চীনের হুমকি ঠেকাতে ‘দূর পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র কিনছে অস্ট্রেলিয়া’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৪ এপ্রিল ২০২৩, ১৭:০৪

চীনের ক্রমবর্ধমান হুমকি মোকাবেলায় দূর পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র কিনছে অস্ট্রেলিয়া। একটি প্রধান প্রতিরক্ষা পর্যালোচনায় সম্প্রতি এমনটাই দাবি করা হয়েছে। খবর বিবিসির।

প্রতিরক্ষা পর্যালোচনায় সতর্ক করে বলা হয়েছে, দেশটিকে ‘মিসাইল যুগে’ ভৌগলিক বিচ্ছিন্নতার মাধ্যমে আর সুরক্ষিত রাখা যাবে না। প্রতিবেদনে যে সুপারিশ করা হয়েছে তা অনুসরণ করে প্রতিরক্ষা খাতে অবিলম্বে সরকার ১২ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করবে।

১১০পৃষ্ঠার গবেষণাটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর অস্ট্রেলিয়ান প্রতিরক্ষার সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। প্রতিরক্ষা কৌশলগত পর্যালোচনা (ডিএসআর) তাইওয়ানের প্রতি চীনের অবস্থান নিয়ে ক্রমবর্ধমান আঞ্চলিক উত্তেজনার মধ্যে এসেছে, যা প্রয়োজনে জোর করে নিয়ন্ত্রণে রাখার প্রতিশ্রুতি দেশটি দিয়েছে।

চীনের নৌবাহিনীও দক্ষিণ চীন সাগরে একটি বড় উপস্থিতি প্রতিষ্ঠা করেছে যা আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থী। এর কিছু অংশকে তার নিজস্ব এলাকা বলে দাবি করেছে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর থেকে চীনের সামরিক গঠন এখন সবচেয়ে বড় এবং সবচেয়ে উচ্চাভিলাষী। চীনের কৌশলগত অভিপ্রায়ের ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে স্বচ্ছতা বা আশ্বাস ছাড়াই এই বিল্ড আপ ঘটছে।’

প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি আলবানিজ বলেছেন, ‘পর্যালোচনাটি আমাদের রূপ দেওয়ার জন্য ভবিষ্যতের জন্য অপেক্ষা করার পরিবর্তে ভবিষ্যতের রূপ দেবে এবং এর সুপারিশগুলো অস্ট্রেলিয়াকে আরও আত্মনির্ভরশীল, আরও প্রস্তুত এবং আরও নিরাপদ করে তুলবে।’

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রিচার্ড মার্লেস বলেছেন, এটি সুপারিশ করে যে অস্ট্রেলিয়ার সশস্ত্র বাহিনী স্থল-ভিত্তিক বর্ম থেকে ‘অস্ট্রেলিয়ায় তৈরি যুদ্ধাস্ত্রসহ দীর্ঘ পাল্লার আক্রমণের সক্ষমতার দিকে মনোনিবেশ করবে।’

মার্লেস সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের এমন একটি প্রতিরক্ষা বাহিনী থাকা দরকার যা প্রভাবমূলক অভিক্ষেপে নিয়োজিত হওয়ার ক্ষমতা রাখে।’

মন্ত্রী বলেছিলেন ৫০০ কিলোমিটারের বেশি রেঞ্জসহ ‘নির্ভুল হামলায় সক্ষম মিসাইল’ অর্জন সেনাবাহিনীকে ‘ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় অগ্নিশক্তি এবং গতিশীলতা’ দেবে।

২০২২ সালের একটি থিঙ্ক ট্যাঙ্ক রিপোর্ট অস্ট্রেলিয়ার সামরিক বাহিনীর জন্য ‘সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি’ সম্পর্কে সতর্ক করেছে যেখানে চীন তাইওয়ানের বিরুদ্ধে সম্ভাব্য যুদ্ধের সময় নিকটবর্তী অঞ্চলের অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল।

অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এএসপিআই) এর বিশ্লেষক ড. ম্যালকম ডেভিস বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ার নতুন প্রতিরক্ষা ভঙ্গির লক্ষ্য ছিল চীনের মতো একটি বড় শক্তির প্রতিপক্ষকে যতটা সম্ভব দূরে রাখা। আমরা যা করার চেষ্টা করছি তা হল তাইওয়ান বা দক্ষিণ চীন সাগরে তার নীতির উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য চীনকে শক্তি প্রয়োগ করা থেকে বিরত রাখা। তাই এটি প্রতিরোধের বিষয়। তবে অবশ্যই প্রতিরোধ ব্যর্থ হতে পারে, যেমন আমরা ইউক্রেনের সঙ্গে দেখেছি, তাই আপনাকে প্রতিক্রিয়া জানাতে প্রস্তুত থাকতে হবে। আমরা যা বিনিয়োগ করছি তা নাটকীয়ভাবে আমাদের যুদ্ধের পরিধি প্রসারিত করবে।’

তবে তিনি যোগ করেছেন পর্যালোচনাটি ‘সঠিক দিকের একটি পদক্ষেপ’ হলেও এটি সম্পূর্ণ সমাধান ছিল না।

(ঢাকাটাইমস/২৪এপ্রিল/এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

ইরানের হাতে রাশিয়ার এসইউ-৩৫ যুদ্ধবিমান ও এস-৪০০ আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা!

নেসলের বেবিফুডে অতিরিক্ত চিনি  

ইসরায়েল আত্মরক্ষার জন্য সবকিছু করবে: নেতানিয়াহু 

মধ্যপ্রাচ্যে বৈরী আবহাওয়া: আকস্মিক বন্যার পেছনে আছে কৃত্রিম বৃষ্টিপাতেরও ভূমিকা

তিন হিজবুল্লাহ যোদ্ধাকে হত্যার দাবি ইসরাইলি সেনাবাহিনীর, পাল্টা হামলা হিজবুল্লার

শিগগির পাকিস্তান সফরে যাচ্ছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট

ইউক্রেন যুদ্ধে ৫০ হাজারের বেশি রুশ সেনা নিহত

মৃত্যুদণ্ড থেকে বাঁচাতে ৩৪ কোটি রুপির তহবিল

মোদিকে নির্বাচনে নিষিদ্ধ করার দাবিতে দিল্লি হাইকোর্টে মামলা

ইসরায়েলে ইরানি হামলার জন্য দায়ী নেতানিয়াহু: এরদোয়ান

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :