তালগোল পাকিয়ে ফেলছে ঢাকা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়

জাফর আহমেদ ও হাসান মেহেদী, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৮ নভেম্বর ২০২৩, ২৩:৫০

নিয়মানুযায়ী প্রতি আসনে সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলের মনোনীত প্রার্থী ওই দলের ব্যানারে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ থেকে মনোনয়নপত্র উত্তোলন ও জমা দিতে পারবেন। এ বিষয়টি নিশ্চিত করতে দলগুলোর কাছ থেকে মনোনয়ন প্রদানের ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির নাম ও স্বাক্ষর জমা নেওয়া হয় নির্বাচন কমিশনে (ইসি)। এত কিছুর পরেও তালগোল পাকিয়ে ফেলছে ঢাকা বিভাগীয় রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়। তাদের কাছ থেকে পাওয়া তালিকায় দেখা গেছে, একই আসনে মনোনয়নপত্র উত্তোলনকারী একাধিক ব্যক্তির নামের সামনে রাজনৈতিক দলের স্থানে ‘আওয়ামী লীগ’ লেখা রয়েছে। যা নিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পাওয়া নেতাদের মধ্যে অস্বস্তি দেখা দিয়েছে।

আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পাওয়া একাধিক নেতা ঢাকা টাইমসকে বলেন, প্রতি আসন থেকে আওয়ামী লীগ একজনকেই মনোনয়ন দিয়েছে। শুধুমাত্র মনোনয়নপ্রাপ্ত নেতার নামের সামনেই দলের নাম আওয়ামী লীগ লেখা থাকা উচিত। দলের মনোনয়ন পাননি- এমন আওয়ামী লীগ নেতারাও যদি রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন- তবে তার নামের সামনে দলের নাম নয়- স্বতন্ত্র লেখা থাকার কথা। কিন্তু ঢাকা বিভাগীয় রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় একই আসনে একাধিক মনোনয়নপত্র উত্তোলনকারী ব্যক্তির নামের সামনে ‘আওয়ামী লীগ’ লিখে রেখেছেন- যা বিব্রতকর।

সোমবার আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের ফরম বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। একইদিনে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের অফিস ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে বিভিন্ন দলের প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দেওয়া শুরু হয়।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকার রমনা অঞ্চলের নির্বাচন কর্মকর্তা এম এম শাহনাজ পারভীন ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় থেকে প্রথমদিন সোমবার ও দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার মোট ১৭৪ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন এবং মনোনয়ন ফরম দাখিল করেছেন ৯জন সংসদ সদস্য প্রার্থী।’ ঢাকার মোট ২০টি সংসদীয় আসনের মধ্যে ৪-১৮ আসন পর্যন্ত ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির আওতাধীন। এই ১৫টি আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছেন ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার। এছাড়া বাকি পাঁচটি আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্বে আছেন জেলা প্রশাসক। প্রার্থীরা আসনভিত্তিক ওয়ার্ডের সংখ্যা অনুপাতে নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে ঢাকার রিটার্নিং ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম তুলতে পারছেন। ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র উত্তোলন ও জমা দেওয়া যাবে।

ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের অফিস ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে প্রথম ও দ্বিতীয় দিনের মনোনয়ন ফরম নেওয়ার তালিকায় দেখা গেছে, ঢাকা-৪ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী সানজিদা খানম হলেও এই আসনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তালিকায় আওয়ামী লীগের নামে দুইজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র নেওয়ার তথ্য লেখা রয়েছে। এছাড়াও একই তালিকায় ৩জন স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ মোট ৮জনের নাম রয়েছে।

মো.আওলাদ হোসেন ঢাকা টাইমসকে বলেন, আমি ঢাকা-৪ আসনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম নিয়েছে।

ঢাকা-৮ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। কিন্তু এই আসনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তালিকায় আওয়ামী লীগের নামে মনোনয়নপত্র উত্তোলনকারী দুজনের নাম লেখা রয়েছে- বাহাউদ্দিন নাছিম ও দেলোয়ার হোসেন। এ আসনে জাতীয় পার্টির নামে দুইজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র নিয়েছেন। প্রাপ্ত তালিকা অনুযায়ী, মঙ্গলবার পর্যন্ত এ আসন থেকে মোট ১৪জন সম্ভাব্য প্রার্থী মনোনয়নপত্র নিয়েছেন।

ঢাকা-১০ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়ে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র নিয়েছেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ। কিন্তু রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তালিকায় একই আসনে আওয়ামী লীগ লেখা রয়েছে কামাল আহমেদ নামে এক সম্ভাব্যপ্রার্থীর নামেসর সামনেও । এছাড়াও জাতীয় পার্টির নামে রয়েছে দুইজন।

এই বিষয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোর্শেদ কামাল ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘আমি এখনো রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ফরম নেইনি, কিন্তু নেব। ধানমন্ডি থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি কামাল আহমেদ ভাই নিয়েছে।’ এই আসনে মোট ফরম নিয়েছেন ১০জন।

ঢাকা-১৪ আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন মাইনুল হোসেন খান নিখিল। কিন্তু রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য বলছে এই আসন থেকেও আওয়ামী লীগের হয়ে ফরম নিয়েছেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। তাহলে তাদের দেয়া তথ্য বলছে, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ঢাকা ৮ ও ১৪ আসন থেকে মনোনয়ন নিয়েছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ঢাকা ১৪ আসন থেকেই আওয়ামীলীগের নামে মনোনয়নপত্র নিয়েছেন ৯জন, ৫জন জাতীয় পার্টিরসহ মোট ২৬জন প্রার্থী।

ঢাকা-১৫ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়ে ফরম নিয়েছেন কামাল আহমেদ মজুমদার। কিন্তু এই আসনে রিটানিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে আওয়ামী লীগের নামের তালিকায় তিনিসহ রয়েছে এসএম আবুল কাশেমের নামও। এই তালিকায় মোট ফরম নিয়েছেন ৯জন।

ঢাকা ৭ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন সোলেমান সেলিম। এই আসন থেকে তিনি একাই মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন।

ঢাকা ১১ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন মো. ওয়াকিল উদ্দিন। তবে এই আসনে আওয়ামীলীগের নামে ফরম নেওয়ার তালিকায় রয়েছে আরও ৪ জনসহ মোট ১১জন।

ঢাকা ১৩ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন জাহাঙ্গীর কবির নানক তবে একই আসনে আওয়ামীলীগ তালিকায় তিনিসহ নাম রয়েছে মো. সাদেক খানেরও। এই তালিকায় জাতীয় পার্টির দুইজনসহ মোট ১০ জনের তালিকা রয়েছে। ঢাকা ১৬ আসনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী হয়েছেন মো. আমানত হোসেন আমান, তবে এই আসনে জাতীয় পার্টির নামে ফরম নিয়েছেন তিনিসহ আমিনুল ইসলাম নামের ওপর এক প্রার্থী।

ঢাকা ১৭ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী মো. আলী আরাফাত হলেও একই আসনে তিনিসহ ফরম নেওয়ার তালিকায় রয়েছে আবু সাঈদ নামে আরেক জনের নাম। এছাড়াও বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির নামের ২জন সহ মোট রয়েছে ১৪জনের নাম।

১৮ আসনে আওয়ামী লীগে প্রার্থী হিসেবে মো হাবিব হাসান মনোনীত হলেও একই দলের নামের তালিকায় রয়েছে মো. বশির উদ্দিন নামের আরেজন প্রার্থী। এছাড়াও এই আসনে ২জন জাতীয় পার্টির প্রার্থীসহ মোট ৯জনের নাম রয়েছে।

নির্বাচন কমিশনে রাজনৈতিক মনোনীত প্রার্থীদের নামের তালিকা দেওয়ার আগেই প্রার্থীদের নামের সাথে দলীয় নাম উল্লেখ করা এবং একই রাজনৈতিক সংগঠনের নামে একাধিক ফরম দেওয়ার তালিকার বিষয়ে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের নির্বাচন অফিসার এম এম শাহনাজ পারভীন ঢাকা টাইমসকে বলেন, আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, স্বতন্ত্রসহ বেশকিছু রাজনৈতিক দলের ১৭৪ জন মনোনয়ন দাখিল করেছেন। একদলের একাধিক নেতাও মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন। আওয়ামী লীগের হোক আর যেই দলের হোক একদলের নামে একাধিক প্রার্থী মনোনয়ন ফরম নিতে পারবেন।

চলতি নভেম্বর মাসের ১৫ তারিখে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হবিবুল আউয়াল নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। তফসিল অনুযায়ী, নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়ন ফরম দাখিলের শেষ দিন ৩০ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর, মনোনয়নের আপিল ও নিষ্পত্তি ৬ থেকে ১৫ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর, প্রতীক বরাদ্দ ১৮ ডিসেম্বর, নির্বাচনী প্রচার ১৮ ডিসেম্বর থেকে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত এবং সারাদেশে ৩০০ আসনে একযোগে ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি।

(ঢাকাটাইমস/২৮নভেম্বর/জেএ/এইচএম/কেএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :