করোনায় গৃহবন্দী জীবনেও থাকুন ফিট

ফিচার ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৭ মার্চ ২০২০, ১০:১৭

করোনাভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করতে হলে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে। আর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর মোক্ষম অস্ত্র ব্যায়াম। গৃহবন্দির জীবনেরও এই সময়েও করতে পারেন ব্যায়াম। ঘরে বসেই।

ব্রিটিশ সোসাইটি ফর ইমিউনোলজির অধ্যাপক আর্নে আকবর জানিয়েছেন, শারীরিক ভাবে ফিট থাকলেই রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি হবে। আমাদের শরীরের রক্ষণ-প্রাচীর বলা হয় রক্তের শ্বেত কণিকাকে। নিয়মিত ব্যায়াম করলে রক্তসঞ্চালন এই শ্বেত কণিকাকে সক্রিয় করে তোলে। শরীরের মধ্যে ঢুকে পড়া জীবাণুকে খুঁজে বার করে এই শ্বেত কণিকা।

বিশেষ করে, যাদের ডায়াবেটিস, কোলেস্টেরল, গেঁটে বাত রয়েছে, তাদের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সম্ভাবনা অনেক বেশি। কারণ রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে। এই পরিস্থিতিতে পুরুষ-মহিলা সকলেরই নিয়মিত ব্যায়াম করা আবশ্যিক। এমনিতেই ৬৫ বছর বয়সের পর থেকে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমতে শুরু করে। ফলে নিয়মিত শারীরচর্চা খুবই প্রয়োজনীয়।

বিনাখরচায় জিম করুন নিজের বাড়ির জিমেই ট্রেনিং করছেন লিয়োনেল মেসি। নিয়মিত শারীরচর্চা করছেন বিরাট কোহলিও। আপনার মনে হতেই পারে, ওদের নিজস্ব জিম এবং ব্যায়ামের প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম রয়েছে, তাই শারীরচর্চা করা খুবই সহজ। ব্যাপারটা আদৌ তা নয়। সত্যি বলতে, এ ক্ষেত্রে বিশেষ কোনও সরঞ্জামের প্রয়োজন হয় না। ডাম্বেলের পরিবর্তে হাতে তুলে নিন পানিভর্তি এক অথবা দুই লিটারের বোতল। রাস্তা অথবা মাঠের পরিবর্তে ঘরের মধ্যে করতে পারেন ব্যায়াম।

সহজ-সরল ব্যায়াম খুবই সহজ প্রকৃতির চারটি ব্যায়াম এই সময়ে করা যেতেই পারে। যে কোনও বয়সের পুরুষ এবং মহিলা এই চারটি ব্যায়াম নিয়মিত করলে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি হবেই।

১. ব্রিজ: দুটি হাঁটু ভাঁজ করে কোমর থেকে ফুট খানেক দূরে রাখতে হবে। হাত যেন থাকে মাটিতেই। এই অবস্থায় কোমরকে তুলতে হবে শূন্যে। মনে মনে ৩০ পর্যন্ত গুনুন। ব্যায়ামটা সহজ মনে হলে একটি পা’কে শূন্যে রেখে কোমরকে উপরে তোলার চেষ্টা করুন।

২. বোতল-বদল: ছয়টি দুই লিটারের পানিভর্তি বোতল ঘরের এক কোণে রাখুন। ব্রিজ ব্যায়ামের পড়ে দুই হাতে দুটি বোতল রেখে দিন ঘরের ঠিক বিপরীত কোণে। ফিরে এসে বাকি চারটি বোতলও একই ভাবে রাখুন বিপরীত কোণে। এ বার বোতলগুলো শুরুতে যেখানে ছিল, সেখানে আবার ফিরিয়ে আনতে হবে। বিশ্রাম নিন দুইমিনিট। আবার আগের প্রক্রিয়ায় ফিরে যান। এ ভাবে দুই তিনবার ব্যায়ামটা করতে হবে। এই ধরনের ব্যায়াম স্ট্রেস হরমোন কর্টিসলের মাত্রা কমিয়ে দেয়। যা রোগপ্রতিরোধক ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

৩. ওয়াইপার: গাড়ির কাচে জল সরাতে যেমন ওয়াইপার ব্যবহার করা হয়ে থাকে, এই ব্যায়াম অনেকটা সে ধরনের। একটা বালিশ নিয়ে দুই হাঁটুর মাঝখানে জোরে চেপে ধরে চিত হয়ে শুয়ে পড়তে হবে। এ বার গাড়ির ওয়াইপার যেমন এক দিক থেকে আর দিকে যায়, ঠিক সে ভাবে কোমর উপরে তুলে শরীরকে ডান থেকে বাঁ-দিকে ঘোরাতে হবে। মনে রাখবেন, এই সময় কোমর যেন শূন্যেই থাকে। দুই দিক মিলিয়ে ২০ বার মতো এই ব্যায়াম করার পরে উঠে পড়ুন।

৪. ওজন নিয়ে এবং ছাড়া হাঁটা: আয়নার সামনে দুই হাতে এক লিটারের পানিভর্তি বোতল নিয়ে দাঁড়াতে হবে। ঠিক যে ভঙ্গিতে আমরা হাঁটি, সে ভাবেই এক জায়গায় দাঁড়িয়ে দ্রুত হাঁটতে হবে। হাতের বোতল দুটিকেও জোরে দোলাতে হবে। মনে মনে ৩০ গুনবেন। হাঁটার প্রথম অংশটা কঠিন হলেও দ্বিতীয় অংশটা সহজ। ব্যায়াম হয়ে যাওয়ার পরে জোরে শ্বাস নিতে এবং ছাড়তে হবে। এতে ফুসফুসে বেশি মাত্রায় অক্সিজেন ঢুকবে। শরীর অনেক বেশি তরতাজা বলে মনে হবে।

(ঢাকাটাইমস/২৭মার্চ/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :