গরমে পায়ের গোড়ালি ফাটা রোধ করবেন যে পন্থায়

ফিচার ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ মে ২০২৪, ০৮:৫৫

পায়ের গোড়ালি ফেটে যাওয়া একটি বিব্রতকর সমস্যা। কমবেশি সবাই কোনো না কোনো বয়সে এই সমস্যার মুখোমুখি হন। বিশেষ করে গরমের দিনেও পা ফাটছে। এর জন্য আবহাওয়ার পরিবর্তন, দূষণসহ আরো নানা কারণ দায়ী। আর পায়ের গোড়ালির ত্বকের শুষ্কতা বেশি। বেশিরভাগ কোশ মৃত। ত্বকের আর্দ্রতার অভাবে বা জীবাণুর আক্রমণে গরমেও ফাটতে পারে গোড়ালি। তবে পায়ের গোড়ালি ফাটা এর কারণে সমস্যা যে শুধু সৌন্দর্য ক্ষুণ্ণতার, তা কিন্তু নয়। বরং এই গোড়ালি ফাটা অনেক ক্ষেত্রেই হতে পারে অন্য কোনো লুকানো রোগের লক্ষণ। এ ছাড়া অনিয়মিত খাওয়া-দাওয়া, জীবনযাপন প্রণালি, ভিটামিন ই-র অভাব, ক্যালশিয়াম ও আয়রনের অভাবে গোড়ালি ফাটতে শুরু করে।

গরমে পা ফাটার আরও একটি কারণ হল শরীরে পানির ঘাটতি। পরিবেশের আর্দ্রতা কম থাকা, কম পানি পান করা কিংবা দীর্ঘক্ষণ হাঁটাহাঁটি করার ফলে পায়ের ত্বকের আর্দ্রতা কমে যেতে পারে। ফলে চামড়া শুকিয়ে ও ফেটে যেতে পারে।

এগজিমা এমন এক ধরনের ত্বকের রোগ যার প্রভাবেও পায়ের ত্বক ফাটতে পারে। এই রোগের মধ্যে সবচেয়ে বেশি যে উপসর্গটি দেখা যায় তাকে বিজ্ঞানের ভাষায় বলে অ্যাটপিক ডার্মাটাইটিস। সারা দেহের যেকোনো স্থানেই এই রোগ হতে পারে।

সোরিয়াসিস রোগের ক্ষেত্রেও পা ফাটা দেখা যেতে পারে। পায়ের তালুতে খোসার মতো চামড়া উঠতে থাকে এই রোগে। তবে ক্ষেত্র বিশেষে এটি ছড়িয়ে পড়তে পারে পায়ের গোড়ালিতেও। এই রোগটি সাধারণত দীর্ঘস্থায়ী ভাবে হয়।

পা ফাটার অনেকগুলো কারণের মধ্যে অন্যতম কারণ হলো ভিটামিনের অভাব। বিশেষত ভিটামিন ‘বি ও ভিটামিন ‘সি ত্বকের যত্নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই এই ভিটামিনগুলোর অভাবে ত্বকে নানা প্রকার সমস্যা দেখা দেয়। যার মধ্যে অন্যতম পায়ের গোড়ালি ফেটে যাওয়া। জেনে নিন পায়ের গোড়ালি ফাটার সমস্যা প্রতিরোধে সহজ-ঘরোয়া-কার্যকরী উপায়-

শরীরে তরলের পরিমাণ কম থাকলে, ত্বকেও তার প্রভাব দেখা যায়। ত্বক শুকিয়ে যায়। ঠোঁট ও পায়ের চামড়া ফাটতে থাকে। পায়ের যত্ন নিতে গেলে প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন। ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে গেলে ভিতর থেকে হাইড্রেটেড থাকা জরুরি।

গ্রীষ্মকালে ভারী ময়েশ্চারাইজার মাখা যায় না। কিন্তু উপর থেকেও ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে হবে। আর এই কাজটা সহজ করে দিতে পারে পেট্রোলিয়াম জেলি। ফাটা গোড়ালির উপর পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে নিন। এতে মসৃণ ত্বক পেয়ে যাবেন। দিনে অন্তত দু’বার পায়ে পেট্রোলিয়াম জেলি মাখুন।

পায়ের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে গেলে ভাল মানের জুতো ব্যবহার করা দরকার। এতে পায়ের ত্বকও ভাল থাকে। পা ঢাকা জুতো পরে রাস্তায় বেরোন। এতে ত্বক ধুলোবালি, জীবাণুর সংস্পর্শে কম আসবে। আর সুতির মোজা ব্যবহার করুন। পাশাপাশি বাড়িতেও স্লিপার ব্যবহার করুন।

গরমে নিয়মিত স্ক্রাব ব্যবহার করা উচিত। এতে পায়ের ত্বকের উপরে জমে থাকা ময়লা, জীবাণু ও মৃত কোষ পরিষ্কার হয়ে যায়। প্রথমে গরম পানিতে পা ডুবিয়ে রাখুন। তারপর স্ক্রাব দিয়ে পা এক্সফোলিয়েট করে নিন। এরপর ঈষদুষ্ণ পানিতে পা ধুয়ে নিন।

শুনতে বিস্ময়কর লাগলেও, গরমে পায়ের পাতা ফাটা বা গোড়ালি ফাটার সমাধান করতে পারে মাউথওয়াশ। ১ ভাগ মাউথওয়াশের সঙ্গে ২ ভাগ জল মিশিয়ে, তাতে ফাটা জায়গা ডুবিয়ে রাখুন। জীবাণু মরবে, আর পায়ের আর্দ্রতাও ধরা থাকবে।

গ্রীষ্মে পা ফাটার আর এক সমাধান মধু। ফাটা জায়গায় মধু লাগিয়ে রেখে দিন আধ ঘণ্টা। তার পরে ধুয়ে ফেলুন। এতে ফাটা জায়গায় জীবাণুর সংক্রমণ কমবে। ফাটাও কমবে।

নারিকেল তেল দিয়েও গ্রীষ্মের পা ফাটার নিরাময় হতে পারে। ফাটা জায়গায় এই তেল লাগিয়ে রেখে দিন ১৫-২০ মিনিট। তার পরে ধুয়ে ফেলুন।

ফাংগাস বা ছত্রাক জাতীয় সংক্রমণের কারণে কি পা ফাটছে? তা হলে ভিনিগারে পা ভিজিয়ে রাখুন। ফাটা কমে যাবে।

কলা থেঁতো করে নিন। তার পরে ফাটা জায়গায় লাগিয়ে দিন। যত ক্ষণ না কলা শুকিয়ে যায়, তত ক্ষণ রেখে দিন। তার পরে ধুয়ে ফেলুন।

প্রতিদিন জলপাই তেল দিয়ে পায়ের পাতা মালিশ করলে ফাটার আশঙ্কা অনেকটা কমে যাবে।

গ্রীষ্মে পা ফাটা আটকাতে পেঁপের বিকল্প নেই। এটিকেও থেঁতো করে ফাটা জায়গায় লাগিয়ে নিন। তার পরে শুকিয়ে আসা পর্যন্ত রেখে দিন। এর পরে ধুয়ে ফেলুন।

শুষ্ক-মৃত কোষকে নতুন প্রাণ দেয় অ্যালোভেরা জেল। গোড়ালি ফাটলে তাই এর সাহায্য নিতেই পারেন। অ্যালোভেরা জেলে থাকা অ্যামিনো অ্যাসিড আপনার ফাটা-রুক্ষ গোড়ালিকে রাতারাতি করে তুলবে সুন্দর-নমনীয়। ফুট বাথ নেওয়ার পর অ্যালোভেরা জেল আর অলিভ অয়েলের একটা মিশ্রণ তৈরি করে পুরো পায়ে ভালো করে লাগিয়ে নিন।

গোলাপজলে রয়েছে ভিটামিন এ, বি৩, সি, ডি ও ই, অ্যান্টিসেপ্টিক এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান যা পা ফাটা দূর করে। এবং গ্লিসারিন ত্বককে নরম ও কোমল করতে সহায়তা করে। সমান পরিমাণ গোলাপজল এবং গ্লিসারিন মিশিয়ে নিয়ে প্রতি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পায়ের গোড়ালি ও পাতায় ম্যাসেজ করুন।

পায়ের যত্ন নিতে ফুট ক্রিম ব্যবহার করুন। ফুট ক্রিমের মধ্যে গ্লিসারিন, হাইলুরনিক অ্যাসিড, ইউরিয়া, ল্যাকটিক অ্যাসিড ও মিনারেল অয়েলের মতো উপাদান রয়েছে, সেটা যাচাই করে নিন। এগুলো ফাটা পায়ের যত্ন নিতে সাহায্য করে।

(ঢাকাটাইমস/১৯ মে/আরজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :