করেছে যা সম্ভবত ট্যাঙ্কারটিকে লক্ষ্য করে ছোঁড়া হয়েছিল।

সেন্টকম এক বিবৃতিতে বলছে, ইউএসএস মেসন বা এমভি টর্ম থর কোন জাহাজই ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি এবং কোনো আঘাতও হয়নি।

প্রসঙ্গত, ৭ অক্টোবর থেকে ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসের সঙ্গে ইসরায়েলের যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে হামাসকে সমর্থন জানিয়ে ইয়েমেন উপকূলে গুরুত্বপূর্ণ শিপিং লেনের জাহাজগুলোতে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাচ্ছে ইরান-সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীরা। এতে লোহিত সাগরের এ রুটে চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে ম্যার্স্ক, সিএমএ সিজিএমেসহ বড় বড় শিপিং প্রতিষ্ঠানগুলো।

এরপরই হুতিদের আক্রমণ থেকে লোহিত সাগরের এ সমুদ্র পথকে নিরাপদ রাখতে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ইতালি, কানাডাসহ ১০টি দেশ নিয়ে সামুদ্রিক জোট গঠন করে যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়াও হুতিদের ঠেকাতে গত মাস থেকে ইয়েমেনের বিভিন্ন স্থান লক্ষ্য করে হামলা চালানো শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্য। তবে হুতিদের ঠেকাতে ইয়েমেনে যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যের কোনো পদক্ষেপই তেমন কার্যকরী হচ্ছে না।

ইরান-সমর্থিত হুতি গোষ্ঠী জানিয়েছে, গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের হামলা বন্ধ না হলে তাদের এ আক্রমণ অব্যাহত থাকবে।

উল্লেখ্য, ‘অশ্রুর দরজা’ নামে পরিচিত ২০ মাইল প্রস্থের বাব আল-মান্দাব প্রণালীটি আরব উপদ্বীপে ইয়েমেন এবং আফ্রিকার উপকূলে জিবুতি এবং ইরিত্রিয়ার মধ্যে অবস্থিত। এটি সেই পথ যা দিয়ে জাহাজগুলো দক্ষিণ থেকে সুয়েজ খালে পৌঁছাতে পারে, ফলে এটি নিজেই একটি প্রধান শিপিং লেনে পরিণত হয়েছে। প্রতি বছর প্রায় ১৭ হাজার জাহাজ, যা বিশ্ব বাণিজ্যের প্রায় ১২ শতাংশ বাব আল-মান্দাব প্রণালী দিয়ে যাত্রা করে। এটি এড়ানোর অর্থ হল জাহাজগুলোকে অনেক দীর্ঘ পথ ঘুরতে হবে।

(ঢাকাটাইমস/২৫ফেব্রয়ারি/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :