হাজারেরও বেশি বন্দী বিনিময়ে সম্মত ইয়েমেন সরকার ও হুতি বিদ্রোহী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:২০

হাজারেরও বেশি বন্দী বিনিময় চুক্তিতে সম্মত হয়েছে ইয়েমেন সরকার ও হুতি বিদ্রোহীরা। ২০১৮ সালের শেষ দিকে সুইডেনে হওয়া এক শান্তি চুক্তির অংশ হিসেবে বন্দী বিনিময় করতে যাচ্ছে এই দুটি পক্ষ। খবর আল জাজিরা।

বন্দীদের মধ্যে ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট আব রাব্বু মানসুর হাদির ভাইয়ের পাশাপাশি আছেন সৌদির ১৯ সেনা সদস্য। তবে ইয়েমেনের একটি প্রতিনিধি দল বলছে, ইয়েমেনের প্রেসিডেন্টের ভাই জেনারেল নাছের মানসুর হাদীর মুক্তির বিষয়টি অজানা কারনে আটকে গেছে।

জানা গেছে, এই দফায় উভয়ই ১০৮০ জন কারাবন্দী বিনিময় করার জন্য সম্মত হয়েছেন।

ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব রেড ক্রস (আইআরসি) এই বন্দী বিনিময় চুক্তির পর্যবেক্ষন করবেন। তারা বলছে, ‘২০১৮ সালে উভয় পক্ষই ১৫ হাজার কারাবন্দীকে বিনিময় করার যে অঙ্গিকার করেছেন তার অংশ হিসেবে এই উদ্যোগ। তবে উদ্যোগটি খুব ধীরে ধীরে বাস্তবায়ন হচ্ছে’।

সৌদি সেনা সর্মথিত ইয়েমেন সরকার ও ইরান সর্মথিত হুতি বিদ্রোহীরা ইয়েমেনে গেল ৫ বছর ধরে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে লিপ্ত আছে। আর এই যুদ্ধে এখন পর্যন্ত দেশটিতে প্রায় ১০ হাজার মানুষ মারা গেছেন। যাদের বেশিরভাগই বেসামরিক মানুষ।

জ্যেষ্ঠ হুতি কর্মকতা মোহাম্মদ আলী আল হুতি এক টুইট বার্তায় বলেছেন, ‘শুধু স্বাক্ষর করাই নয়, এর বাস্তবায়ন করাই আমাদের লক্ষ্যে ও উদ্দেশ্যে।’

এর আগে গেল বছর ২৯০ জন কয়েদীকে মুক্তি দেয় হুতিরা। হুতিদের বিপরীতে ১২৮ জনকে মুক্তি দেয় সৌদি আরব। এই বছরের জানুয়ারীতে আইসিআরসির মধ্যস্ততায় আরো ছয় সৌদিকে মুক্তি দেয় হুতি বিদ্রোহীরা।

সম্প্রতি গেল ১৮ সেপ্টেম্বর সুইজারল্যান্ডের একটি এলাকায় গোপনীয়ভাবে দুই পক্ষের মধ্যে ১৪২০ জন বন্দী বিনিময়ের চুক্তি হয়।

ইয়েমেনে হুতিদের সাথে ইয়েমেন সরকারের এই যুদ্ধকে ইরান ও সৌদি আরবের সঙ্গে প্রক্সি যুদ্ধ বলা হয়ে থাকে। কারন দেশটিতে হুতিদের সমর্থন দেয় ইরান অন্যদিকে ইয়েমেন সরকারকে পৃষপোষক সৌদি আরব।

ঢাকাটাইমস/২৬ সেপ্টেম্বর/এনএইচএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :