মানবতাবিরোধী অপরাধ

ত্রিশালের পাঁচজনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৩:৫০ | প্রকাশিত : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১২:০১

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ময়মনসিংহের ত্রিশালের পাঁচজনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

সোমবার ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচারিক প্যানেল এ রায় ঘোষণা করেন।

এ মামলায় অন্যতম আসামি ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনের জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য এমএ হান্নান। কারাবন্দি অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

ট্রাইব্যুনালে শুনানিতে ছিলেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সিমন, রেজিয়া সুলতানা চমন ও তাপস কান্তি বল। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আব্দুস সোবহান তরফদার, মিজানুল ইসলাম ও গাজী এমএইচ তামিম।

২০১৫ সালের ১৯ মে ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনের জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য এমএ হান্নানসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুর রহমানের স্ত্রী রহিমা খাতুন। মামলায় এমএ হান্নান ছাড়াও জামায়াত নেতা ফখরুজ্জামান ও গোলাম রব্বানীকে আসামি করা হয়। পরে তদন্তে আরও পাঁচজনের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় এ মামলার আসামি করা হয় মোট আটজনকে।

মামলায় ২০১৬ সালের ১১ ডিসেম্বর এমপি হান্নানসহ আটজনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল। ২০১৯ সালের ২৭ মে এ মামলার বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত।

বিচার শেষে ২০২২ সালের ২৩ নভেম্বর রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখেন ট্রাইব্যুনাল।

আট আসামি হলেন- এমএ হান্নান ও তার ছেলে রফিক সাজ্জাদ, ডা. খন্দকার গোলাম সাব্বির আহমদ, মিজানুর রহমান মিন্টু, মো. হরমুজ আলী, ফখরুজ্জামান, আব্দুস সাত্তার ও খন্দকার গোলাম রব্বানী।

এর মধ্যে কারাবন্দি থাকা অবস্থায় এমএ হান্নান ও তার ছেলে রফিক সাজ্জাদ এবং অপর এক আসামি মিজানুর রহমান মন্টু মারা গেছেন।

বাকি পাঁচ আসামি ডা. খন্দকার গোলাম সাব্বির আহমদ, হরমুজ আলী ও আব্দুস সাত্তার পলাতক আছেন। ফখরুজ্জামান ও খন্দকার গোলাম রব্বানী কারাগারে আছেন। এই পাঁচ আসামিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

আনুষ্ঠানিক অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, আটক, অপহরণ, নির্যাতন, গুম, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ছয়টি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়।

মুক্তিযুদ্ধের সময় ২১ এপ্রিল থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ত্রিশাল উপজেলায় তারা অপরাধগুলো সংঘটিত করেন বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

২০১৬ সালের ১১ জুলাই হান্নানসহ আটজনের বিরুদ্দে তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন তদন্ত সংস্থা। এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. মতিউর রহমান ২০১৫ সালের ২৮ জুলাই থেকে ২০১৬ সালের ১১ জুলাই পর্যন্ত তদন্ত কাজ সম্পন্ন করেন।

একই বছরের ১ অক্টোবর প্রসিকিউশনের আবেদনক্রমে এ মামলার আট আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল। পরে ওই দিনই ঢাকায় গ্রেপ্তার হন এমএ হান্নান ও তার ছেলে রফিক সাজ্জাদ।

(ঢাকাটাইমস/২০ফেব্রুয়ারি/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আদালত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আদালত এর সর্বশেষ

অবৈধভাবে পানীয় বাজারজাত, রাফসানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

সাবেক ভ্যাট কমিশনার ওয়াহিদার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

আইডিয়ালের ছাত্রী ধর্ষণ মামলা: পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে তিশার বাবার নারাজি আবেদন

বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

আদালত ‘অবমাননা’: বিএনপির ৭ আইনজীবীকে ২৫ জুলাইয়ের মধ্যে ব্যাখ্যা দেওয়ার নির্দেশ

শ্রমিকদের অর্থ আত্মসাৎ: ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিচার শুরু

ধর্ষণ মামলায় টিকটকার প্রিন্স মামুন কারাগারে

সাল্ফ নারায়ণগঞ্জ বার চ্যাপ্টারের কমিটি গঠন 

আপিল বিভাগে প্রধান বিচারপতির সুসজ্জিত এজলাস উদ্বোধন

মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের রায় স্থগিত করেননি চেম্বার আদালত, পরবর্তী শুনানি ৪ জুলাই

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :