‘আমি বড় খেলোয়াড়, আমাকে ধরতে এক হাজার বছর লাগবে’, অতঃপর...

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫৫ | প্রকাশিত : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৪৭

‘শোনো আমি তোমাকে একটা কথা বলি। আমি বাংলাদেশের কতটা পাওয়ার নিয়ে চলি, আমি নিজে জানি। তুমি আমারে মনে করো না যে, আমি কম বড় খেলোয়াড়। আমাকে যদি ধরতে হয়, তাহলে তোমার থেকে বড় খেলোয়াড় লাগবে।’

গ্রাহকের ১১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের সঙ্গে জড়িত আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘ই-অরেঞ্জে’র প্রধান সমন্বয়ক ভারতে আটক বনানী থানার সাবেক পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) শেখ সোহেল রানার এ রকমই দম্ভোক্তি-ভরা একটি কথোপকথনের অডিও এসেছে ঢাকা টাইমসের হাতে। একজন গ্রাহক ই-অরেঞ্জে তার বিনিয়োগের টাকা চাইলে তাকে হুমকি দিয়ে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, আমাকে ধরতে এক হাজার বছর লাগবে।

২০০৭ সালে যাত্রা শুরু করা অনলাইন শপ ই-অরেঞ্জের বিরুদ্ধে সম্প্রতি টাকা নিয়ে সময়মতো পণ্য সরবরাহ না করার অভিযোগ করেন গ্রাহকরা। এই প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন পুলিশের পরিদর্শক সোহেল রানা।

পণ্য ডেলিভারি না দেয়া এবং অগ্রিম অর্থ ফেরত না দেয়ায় ই-অরেঞ্জের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের ১১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা এক মামলায় প্রতিষ্ঠানটির মালিক সোনিয়া মেহজাবিন ও তার স্বামী মাসুকুর রহমান এখন কারাগারে। এ ছাড়া রাজধানীর গুলশান থানায় এক গ্রাহকের প্রায় কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনায় একটি মামলা হয়। সেই মামলায় দশ অভিযুক্তের মধ্যে সোহেল রানার নাম রয়েছে।

টাকা আত্মসাতের বিষয়ে ফেঁসে যাচ্ছেন টের পেয়ে গোপনে দেশ ছাড়েন বনানী থানার পরিদর্শক সোহেল রানা। দালালের মাধ্যমে পৌঁছান ভারতে। উদ্দেশ্য ছিল, সেখান থেকে পাড়ি জমাবেন ইউরোপে। কিন্তু বিধি বাম। গত শুক্রবার ভারত-নেপাল সীমান্তে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের হাতে আটক হন তিনি। দেশটির আদালত তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ড দিয়েছে।

ফোনে গ্রাহককে হুমকির রেকর্ডে যা আছে

ই-অরেঞ্জের প্রতারণার বিষয়টি আঁচ করতে পেরে একজন গ্রাহক সরাসরি সোহেল রানাকে ফোন দিয়েছিলেন। এ সময় ভুক্তভোগী ওই ব্যক্তি সোহেলের কাছে টাকা ফেরত চাইলে তাকে নানাভাবে হুমকি দেওয়া হয়। ফোনের অডিওতে শোনা যায়, সোহেল রানা দম্ভ করে বলছেন, তিনি বিশেষ ক্ষমতার অধিকারী। তাকে কিছুই করা যাবে না। পুলিশে তার চাকরির ১৯ বছরের ১২ বছরই গুলশান বিভাগে চাকরি করেছেন বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

কথোপকথনের মধ্যে সোহেল রানা বলেন, ‘শোনো, আমি তোমাকে একটা কথা বলি। আমি বাংলাদেশের কতটা পাওয়ার নিয়ে চলি, আমি নিজে জানি। তুমি আমারে মনে করো না যে আমি কম বড় খেলোয়াড়। আমাকে যদি ধরতে হয়, তাহলে তোমার থেকে বড় খেলোয়াড় লাগবে।’

‘আপনি (সোহেল রানা) চারটি বিয়ে করেছেন বা টাকা নিয়ে হয়রানি করছেন’- এই কথা বলে ওই ভুক্তভোগী পুলিশের ঊচ্চপর্যায়ে অভিযোগ করবেন জানালে সোহেল রানা হুমকি দিয়ে বলেন, ‘এসব অভিযোগ দিয়ে কোনো লাভ হবে না।... ‘আমার চারটা বউ, পাঁচটা বউ, দশটা বউ তাতে কার কী? আমার বউরা কি কোনো কিছু বলেছে? যতক্ষণ পর্যন্ত আমার বউয়েরা না অভিযোগ করবে ততক্ষণ পর্যন্ত কিছু হবে না। তোমাকে আমি ডেকে নিয়ে এসেছি, তারপরও তুমি আমার এডিসির কাছে গিয়েছো কেন?’... বলেই গালি দেন সোহেল রানা।

জেল খাটলেও কোনো সমস্যা নেই জানিয়ে আলোচিত এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘তুমি (ভুক্তভোগী) কি ভাবছো সোহেল ভাইয়ের দুর্বল পয়েন্ট পেয়েছি, এবার কুপোকাত করব; করো। আমার বোনের নামে মামলা করো। আমার বোন যদি জেলে যায় যাক। সমস্যাটা কী? যাইতেছে না অনেকে। আমার বোন যদি ছয় মাস জেল খেটে বের হয়ে আসে, তখন তুমি... কী করবা ... ফালাবা?’

সোহেল রানা ওই ভুক্তভোগীকে বলেন, ‘আমি কিন্তু ... ছেলে। আমি যেনতেন জায়গার ছেলে না। ১৯ বছরের ১২ বছরই গুলশান বিভাগে চাকরি করেছি। তুমি যেভাবে আমাকে বলতেছ- আমার কাছে (ভুক্তভোগীর কাছে) ডকুমেন্টস আছে, এই আছে, সেই আছে। তোমার কাছে ডকুমেন্টস থাকুক, আমার নামে লেখো না রে ভাই। আমি ভালোর ভালো, খারাপের যে কত প্রকার... সেটা তুমি এখন জানো না। আমি বারো বছর কিন্তু গুলশানে।... কত পাকনা পাকনা লোক সব আমার মুখস্থ। তুমি আমাকে ধরতে গেলে এক হাজার বছর লাগবে। নিজের মতো থাকো, না হলে মামলা করো, যাও।’

এদিকে গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. আসাদুজ্জামান পরিদর্শক সোহেল রানার বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ ডিএমপি কমিশনারের কাছে হস্তান্তর করেন। তাতে তিনি (ডিসি) উল্লেখ করেন- সোহেল রানার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তিনি ভারতে পালিয়ে গেছেন এবং সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হয়েছেন। এরপরই ডিএমপি কমিশনার বনানী থানার পরিদর্শকের পদ থেকে সোহেল রানাকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। সেখানে নতুন একজনকে ইতিমধ্যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/৬সেপ্টেম্বর/এসএস/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :