প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দের ঘরে তড়িঘড়ি, ইউএনওর তদারকিতেও মানা হয়নি নকশা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৫ জুন ২০২৩, ১৬:৩৫ | প্রকাশিত : ০৫ জুন ২০২৩, ১৬:০৭

কুড়িগ্রামের চিলমারীতে নকশা বর্হিভূতভাবে তড়িঘড়ি করে নির্মাণ করা হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দের হরিজন পল্লী। অভিযোগ ওঠেছে ভূমিহীন ও গৃহহীন হরিজন সম্প্রদায়ের আশ্রয়ণ প্রকল্পে নিম্নমানের খোয়া ও নকশা বহির্ভূতভাবে ঘর নির্মাণ হচ্ছে। উপজেলা প্রশাসনের তদারকিতে কাজটি চলমান রয়েছে বলে জানা গেছে। আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প’র আওতায় উপজেলার থানাহাট ইউনিয়নের মৌজা থানা এলাকায় ৩০টি পরিবারের জন্য হরিজন পল্লী গড়ে তোলা হচ্ছে।

ঘর নির্মাণের কাজে নি¤œমানের খোয়া ও নকশা বর্হিভূত কাজের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পাওয়া যায়। এসময় দেখা যায়, ১০টি ঘর নকশা বর্হিভূতভাবে ১৫ ইঞ্চি গাঁথুনি দেয়ার কথা থাকলেও তা দেয়া হয়নি। তবে বাকি ২০টি ঘরে গাঁথুনি দেয়া হয়েছে। এদিকে ঘরের প্রাথমিক ভিত্তি হিসেবে সিসি ঢালাই ৩ ইঞ্চি দেয়ার কথা থাকলেও সেটিও দেড় থেকে ২ ইঞ্চির বেশি দেয়া হয়নি।

দায়িত্বরত রাজমিস্ত্রি শ্রী খিতিশ চন্দ্র অনিয়মের কথা স্বীকার করে বলেন, নকশা টা দেখতে ও বুঝতে ভূল হওয়ায় প্রথম ১০টি ঘরের ১৫ ইঞ্চির গাঁথুনি দেয়া হয়নি এবং ভিত্তির সিসি ঢালাই মাপের চেয়ে কম আছে। কিন্তু পরবর্তী বাকি ঘরগুলোতে নকশা অনুযায়ী করা হচ্ছে। নিম্নমানের খোয়া দিয়ে ঘর নির্মাণের অভিযোগটি সঠিক নয় বলে দাবি করে তিনি বলেন, সব খোয়া খারাপ নয়, মাঝে মাঝে দু’এক গাড়ি খারাপ খোয়া থাকলেও বেশির ভাগই ভালো খোয়া ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে, তিনি মুল দায়িত্বে থাকলেও হারুন নামে অপরএকজন মিস্ত্রি ঘরের কাজ গুলো করছেন বলে জানান তিনি।

হারুন নামে ওই মিস্ত্রির সাথে কথা হলে তিনি বলেন, প্রথমে এস্টিমেট বুঝার ভুলের কারণে দশটি ঘরে ১৫ ইঞ্চির গাঁথুনি দেয়া হয়নি। তবে এটার কারণে ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

ইউএনও অফিস সূত্র বলছে, আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প’র আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীন হরিজন সম্প্রদায়ের ৩০টি ঘরের প্রত্যেকটি ঘর নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৮৪হাজার ৫’শ টাকা। এতে ৩০টি ঘর নির্মাণে মোট ব্যয় হবে ৮৫লাখ ৩৫হাজার টাকা। আবাসন প্রকল্পটি ১০০ শতাংশ জমির ওপর গড়ে তোলা হচ্ছে। পল্লীটিতে ১০ ফুট প্রশস্ত রাস্তা ও মুল সড়কের সাথে একটি সংযোগ সড়কেরও ব্যবস্থা করে দেয়া হবে। এছাড়াও ১০ শতাংশ জমি শিশুদের খেলার জন্য, ৫ শতাংশ জমিতে কমিউনিটি সেন্টার, ৮শতাংশ জমিতে শ্মশান গড়ে তোলা হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হরিজন সম্প্রদায়ের ঘর নির্মাণে ৭০ থেকে ৮০হাজার টাকা শতাংশের ফসলি জমি শতক প্রতি ১লাখ ২০হাজার টাকা দরে জমি অধিগ্রহণ করে ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, এবিষয়ে আমাদের কোনো বক্তব্য নেই। আমাদের কাজ শতভাগ সঠিক ভাবে হচ্ছে।

(ঢাকাটাইমস/৫জুন/এআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ এর সর্বশেষ

উপজেলা নির্বাচন: টাঙ্গাইলে তৃতীয় ধাপেও ভোটের খরা

ফরিদপুরে দুই উপজেলায় শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ চলছে

বগুড়া সদ‌রে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান ভোট স্থগিত

কিশোরগঞ্জের চার উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে

সিদ্ধিরগঞ্জে অজ্ঞাত গাড়ির সঙ্গে ধাক্কায় ট্রাকের হেলপার নিহত

কুমিল্লার চার উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে, ভোটার উপস্থিতি কেমন?

ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব, ৩৯টি মৃত হরিণ উদ্ধার

ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব, ভোগান্তিতে উপকূলবাসী, পৌঁছায়নি সরকারি ত্রাণ সহায়তা

শক্তি হারিয়ে ঘূর্ণিঝড় রেমালের কিছু অংশ সিলেটে বাকিটা আসামে

অবৈধ সম্পদ অর্জন: সস্ত্রীক পুলিশ পরিদর্শকের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :