আমাদের পানি সম্পদ শেষ হয়ে যাচ্ছে

সাঈদ চৌধুরী
| আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১৬:১৪ | প্রকাশিত : ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১৫:৩৯

আমাদের পানি সম্পদ শেষ হচ্ছে এভাবেই। বিশুদ্ধ পানির জন্য যদি আমাদের সংগ্রাম করতে হয় তবে সেটা হবে সবচেয়ে বেশি ব্যয়বহুল ও কঠিন চ্যালেঞ্জের। মাটির তলদেশের পানিকে ব্যবহারের পর প্রকৃতিতে ছেড়ে দেয়ার জন্য কতটা নিয়ম মানছে আমাদের ফ্যাক্টরিগুলো? এ ছবিতেই দেখুন কয়েক রঙের পানি এক সাথে দেখা যাচ্ছে। মাটি কতটুকু দূষণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এর কোনো গবেষণা আদৌ পানির জন্য আছে কি? ভূগর্ভস্থ পানিকে স্বচ্ছ ও পরিশোধিত রাখার জন্য আমরা করণীয় এখনও ঠিক করতে পারিনি। কিছু পরিকল্পনা যদি আমরা নিজেরা দাঁড় না করতে পারি তবে পানি নিয়ে আমাদের এক সময় ভুগতেই হবে।

একটি খাল যখন পানির ধারক হয় তখন সে খালের মধ্য দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়ে নদীতে পড়বে এটাই স্বাভাবিক কিন্তু লবলং খালের ক্ষেত্রে খালের তলদেশে প্রচুর পরিমাণ মোটা স্তর পড়ে যাওয়ায় মাটির তলদেশে যেতে পারছে না কারণ তা বোঝা যায় এই খালের আশপাশের জমিগুলোর দিকে তাকালেই। ব্যক্তিগত জমিগুলো আজ ময়লা পানির নহর বয়ে বেড়াচ্ছে। কত শত মানুষ এতে ক্ষতিগ্রস্ত। স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে আছে এ অঞ্চলে বসবাস করা সবাই। অথচ রাজনৈতিক সদিচ্ছা এবং বৈজ্ঞানিক গবেষণার অপ্রতুলতা তথা অমনোযোগিতা আমাদেরকে নিয়ে যাচ্ছে একটি নিশ্চিত অনিশ্চয়তার মুখে।

টাকা হলে রোগ সারানোর মন্ত্র শিখছে মানুষ, কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে পানি পরিশোধন করতে জানে মানুষ কিন্তু এক সময় পানির স্তরে পানি না থাকলে কী করবে সে ব্যাপারে কোনো উত্তর আছে কি? করোনার ব্যাপারে আমরা কেউ নিশ্চিত ছিলাম না। অথচ করোনাই আমাদের ঘায়েল করে দিল। হঠাৎ পানিতে এমন উপাদান পাওয়া গেল যে উপাদান রিমোভ করার কোনো কৌশলই আমরা বের করতে পারছি না, তখন কেমন হবে।

কিছুদিন আগে যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রদেশের শিশুদের ব্রেইন খেকো এ্যামিবার কথা শুনলাম। সেটাও পানিবাহিত রোগ। ঢাকার নদীগুলোর পানিতে অসহনীয়ভাবে বেড়ে চলছে করোনার জীবাণু। পানিবাহিত রোগ টাইফয়েডকে এক সময় ভয় করতে হতো জমের মতো। সামনে পানিবাহিত অন্য কোনো কঠিন রোগ আসবে না তার কি কোনো গ্যারান্টি আছে? আমাদের বোধোদয় হতে সময় কতটুকু ক্ষেপণ করতে হবে?

পানিকে বাঁচানোর জন্য কাজ করবেন নাকি পানিকে সংরক্ষণের ব্যবস্থা করবেন এই দুই চিন্তার মাঝে পড়েই এক সময় বিলুপ্ত হতে পারে জনপদ। পানি দূষণ ও অপচয় বন্ধ করতে হবে। আগামী দিনের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হলে পানির এমন অবস্থা দেখে বসে থাকলে হবে না। কার সদিচ্ছা আছে কার নেই তার চেয়েও জানার দরকার কে কতটা সঠিকভাবে কাজটি করতে পারবে। সরকারের এখনই উচিত এ বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে ভেবে কাজ করা।

[ছবিটি তোলা হয়েছে লবলং খালের গড়গড়িয়া মাস্টারবাড়ির ময়লার ভাগাড়ের উত্তর পাশ হতে।]

লেখক: কলামিস্ট

ঢাকাটাইমস/২৫নভেম্বর/এসকেএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

পাঠকের অভিমত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :