ড. কুদরত-ই-হুদা ঢাকা বিভাগের কলেজ পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ৩১ মে ২০২৩, ১০:২৩ | প্রকাশিত : ৩০ মে ২০২৩, ১৩:৩১

ঢাকা বিভাগের কলেজ পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন ড. কুদরত-ই-হুদা। তিনি বর্তমানে মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক।

জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২৩ উপলক্ষে রাজধানীর রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজে দুদিনব্যাপী এক অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়। অনুষ্ঠানের শেষ দিনে সোমবার কলেজ পর্যায়ে ঢাকা বিভাগের শ্রেষ্ঠ শিক্ষকের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এতে এ বছর শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হন ড. কুদরত-ই-হুদা। তাঁকে এ পর্যায়ে আসতে এর আগে কলেজ পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক ক্যাটাগরিতে উপজেলা ও জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়ে আসতে হয়েছে।

কলেজে অধ্যাপনার পাশাপাশি কুদরত-ই-হুদা প্রাবন্ধিক ও গবেষক হিসেবেও পরিচিত। বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে তিনি নিয়মিত শিল্পসাহিত্য, ইতিহাস ও চিন্তামূলক লেখালেখি করে থাকেন। কুদরত-ই-হুদা ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার কামারগ্রামের আলফাডাঙ্গা আদর্শ কলেজের গভর্নিং বডির সদস্য হিসেবেও ভূমিকা রাখছেন।

গবেষণায় বিশেষ অবদানের জন্য কুদরত-ই-হুদা মহাকবি মধুসূদন পদক ২০২৩ পেয়েছেন। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এমন একজন শিক্ষক ও গবেষককে ঢাকা বিভাগের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক মনোনীত করায় শিক্ষার পাশাপাশি গবেষণাকে আরো উৎসাহিত করবে। ছাত্রছাত্রীরা গুণগত শিক্ষা পাবে।

এ বিষয়ে ঢাকা টাইমসকে এক প্রতিক্রিয়ায় কুদরত-ই-হুদা বলেন, ‘আমার পিতা শিক্ষক ও কবি ছিলেন। আমিও শিক্ষক ও গবেষক হয়েছি। শিক্ষকতা ও গবেষণা আমার কাছে যতটা না পেশা তার চেয়ে বেশি নেশা। শিক্ষকতা ও গবেষণা আমাকে করতেই হয়। কোনো পদক বা পুরস্কারপ্রাপ্তির আশায় করি না। এটা আমার প্রিয় নিয়তির মতো।’

ঢাকা বিভাগে কলেজ পর্যায়ে তাকে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত করায় এ নির্বাচনের সঙ্গে যুক্ত সবাইকে ধন্যবাদ জানান কুদরত-ই-হুদা। বলেন, ‘বিচারকরা আমার মধ্যে এই ধারণা তৈরি করতে পেরেছেন যে, সবকিছু নষ্টদের অধিকারে যায়নি।’

কুদরত-ই-হুদার বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য গ্রন্থও রয়েছে। এর মধ্যে আছে বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত ‘জাতীয়তাবাদী চিন্তার বিকাশ: বাংলাদেশের ষাটের দশকের কবিতা’; প্রথমা প্রকাশন থেকে প্রকাশিত ‘জসীমউদ্দীন’ এবং আদর্শ প্রকাশনা থেকে ‘শওকত ওসমান ও সত্যেন সেনের উপন্যাস: আঙ্গিক বিচার’।

এছাড়া কুদরত-ই-হুদা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের নবম-দশম শ্রেণির বাংলা দ্বিতীয়পত্র গ্রন্থেরও রচয়িতা (যৌথভাবে)। এশিয়াটিক সোসাইটি পত্রিকা, বাংলা একাডেমি পত্রিকা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পত্রিকাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালে তাঁর প্রকাশিত গবেষণা-আর্টিকেলের সংখ্যা বিশের অধিক।

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার টগরবন্দ ইউনিয়নের ব্যাংকেরচর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন কুদরত-ই-হুদা। পিতা কবিরত্ন এম এ হক। মাতা মহুয়া হক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে স্নাতক, স্নাতকোত্তর, এমফিল ও পিএইচডি ডিগ্রিধারী কুদরত-ই-হুদা ব্যক্তিজীবনে দুই কন্যা সন্তানের জনক। তাঁর স্ত্রী তানজিন জাহান পেশায় চিকিৎসক।

(ঢাকাটাইমস/৩০মে/এমআই/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিক্ষা এর সর্বশেষ

ঘূর্ণিঝড় নিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে ভুয়া বিজ্ঞপ্তি

আপিলেও বহাল ভিকারুননিসার ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাসে অনার্স কোর্স বন্ধের নির্দেশ মন্ত্রণালয়ের

‘প্রত্যয়’ স্কিমে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ‘না’

ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে জবি অধ্যাপকের মৃত্যু 

ঘূর্ণিঝড়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি মন্ত্রণালয়ের যে নির্দেশনা

ইবিতে ছয় কোটি টাকার অনিয়ম: জড়িতদের শাস্তি নির্ধারণ করতে কমিটি গঠন

‘প্রত্যয়’ স্কিম বাতিলের দাবিতে ঢাবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

এ কিউ এম মহিউদ্দিন বৃত্তি পেলেন ঢাবির ভূগোলের ৮ শিক্ষার্থী

ঢাবিতে ক্যানসার সচেতনতায় সিম্পোজিয়াম, অক্সফোর্ড অধ্যাপকের প্রবন্ধ উপস্থাপন

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :