মোহাম্মদপুর-ধানমন্ডিতে কিশোর গ্যাং

দিনে নিম্নআয়ের বিভিন্ন পেশায়, রাতে ভয়ঙ্কর তারা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৪ মার্চ ২০২৪, ১৯:৫১

রাজধানীর মোহাম্মাদপুর ও ধানমন্ডি এলাকায় পাঁচ 'কিশোর গ্যাং' গ্রুপের ২৫ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। চাঁদাবাজি ও বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

শনিবার রাতে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

দিনে নিম্নআয়ের বিভিন্ন পেশায় জড়িত থাকলেও রাতে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠত তারা। দেশীয় অস্ত্রের মুখে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে লুটে নিতো নগদ টাকা, মূল্যবান জিনিসপত্র।

রবিবার এ তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাব-২ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি আনোয়ার হোসেন খান।

তিনি জানান, মোহাম্মদপুর ও ধানমন্ডি এলাকায় বেশ কয়েকটি ‘কিশোর গ্যাং’ গ্রুপের সদস্যরা চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাচ্ছিলো। তাদের হামলা ও ছিনতাইয়ের অভিযোগে বিভিন্ন থানায় একাধিক সাধারণ ডায়েরি ও মামলা হয়।

এসব গ্যাংয়ের সদস্যরা নিজেদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করতে এক গ্রুপ অপর গ্রুপের সঙ্গে সংঘাত, মারামারি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে জখম করত। সম্প্রতি মোহাম্মদপুর ও ধানমন্ডির আশপাশের এলাকায় বেশ কয়েকটি চাঁদাবাজি ও অন্যান্য সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড সম্পর্কে তথ্য পায় র‌্যাব। এতে টহল ও গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়। ২৩ মার্চ রাতে একাধিক অভিযানে মোহাম্মদপুর ও ধানমন্ডি এলাকা থেকে ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত অভিযোগে কিশোর গ্যাংয়ের ২৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব-২-এর অধিনায়ক আরও জানান, গ্রেপ্তার সবাই কিশোর গ্যাং 'আক্তার গ্রুপ', 'মাসুম গ্যাং', 'পিনিক গ্রুপ', 'বাপ্পী গ্রুপ' ও 'লিমন গ্রুপ'এর সদস্য। অভিযানে তাদের কাছ থেকে দেশীয় অস্ত্র যেমন চাপাতি, ছুরি, চাকু, চাইনিজ কুড়াল, এন্টি কাটার উদ্ধার করা হয়েছে।

যেসব অপকর্মে গ্যাং সদস্যরা

র‌্যাব বলছে, গ্রেপ্তারের পর অভিযুক্তরা জানিয়েছে, তারা মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধ, আদাবর, ঢাকা উদ্যান ও ধানামন্ডি এলাকায় চাঁদাবাজি ও অন্যান্য সন্ত্রাসী কার্যক্রম করত।

এসব গ্রুপের সন্ত্রাসীরা একাকি পথচারীদের আকস্মিকভাবে ঘিরে ধরে চাপাতিসহ ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক অর্থ ও মূল্যবান সামগ্রী ছিনতাই করে দ্রুত পালিয়ে যায়। তারা বিভিন্ন সময় চাঁদাবাজিসহ আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ঢাকা উদ্যান, বেড়িবাঁধ, আদাবর, মোহাম্মদপুরসহ এর আশপাশের এলাকায় দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে মারামারিসহ বিভিন্ন কার্যক্রম চালাতো।

অভিযানে যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা দিনের বেলায় গাড়ির চালক, হেলপার, দোকানের কর্মচারী, নির্মাণ শ্রমিক, পুরাতন মালামাল ক্রেতা, সবজি বিক্রির পেশায় জড়িত। রাত হলেই ছিনতাই ও চাঁদাবাজিতে নেমে পড়ত। গ্রেপ্তার সবার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় মাদক, ছিনতাই ও মারামারি সংক্রান্ত মামলা রয়েছে। কারাগার থেকে বেরিয়ে তারা একই পেশায় জড়িয়ে পড়েছে।

এদিকে র‌্যাব-২-এর সহকারী পরিচালক শিহা করিম জানিয়েছেন, অভিযুক্তদের বিভিন্ন হস্তান্তর এবং মামলা দেওয়া হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/২৪মার্চ/এসএস/এআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

রামপুরায় অবরোধ ছেড়ে দিলো রিকশাচালকরা, যানচলাচল স্বাভাবিক

সৌদি আরব গেছেন ৩০ হাজার ৮১০ হজযাত্রী 

রাজধানীতে ৩৮ কোটি টাকার পশুর হাট

পাঁচ অঞ্চলে সর্বোচ্চ ৮০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়ার আশঙ্কা, নদীবন্দরে ২ নম্বর হুঁশিয়ারি

১৫৭ উপজেলায় দুই লক্ষ আনসার-ভিডিপি সদস্য মোতায়েন

মধ্যরাত থেকে সমুদ্রে মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা

উপজেলা নির্বাচন: মাঠে নেমেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, কার কী দায়িত্ব

ভারতে গিয়ে নিখোঁজ এমপি আনোয়ারুল, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন ‘উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই’

এসএমসি প্লাস ও রিচার্জের সব ড্রিংকস বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ

সমন্বয় সভায় কর্মকর্তাদের বিশেষ দিক-নির্দেশনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :