জাপানে বৈশাখী মেলা

হাসিনা বেগম, জাপান
 | প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০১৯, ২১:৩৫

বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা, আনন্দ-উচ্ছ্বাসে জাপান প্রবাসীদের প্রাণের মেলা বৈশাখী মেলা। যা ‘টোকিও বৈশাখী’ মেলা নামে সমধিক পরিচিত।

২১ এপ্রিল টোকিওর প্রাণকেন্দ্র তোশিমা সিটির হিগাশি ইকেবুকুরো পার্কে দিনব্যাপী এই মেলায় আগমন ঘটেছিল ধর্ম-বর্ণ-দল-মত নির্বিশেষে সর্বস্তরের প্রবাসীর। শুধু প্রবাসীরাই নয়, স্থানীয় জাপানি অতিথি ছাড়াও বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা হিগাশি ইকেবুকুরো পার্কে দিনব্যাপী একচিলতে বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশীয় সংস্কৃতি উপভোগ করেন।

বছরব্যাপী অপেক্ষায় থাকা বিশতম বৈশাখী মেলা ও কারি ফেস্টিভ্যাল অত্যন্ত সাফল্যজনকভাবেই সমাপ্ত হয়েছে।

বরাবরের মতোই এবারের আয়োজনেও প্রবাসীদের ঢল নেমেছিল। পরিণত হয়েছিল প্রবাসী বাংলাদেশিদের মিলন মেলা। মেলাটি পরিচিতি পেয়েছিল জাপানে একটুকরো বাংলাদেশ।

জাপানে বসবাসরত সবার অংশগ্রহণে হয়ে ওঠে জাপান বৈশাখী মেলা। তাই তো জাপানের বিভিন্ন অঞ্চলে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি এবং তাদের সুহৃদরা স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে মেলা আর মেলাতেই সীমাবদ্ধ থাকে না, হয়ে ওঠে মহামিলন মেলা। তাই বৈশাখী মেলা হয়ে ওঠে জাপান প্রবাসীদের একক  এবং বৃহৎ মিলন মেলা।

দিনব্যাপী আয়োজনটির উপস্থাপনার দায়িত্ব পালনে ছিলেন জুয়েল আহসান কামরুল, নারমিন হক এবং নিয়াজ আহমেদ জুয়েল।

মেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন- বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা। বিশেষ অতিথি ছিলেন- বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমি, তোশিমা সিটি ডেপুটি মেয়র মাসাতো সাইতো, জেবিএস সভাপতি ওসামু ওতসুবো।

অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ এবং মেলা কমিটির পক্ষ থেকে উপহার প্রদান করা হয়।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জাপান-বাংলাদেশ সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের সাবেক রাষ্ট্রদূত মাতসুশিরো হোরিগুচি।

এবার দেশ থেকে আমন্ত্রিত হয়ে এসেছিলেন চ্যানেল আই  সেরাকণ্ঠ সৈয়দ আশিকুর রহমান আশিক এবং চ্যানেল-৯ পাওয়ার ভয়েস রেশমি মির্জা। যন্ত্রে এসেছিলেন আনিসুর রহমান রাসেল, পারকাশনিস্ট ও ড্রামার খাদিমুল ইসলাম রাসেল এবং কি-বোর্ডে সৌরভ কুমার।

এছাড়াও প্রতিবছরের মতো এবারও শিশুদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, চিত্রাঙ্কন, উন্মুক্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, জাপানিজ ঢাক এবং স্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন স্বরলিপি কালচারাল একাডেমি-টোকিও এবং উত্তরণ বাংলাদেশ কালচারাল গ্রুপ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে।

বাংলাদেশ থেকে আগত জাপানি ব্যান্ড ‘বাজনা বিতো’ সঙ্গীত পরিবেশন করে।

এবছর মেলাতে ১৬টি খাবারের দোকানসহ মোট ২৬টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তাদের পসরা সাজাবার সুযোগ পায়। মোট ৫২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আর্থিক সহযোগিতার হাত বাড়ায়।

(ঢাকাটাইমস/২২এপ্রিল/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

প্রবাসের খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :