ইউক্রেন যুদ্ধে শীতকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে রাশিয়া: ন্যাটো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৫:৩৯

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে ইউক্রেনের জ্বালানি ও শক্তি অবকাঠামোতে দফায় দফায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে মস্কো। ফলে ইউক্রেন বর্তমানে জ্বালানি ও অন্যান্য অবকাঠামোতে রুশ হামলার ঠেকানোতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে। সোমবার এক সতর্ক বার্তায় রাজধানী থেকে নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে দেশটি।

অপরদিকে ন্যাটোর সেক্রেটারি জেনারেল জেনস স্টলটেনবার্গ জোর দিয়ে বলেছেন, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তার সুবিধার জন্য হিম, তুষার এবং বরফকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার অভিপ্রায়ে ছিলেন। শুধু যুদ্ধের ময়দানেই নয়, ইউক্রেনের বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধেও তিনি এটিকে ব্যবহার করছেন।

রোমানিয়ার বুখারেস্টে ন্যাটো পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের দুই দিনের বৈঠকের প্রাক্কালে তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট পুতিন এখন শীতকে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার চেষ্টা করছেন এবং এটি ভয়াবহ। আমাদের আরও হামলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। এ কারণেই ন্যাটোর মিত্ররা ইউক্রেনের প্রতি তাদের সমর্থন বাড়িয়েছে।’

এস্তোনিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছয়টি বাল্টিক এবং নর্ডিক দেশের প্রতিপক্ষের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। এটি মূলত রাশিয়া তার পূর্ণ-স্কেল যুদ্ধ শুরু করার পর থেকে ইউক্রেন সফর করার বৃহত্তম প্রতিনিধি দল। তারা মূলত বৈদ্যুতিক জেনারেটর, গরম কাপড় এবং খাবারের প্রতিশ্রুতি দিতেই এতে যোগ দিয়েছেন। তাদের প্রধান লক্ষ্য হল ইউক্রেনীয়দেরকে শীতলতম মাসে প্রয়োজনের সঙ্গে মোকাবিলা করতে এবং তাদের সংকল্পকে উচ্চ রাখতে সাহায্য করা।

এস্তোনিয়ান পররাষ্ট্রমন্ত্রী উরমাস রেইনসালু কিয়েভে বলেছেন, ‘রাশিয়া বেসামরিক শক্তির নিরাপত্তাকে অস্ত্র দিচ্ছে এবং এটি সত্যিই লজ্জাজনক।’

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি রবিবার গভীর রাতে সতর্ক করে বলেছেন, রুশ সেনারা নতুন হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে এবং যতক্ষণ তাদের কাছে ক্ষেপণাস্ত্র থাকবে ততক্ষণ তারা থামবে না।’

কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা নিয়ে আলোচনা করতে তিনি সোমবার ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তার ভবিষ্যদ্বাণী অনুসারে, আসন্ন সপ্তাহটি যতটা কঠিন হতে পারে ততটাই কঠিন হতে পারে।

রাশিয়া অক্টোবরের শুরু থেকে প্রায় সাপ্তাহিকভাবে ইউক্রেনের জ্বালানি অবকাঠামোতে ব্যাপক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাচ্ছে। প্রতিটি ব্যারাজের ক্ষতির কারণে শীত শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এর প্রভাব টের পাওয়া যাচ্ছে।

কিয়েভ বলেছে, রাশিয়া স্বীকার করেছে আক্রমণগুলি ইউক্রেনের অবকাঠামো লক্ষ্য করে এবং বেসামরিকদের ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। এটি তাদের যুদ্ধাপরাধে পরিণত করেছে। তবে মস্কো বেসামরিক নাগরিকদের আঘাত করার উদ্দেশ্য অস্বীকার করেছে। তারা গত সপ্তাহে বলেছে, ইউক্রেন রাশিয়ার দাবির প্রতি সমর্থন না জানালে তাদের দুর্ভোগ শেষ হবে না।

কিইভের মেয়র ভিটালি ক্লিটসকো বলেছেন, শহরের ৩০ লাখ লোকের মধ্যে কিছুকে সরিয়ে নিতে হতে পারে যেখানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার কারণে প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলি বন্ধ হওয়ার ঝুঁকি কম হবে।

(ঢাকাটাইমস/২৯নভেম্বর/ এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :