করোনার নতুন ধরন আসতে পারে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সতর্কতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯:০০ | প্রকাশিত : ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬:৩৪

সম্প্রতি চীনের রেকর্ড সংখ্যক করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর থেকে প্রমাণ হয়েছে কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবেলার কৌশলে ত্রুটি ছিল। ত্রুটির কারণে নতুন রুপে আবারও দেখা দিতে পারে এই ভাইরাস। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস শুক্রবার সুইজারল্যান্ডের রাজধানী জেনেভায় ডব্লিউএইচওর কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমনটা বলেছেন। খবর রয়টার্সের।

গেব্রিয়েসুস বলেছেন, ‘এই উদাসীনতা ও সচেতনতার অভাবে করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ সব নতুন ধরন আগমনের পরিবেশ তৈরি করতে পারে।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালকের মন্তব্য তার বক্তব্যের কয়েক মাস পরেই পাল্টে যায়। তিনি বলেছিলেন, মহামারি শেষ করার মতো ভাল অবস্থানে ছিল না বিশ্ব।

তেদ্রোস শুক্রবার বলেছেন, ‘আমরা মহামারির জরুরি পর্যায় শেষ হয়ে গেছে তা বলতে সক্ষম হওয়ার অনেক কাছাকাছি, তবে আমরা এখনও সেখানে নেই।’

গ্লোবাল হেলথ এজেন্সির মতে, বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় ৯০ শতাংশ এখন সারস-কোভ-২ এর প্রতি কিছু মাত্রার অনাক্রম্যতা রয়েছে সেটা হয়তো পূর্বের সংক্রমণ বা টিকা দেওয়ার কারণে।

টেড্রোস বলেন, ‘পরীক্ষায় ফাঁক... এবং টিকাকরণ উদ্বেগের একটি নতুন রূপের উদ্ভবের জন্য নিখুঁত পরিস্থিতি তৈরি করে চলেছে যা উল্লেখযোগ্য মৃত্যুর কারণ হতে পারে।’

এদিকে কোভিড-১৯ সংক্রমণ চীনে রেকর্ড উচ্চতায় রয়েছে এবং কয়েক মাস পতনের পরে ব্রিটেনের কিছু অংশে বাড়তে শুরু করেছে। চীনের কিছু শহরে কোভিড-১৯ পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা এবং কোয়ারেন্টাইন নিয়মগুলির শিথিলকরণের ঘোষণা দেওয়ার পর শুক্রবার স্বস্তি এবং উদ্বেগের মিশ্র প্রতিক্রিয়ায় পরিণত হয়েছিল। কারণ লাখ লাখ মানুষ কোভিড বিধি শিথিল করার জন্য রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করেছে।

ইউকে হেলথ সিকিউরিটি এজেন্সির জনস্বাস্থ্য কর্মসূচির পরিচালক মেরি রামসে বলেন, ‘যদিও কোভিড-১৯ এবং ফ্লু অনেকের জন্য হালকা সংক্রমণ হতে পারে, তবে আমাদের ভুলে যাওয়া উচিত নয় যে তারা আমাদের সম্প্রদায়ের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের জন্য গুরুতর অসুস্থতা বা এমনকি মৃত্যুও ঘটাতে পারে।’

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৬৪ কোটি ৯২ লাখ ৪৫ হাজার ২৯২ জন এবং এ রোগে মৃত্যু হয়েছে মোট ৬৬ লাখ ৪৪ হাজার ৬১৬ জনের।

ডব্লিউএইচও বিশ্বব্যাপী সরকারগুলিকে টিকা দেওয়ার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের, যেমন ৬০ বছরের বেশি বয়সী এবং অন্তর্নিহিত অবস্থার লোকদের কাছে পৌঁছানোর দিকে মনোনিবেশ করার আহ্বান জানিয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/০৩ডিসেম্বর/ এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :