প্রকল্পের পণ্যের দাম নির্ধারণে সতর্ক হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৬:০৪ | প্রকাশিত : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:১৬

সরকারি প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কেনাকাটায় পণ্যের দাম নির্ধারণে সতর্ক হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সম্প্রতি বিভিন্ন প্রকল্পের পণ্য কেনায় অস্বাভাবিক মূল্য নির্ধারণ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার পর মঙ্গলবার এমন নির্দেশনা এলো সরকার প্রধানের কাছ থেকে।

আজ সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলনকক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভা হয়। সভায় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান।

আজকের সভায় প্রায় ৮ হাজার ৯৬৮ কোটি ৮ লাখ টাকা ব্যয় সংবলিত আটটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সভাশেষে পরিকল্পনামন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, প্রকল্পে বিভিন্ন পণ্যের অস্বাভাবিক দামের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরে আনেন তিনি। তখন প্রধানমন্ত্রী পণ্যের দাম নির্ধারণে আরও সতর্ক হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন আইটেম থাকে, পণ্যের দাম থাকে, সেগুলোর দাম আরও সাবধানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হবে। তাড়াহুড়া করে, দ্রুত কাজ করতে গিয়ে সেগুলো ভালোভাবে খতিয়ে দেখতে পারি না। সেগুলোর মূল্য ভালোভাবে খতিয়ে দেখতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা অহেতুক প্রশ্নের মুখোমুখি হতে চাই না। আমরা পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবদের পণ্যের মূল্য নির্ধারণে সাবধান হতে নির্দেশনা দিয়েছি। প্রকল্পের যেকোনো পণ্যের দাম নির্ধারণের ক্ষেত্রে বাজার যাচাই করে দাম নির্ধারণ করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী আরো নির্দেশ দিয়েছেন, রাস্তাঘাট প্রশস্ত করার ক্ষেত্রে রাস্তার পাশে গরিব মানুষের বাড়ি, জমি রক্ষা করতে হবে। একেবারেই না পারা গেলে যথাসময়ে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। আশ্রয়ন প্রকল্পে বাস্তবায়নের সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে সেখানে পুকুর বা জলাশয় সুপেয় খাবার পানি ও প্রচুর গাছ খেলার মাঠ ইত্যাদির ব্যবস্থা থাকে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘কক্সবাজার বিমান বন্দরকে অন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন বিমান বন্দর করা হবে। কারণ এটা পর্যটনসহ আন্তর্জাতিক বিমান রুটের কৌশলগত অবস্থায় রয়েছে।’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ঝাড়খণ্ড থেকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণ করা হবে, সেটি দিয়ে শুধু আমদানিই নয়, ভবিষ্যতে হয়তো আমরা রফতানিও করতে পারব। প্রকল্প তদারকি করতে আইএমইডিকে শক্তিশালী করতেও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) প্রায় আট হাজার ৯৬৮ কোটি আট লাখ টাকা ব্যয়সম্বলিত আটটি প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে। এর মধ্যে সরকার দেবে প্রায় আট হাজার ৯৫২ কোটি ৫৯ লাখ এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ১৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

অনুমোদিত প্রকল্পসমূহ হলো: সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দুটি প্রকল্প যথাক্রমে ময়মনসিংহ (রঘুরামপুর)-ফুলপুর-নকলা-শেরপুর (আর-৩৭১) আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন, রাজশাহী-নওহাটা-চৌমাসিয়া সড়কের বিন্দুর মোড় হতে বিমান বন্দর হয়ে নওহাটা ব্রিজ পর্যন্ত পেভমেন্ট ৪-লেনে উন্নীতকরণ, রাজশাহী মহানগরীর উপশহর মোড় হতে সোনাদিঘী মোড় এবং মালোপাড়া মোড় হতে সাগরপাড়া মোড় পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ ও উন্নয়ন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের “আশ্রয়ণ-২ শীর্ষক” প্রকল্প, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের “জুনোসিস এবং আন্তঃসীমান্তীয় প্রাণিরোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ গবেষণা প্রকল্প, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের “স্ট্রেংদেনিং মনিটরিং এন্ড ইভালুয়েশন ক্যাপাবিলিটিজ অব আইএমইডি (এসএমইসিআই)” প্রকল্প, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের “ভারতের ঝাড়খন্ড হতে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ আমদানি করার লক্ষ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার রহনপুর থেকে মনাকষা সীমান্ত পর্যন্ত ৪০০ কেভি সঞ্চালন লাইন নির্মাণ এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের “বিভাগীয় শহরে সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসা কেন্দ্র স্থাপন” প্রকল্প।

 

ঢাকাটাইমস/১৭সেপ্টেম্বর/জোআর/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :