অস্ট্রিয়ায় এলিন কালামের সাফল্য

তামিম হাসান, অস্ট্রিয়া
 | প্রকাশিত : ১১ নভেম্বর ২০১৯, ২২:০৭

বাংলাদেশি অস্ট্রিয়ান এলিন কালাম  ইউনিয়ন অব ইয়াং ইউরোপিয়ান ফেডারালিস্টস অব অস্ট্রিয়ার ‘বুন্ডেসফরস্ট্যান্ড বোর্ডে’ ভাইস-প্রেসিডেন্ট পদে ব্যাপক ভোটে ৯ নভেম্বর জয়যুক্ত হয়েছেন।

ইউনিয়ন অব ইউরোপীয় ফেডারালিস্টস ব্রাসেলসের দ্য হেগ এবং জেনারেল সেক্রেটারিয়েটভিত্তিক একটি সুপারপ্যাশনাল রাজনৈতিক সংগঠন, যার প্রাথমিক লক্ষ্য ইউরোপীয় ফেডারেশনের একত্রীকরণ। এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নকে গণতান্ত্রিক রাখতে এবং একটি ফেডারেল ইউরোপীয় রাষ্ট্র গঠনের উপলক্ষে প্রায় ৬০ বছর যাবত ইউরোপের প্রাক্তন রাষ্ট্রদের সাথে এবং পরবর্তীতে ইওরপিয়ান ইউনিয়নের পার্লামেন্ট এবং কমিশনে কাজ করে আসছে।

সংগঠনটির অন্যতম উচ্চ স্তর হলো আন্তর্জাতিক কাঠামোতে অবিভক্ত জাতীয় স্তর, যেটার ফেডারেল বোর্ডে এলিন কালাম ২০১৯-২০২১ লেজিস্লেশ্নে জয়যুক্ত হন। তার মূল কর্মকাণ্ডের অন্তর্ভুক্ত থাকবে ইউরোপের প্রযুক্তিগত বিকাশ, ডিজিটাইজেশন, অর্থনৈতিক স্থায়িত্ব, বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারবিষয়ক প্রজেক্টসমূহের সূচনা করা।

ইউএএফ/জেইফ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে চিত্রিত ও এর এজেন্ডা পেশ করা করবেন বলে জানান বাংলাদেশি অস্ট্রিয়ান এলিন কালাম।

প্রসঙ্গত, এই প্রভাবশালী রাজনৈতিক সংগঠন দলীয় রাজনীতি ও আদর্শের বাইরে কাজ করে এবং এর প্রবীন ২০.০০০ সদস্য ও ৩৫.০০০ তরুণ সদস্য দ্বারা অভ্যন্তরীণ গণতান্ত্রিক ভোটে চালিত হয়। আজকের ইওরোপিয়ান ইউনিয়নের বিপুল সংখ্যক প্রবীন  ও সফল রাজনীতিক এই ঐতিহাসিক সংগঠন থেকে উঠে এসেছেন এবং এর সাথে যুক্ত রয়েছেন। ২৮ দেশের সীমানাহীন ইউরোপ মহারাষ্ট্র, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এবং পার্লামেন্ট ও ইউরো মুদ্রা ও ২৮ দেশের অবাধ বাণিজ্যের চিন্তা চেতনার শুরু এই রাজনৈতিক সংগঠনে, যার মূলে রয়েছে যুদ্ধবিরোধী ও একতাপন্থি আদর্শ। বহু শতাব্দী ধরে আঞ্চলিক, ধর্মীয় এবং আদর্শিক আধিপত্যের সংগ্রাম ইউরোপের ইতিহাসকে রূপ দিয়েছে। শান্তির প্রয়োজনীয়তায় সংযুক্ত ইউরোপের ধারণাটি উদ্ভূত হয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর, যার হাত ধরে আজকের ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও সংযুক্ত মহাদেশের পথ যা ঐতিহাসিকভাবে দেখলে অনন্য।

এই পদের পাশাপাশি এলিন কালাম পেশাগতভাবে বর্তমানে ইউরোপের সর্ববৃহৎ এয়ারলাইন লুফথান্সার  এক্সিকিউটিভ ম্যানেজমেন্ট পদে কর্মরত। তিনি কম্পিউটার সায়েন্স ও ফিজিক্সে ব্যাচেলর শেষে ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজমেন্টে ডিগ্রি নেন। এছাড়াও তিনি অস্ট্রিয়া ও এর বাইরে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনায় কর্মরত। যুক্তরাজ্য/অ্যামেরিকার আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল সংস্থা ফ্লাইট গ্লোবাল ও আন্তর্জাতিক স্টার্টআপ সংস্থা ট্যালেন্ট গার্ডে ইউরোপ ২০১৮ ও ২০১৯ সালে তাদের পরিচালনা কমিটির অন্যতম সদস্য ও বিজ্ঞান এবং  প্রযুক্তিগত সমন্বয়কারীর পদে রয়েছেন।

(ঢাকাটাইমস/১১নভেম্বর/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

প্রবাসের খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :