ভূরাজনৈতিক অস্থিরতা উদ্ভাবনায় বিনিয়োগ ঝুঁকি তৈরি করছে: জাতিসংঘ

ঢাকা টাইমস ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:১২

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেও উন্নয়নশীল দেশগুলিতে উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধির পাশাপাশি উদ্ভাবনের জন্য তহবিল বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। তবে তারা বলেছে, বর্তমান ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতা উদ্ভাবনায় বিনিয়োগ অগ্রগতির জন্য হুমকি হয়ে উঠছে।

জাতিসংঘের বিশ্ব মেধাস্বত্ব সংস্থার (ডব্লিউআইপিও) এক নতুন গবেষণা প্রতিবেদনে একথা বলা হয়েছে। গবেষণা ও উন্নয়ন ব্যয় এবং অন্যান্য বিনিয়োগ যা অব্যাহত উদ্ভাবনী কার্যক্রম পরিচালনা করে বিক্ষিপ্ত মহামারী সত্ত্বেও গত বছর প্রবৃদ্ধি বজায় রেখেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

ডব্লিউআইপিও প্রধান ড্যারেন ট্যাং সাংবাদিকদের বলেছেন, এটি আমরা যা আশা করেছিলাম তার বিপরীত। পূর্ববর্তী মন্দার সময় উদ্ভাবন ব্যয় হ্রাস পেয়েছে। কিন্তু বিশ্বব্যাপী মহামারির স্বাস্থ্য সঙ্কট সম্পূর্ণ নতুন এলাকায় উদ্ভাবন ব্যয়ের উত্থান ঘটায় এবং এমন অঞ্চলে যেগুলি সাধারণত এই ধরনের বিনিয়োগের একটি বড় অংশ সাধারণত পায় না।

ডব্লিউআইপিও বলছে, শীর্ষ কর্পোরেট ব্যয়কারীদের গবেষণা এবং উন্নয়ন বিনিয়োগ ২০২১ সালে প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে ৯শ বিলিয়ন ছাড়িয়ে যায়। এটি মহামারী শুরু আগের সময়ের চেয়ে বেশি। এসব বিনিয়োগ বেশিরভাগ ফার্মাসিউটিক্যালস, জৈব প্রযুক্তি এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে হয়েছে।

গত বছর ভেঞ্চার ক্যাপিটাল (ভিসি) লেনদেন প্রায় ৫০ শতাংশ ফেঁপে উঠেছে। নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে ইন্টারনেট বুম বছরের তুলনায় রেকর্ডিং মাত্রায় বেশি। লাতিন আমেরিকা, ক্যারিবিয়ান এবং আফ্রিকান অঞ্চলে সর্বাধিক বৃদ্ধি দেখা গেছে।

ডব্লিউআপিও সতর্ক করেছে, উদ্ভাবনী কার্যক্রমের তহবিল বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে সাধারণত যে উৎপাদনশীলতা অনুসরণ করা হয় তা স্থবির হয়ে পড়েছে বলে মনে হচ্ছে।

ডব্লিউআইপিও প্রধান বলেন, ‘বৈশ্বিক উদ্ভাবন অর্থনীতি এই বছর একটি মোড়ের মধ্যে আছে। যদিও ২০২০ এবং ২০২১ সালে উদ্ভাবন বিনিয়োগ বেড়েছে, ২০২২ সালের দৃষ্টিভঙ্গি কেবল বিশ্বব্যাপী অনিশ্চয়তার কারণে নয় বরং উদ্ভাবন-চালিত উৎপাদনশীলতার ক্রমাবনতিতে ঘটছে।

ডব্লিউআইপিওর উদ্ভাবনী দেশগুলির বার্ষিক র‌্যাংকিংয়ে সুইজারল্যান্ড ১২তম বছরের জন্য তালিকার শীর্ষে রয়েছে। সপ্তম অবস্থানে সিঙ্গাপুর বাদে শীর্ষ ১০টি দেশই পশ্চিমা বিশ্বের। কিন্তু চীন দ্রুতগতিতে এগিয়ে গত বছর ১২তম থেকে ১১তম স্থানে পৌঁছেছে এবং এক দশক আগে ৩৪তম অবস্থানে ছিল। ভারত এবং তুরস্ক উভয়ই র‌্যাংকিংয়ে উল্লেখযোগ্যভাবে অগ্রগতি অর্জন করেছে। উভয় দেশ প্রথমবারের মতো শীর্ষ ৪০-এ উঠেছে।

এশিয়ার ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান; আফ্রিকার কেনিয়া; দক্ষিণ আমেরিকার ব্রাজিল এবং জ্যামাইকাসহ বেশ কয়েকটি উন্নয়নশীল দেশ কীভাবে তাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্তরের সঙ্গে সম্পর্কিত উদ্ভাবন সূচকে প্রত্যাশিত অবস্থানে ঊর্ধ্বে কাজ করেছে তাও তুলে ধরেছে ডব্লিউআইপিওর প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

(ঢাকাটাইমস/২৯সেপ্টেম্বর/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

খসড়া প্রস্তুত, মন্ত্রিসভায় যুক্ত হচ্ছেন নতুন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী

সরেজমিন শ্যামবাজার: রোজার ১১ দিন আগেই অস্বাভাবিক বাজার

বাংলাদেশ ও সৌদি আরব পরিবেশ রক্ষায় চুক্তি স্বাক্ষরে সম্মত

মানব স্বাস্থ্যের ওপর খোলা ভোজ্যতেলের ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি কর্মশালা

অফশোর ব্যাংকিং আইনের খসড়া অনুমোদন, বিনিয়োগ ও রিজার্ভ বাড়ার আশা

কোনো একটা জিনিস না খেলে রোজা হবে না এই মানসিকতা পাল্টাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

ঐতিহাসিক রাংকুট বনাশ্রম পরিদর্শন করে মুগ্ধ কূটনীতিকরা

চিকিৎসক ও রোগীদের প্রতি আমার সমান দায়িত্ব: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

খেজুর এনবিআরের বিলাসী পণ্য, শুল্ক প্রায় ১০০ শতাংশ!

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :