ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শেষে শিল্পমন্ত্রী

চামড়াশিল্পে সংকট নেই, মৌসুমি ব্যবসায়ীরা মিসগাইড করেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
| আপডেট : ১৮ আগস্ট ২০১৯, ২১:৫৬ | প্রকাশিত : ১৮ আগস্ট ২০১৯, ২১:৪১

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়নবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, এবারের কোরবানির ঈদে ১০ হাজার চামড়া নষ্ট হয়েছে। এক কোটি চমড়ার মধ্যে ১০ হাজার নষ্ট হওয়াকে নগণ্য হিসেবে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

একই সঙ্গে মন্ত্রী বলেন, এবার কোরবানির ঈদে চামড়া সংকট নিয়ে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা গণমাধ্যমকে মিসগাইড করেছে। কিছু ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দুরভিসন্ধিও দেখছেন বলে জানান তিনি। 

আজ রবিবার বিকালে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সরকার, ট্যানারি মালিক, আড়তদার ও কাঁচা চামড়া সংশ্লিষ্টদের ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মন্ত্রী।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘একটি দেশ যখন সম্ভাবনার দিকে আগায়, তা ব্যাহত করতে একটা চক্র কাজ করে। বিভিন্ন জেলা থেকে আগত প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, এক কোটি চামড়ার মধ্যে প্রতি বছর শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ চামড়া নষ্ট হয়। এবার যেহেতু গরম পড়েছে, সেজন্যই ১০ হাজার পিস চামড়া নষ্ট হতে পারে।’

চামড়াশিল্পে কোনো সমস্যা নেই। এবারের চামড়া সংকট নিয়ে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা গণমাধ্যমকে মিসগাইড করেছে বলেও মনে করেন মন্ত্রী। বলেন, মৌসুমি ব্যবসায়ীরা এ ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ত নন। তারা না বুঝে পুঁজি হারালে তাদের মাথা নষ্ট হয়। এ ধরনের ব্যবসায়ীরাই মিডিয়াকে মিসগাইড করেছেন।’
নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, ‘কিছু রাজনৈতিক উদ্দেশ্য এখানে (চামড়া সংকট) কাজ করেছে বলে জেলা থেকে যারা এসেছেন তারা জানিয়েছেন। এগুলো আমরা গুরুত্ব দিই না। আমরা এ বিষয়ে সচেতন। এখন চামড়া পুড়িয়ে ছবি দিলে আমাদের কিছু করার নেই।’
চামড়ার বিষয়ে নীতিমালা হচ্ছে, আজকের বৈঠকে বিষয়টির সমাধান হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আগামী ২২ তারিখ তারা বসে সিদ্ধান্ত নেবে। এটা গতানুগতিক, এখানে তেমন কোনো সমস্যা নেই। আজকেই সব সমাধান হয়েছে। চামড়া তেমন ওয়েস্টেজ নেই। চামড়া কেনা ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে।’
চামড়া রপ্তানির বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এটা কাঁচামাল। রপ্তানি করা একটা প্রক্রিয়ার ব্যাপার। আমরা প্রয়োজন মনে করলে রপ্তানি করব। রপ্তানি করব নাকি করব না সে সিদ্ধান্ত নেব অবস্থা বুঝে।’

বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (বিএইচএসএমএ) সভাপতি দেলোয়ার হোসেন বলেন, সমস্যা সমাধানে এফবিসিসিআইকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা দুই পক্ষের সঙ্গে বসে সমাধান করবে।

ওখানে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়নবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। তিনি  বলেন, কোরবানিতে এক কোটি চামড়া হয়। এবার তার মধ্যে ১০ হাজার চামড়া নষ্ট হয়েছে, মাটিতে (মাটিতে পুঁতা) যে চামড়া গেছে তাসহ। প্রতি বছর কিন্তু পাঁচ হাজার চামড়া এমনি নষ্ট হয়। এবার মূলত বেশি গরমের জন্যই চামড়া বেশি নষ্ট হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/১৮আগস্ট/মোআ)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :