‘মরণের আগে শেষ ভোট দিয়ে গেলাম’

মফিজুর রহমান শিপন, ফরিদপুর
| আপডেট : ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:৪৬ | প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:৩৪

‘শরীরডা ভালা না। কয়দিন বাঁচি ঠিক নাই, তাই মরনের আগে শেষ ভোট দিয়ে গেলাম। আর হয়তো ভোট দিতে পারুম না, তাই মনের চাওয়া মিটাইলাম। বাবারে কথা কইতে কষ্ট হয়, তয় এহন যাই, ভালা থাইকো তুমরা, আমার লিগা দুয়া কইরো।’

কথাগুলো বলছিলেন ফরিদপুরের বোয়ালমারীর ১১০ বছরের বৃদ্ধা নবিরন নেছা।

বোয়ালমারী পৌরসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে শনিবার সকাল ৮টা থেকে। দুপুর পৌনে ১টার দিকে গুনবহা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নাতি হাসানকে ধরে ধরে ভোট দিতে আসেন গুনবহা পৌর এলাকার মৃত জলিল শেখের স্ত্রী বৃদ্ধা নবিরন নেছা। স্বামী জলিল শেখ মারা গেছেন দীর্ঘদিন আগে। বৃদ্ধার দুই ছেলেও বেঁচে নেই। নাতিই তার দেখাশোনা করেন।

ভোট দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে কথা হয় তার সঙ্গে। তিনি এখন চোখে কম দেখেন, কথাও তেমন বলতে পারেন না।

ভাঙা ভাঙা গলায় বৃদ্ধা নবিরন নেছা বলেন, ‘বহুতদিন ভোট দেইনি, ভোটের কথা হুনে মনটায় ভোট দিতে চাইল। তাই নাতিরে কইলাম আমারে লইয়া চল, ভোট দিমু আমি।’

কাকে ভোট দিলেন প্রশ্ন করলে তিনি মিষ্টি হেসে বলেন, ‘কমুনা, তয় যারে দিছি হেই পুলাডা ভালো, আমার কাছে গেছিল ভোট চাইতে, তাই হেরেই আমি ভোট দিছি। দুয়া করি হে যেন জিইতা যায়।’

নবিরন নেছার নাতি হাসান বলেন, ‘দাদির বয়স অনেক হয়ে গেছে। বেশি দিন বাঁচবে না। দাদির আশা, ভোট দেবেন। তাই তাকে ভোট দিতে নিয়ে এসেছি। তার মনের ইচ্ছা পূরণ করলাম। আমার দাদির জন্য দোয়া করবেন আপনারা।’

এদিকে, সকাল থেকেই কনকনে শীত আর কুয়াশা উপেক্ষা করে ভোটকেন্দ্রে নারী ভোটারদের উপচে পড়া ভীড় হয়। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটকেন্দ্রে ভোটারের সংখ্যা বাড়তে থাকে। বোয়ালমারী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ছোলনা মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুতাশি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গুনবহা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভোটারদের দীর্ঘলাইন দেখা গেছে। তবে প্রত্যেকটি কেন্দ্রেই নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

এ নির্বাচনে মেয়র পদে লড়ছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী পৌর আ. লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেলিম রেজা লিপন, বিএনপির প্রার্থী সাবেক মেয়র শুকুর শেখ, স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা কৃষকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা কৃষকলীগের (একাংশ) সাধারণ সম্পাদক লিটন মৃধা (জগ) । এছাড়া নয়টি ওয়ার্ডে ৩৪ জন সাধারণ কাউন্সিলর এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

নয়টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত ১১.৭ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের প্রথম শ্রেণির বোয়ালমারী পৌরসভার বর্তমান ভোটার সংখ্যা ২২ হাজার ২৯৭। যার মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ হাজার ৮৮৩ এবং মহিলা ভোটার ১১ হাজার ৩৯৬। নয়টি কেন্দ্রের ৬২টি ভোট কক্ষে ভোটগ্রহন হচ্ছে। নির্বাচন পরিচালনার জন্য নয়জন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা এবং ৬২জন পোলিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। প্রতিটি কেন্দ্রে একজন এসআই একজন এএসআই ও পাঁচজন কনস্টেবলসহ মোট সাতজন দায়িত্ব পালন করছেন। দুইজন কর্মকর্তা ও ১০ জন আনসার সদস্যও দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া পুলিশের দুটি টিম কাজ করছে। নির্বাচন উপলক্ষে দুই প্লাটুন (৪০জন) বিজিবি মোতায়েনও করা হয়েছে। কাজ করছেন র‌্যাবের চারটি টহলদলের ৩২ জন সদস্য।

এ নির্বাচনে নয়জন নির্বাহী হাকিম এবং একজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।

এ নির্বাচন বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সকাল থেকেই শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহন চলছে। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

(ঢাকাটাইমস/১৬জানুয়ারি/পিএল)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :