কাগজে কলমে আটকে আছে জবির প্রধান ফটক নির্মাণ পরিকল্পনা

​​​​​​​জবি প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, ২১:১২ | প্রকাশিত : ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, ২০:৩২

কাগজে কলমেই আটকে আছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক নির্মাণ পরিকল্পনা। প্রতিষ্ঠার আঠারো বছর পেরিয়ে গেলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) পরিচয় তুলে ধরার মতো নেই কোনো ফটক।কলেজআমলে স্থাপিত ফটকটি বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ার পর এখনও মূল ফটক হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ অতিদ্রুত ফটক সংস্কার কিংবা দৃষ্টিনন্দন নতুন ফটক নির্মাণের কথা বললেও তা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাগজে কলমেই আটকে আছে।

জোড়াতালি দেওয়া ফটকটি অতিদ্রুত সংস্কার করে অথবা নতুনত্ব এনে বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রবেশমুখে দৃষ্টিনন্দন একটি ফটক তৈরির দাবি তুলেছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, দেশসেরা বিদ্যাপীঠের জরাজীর্ণ ফটক কখনোই বাঞ্ছনীয় নয়। তাদের মতে বর্তমান সময়ে একটি সাধারণ কলেজের ফটকও বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটক থেকে দৃষ্টিনন্দন।

শিক্ষার্থীদের দাবি, ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ঐতিহ্য বহন করে, এটি ফুটিয়ে তোলা প্রয়োজন। চাইলেই নতুন করে ফটকটি নির্মাণ করা সম্ভব। তবে প্রশাসনের খামখেয়ালির কারণে দীর্ঘদিন পার হলেও তা সম্ভব হচ্ছে না বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীদের।

এদিকে ক্যাম্পাসে প্রবেশের চারটি ফটকের দুইটিই দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ। আরেকটি চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় প্রবেশপথ হিসেবে এই ফটক দিয়েই শিক্ষার্থীদের চলাচল করতে হয়।

মূল ক্যাম্পাসে দৃষ্টিনন্দন ফটক নির্মিত হলে ঐতিহ্যবাহী এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সৌন্দর্য অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে সদরঘাটগামী প্রধান সড়কে নেই কোনো গতিরোধক। মূল ফটক দিয়ে প্রবেশের রাস্তাটিও ভাঙা অবস্থায় পড়ে আছে। ফলে প্রায় সময় দুর্ঘটনায় পড়তে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের।

প্রকৌশল দপ্তর থেকে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকটি ভেঙে একটি বড় ফটক নির্মাণ ছাত্রীহলের প্রধান ফটক নির্মাণে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। পরিকল্পনা থাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ ফটকটি সংস্কার করা হয়নি। মূল ফটক ড্রয়িংয়ের কাজ প্রায় শেষের দিকে। আর্থিক বিষয়গুলোর সমাধান হলে কাজ শুরু হবে।

সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী শরিফুল ইসলাম বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক দেখলে মনেই হয়না যে এটা একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটক। অতি দ্রুত প্রশাসন যেন দৃষ্টিনন্দন ফটক নির্মাণ করে এই দাবি জানাচ্ছি।

অর্থনীতি বিভাগের আরেক শিক্ষার্থী হাসান মাহমুদ বলেন, মূল ফটকটি আমাদের জন্য একটি মৃত্যুফাঁদ। এখানে কোনো গতিরোধক নেই। ফটকের রাস্তা ভাঙা থাকায় বাইক নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করার সময় দূর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কায় থাকি।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী হেলাল উদ্দিন পাটোয়ারী বলেন, দায়িত্বপ্রাপ্ত কমিটির সদস্যদের নিয়ে বেশ কয়েকবার মিটিং করেছি। নকশার কাজ প্রায় শেষ হয়ে গেছে। আর কিছু কাজ বাকি আছে। এখন অর্থ বরাদ্দের জন্য কাজটি আটকে আছে।

(ঢাকাটাইমস/০৭ডিসেম্বর/পিএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিক্ষা এর সর্বশেষ

রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাকে সম্মাননা জানাল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় 

সোহরাওয়ার্দী কলেজ শিক্ষার্থীর সম্পাদনায় বইমেলায় এলো নির্মলেন্দু গুণের কথামৃত

ছাত্রলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে ঢাবি 

ববির রসায়ন বিভাগে কেমফিউশন কেমফেস্ট ২.০ অনুষ্ঠিত

দুই দফা দাবিতে ইবি উপাচার্যকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম শিক্ষার্থীদের 

দৃষ্টিজয়ী মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের বইমেলা ঘুরে দেখালো ছাত্রলীগ

এবার নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে বিইউপি ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

নবীনদের উন্নত বিশ্বের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতিযোগিতার প্রস্তুতি নেবার আহ্বান উপাচার্যের 

হাবিপ্রবিতে অমর একুশে বইমেলার উদ্বোধন

পবিপ্রবির সংকট নিরসনে শিক্ষক সমিতির বিবৃতি

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :