তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী: মিনা পাল থেকে যেভাবে তিনি হয়ে উঠেছিলেন কবরী

বিনোদন প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪৩

বাংলাদেশের সিনেমার ‘সারেং বউ’ খ্যাত কিংবদন্তি অভিনেত্রী, পরিচালক ও রাজনীতিবিদ সারাহ বেগম কবরীর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ মঙ্গলবার। তিনি ‘মিষ্টি মেয়ে’ নামেও পরিচিত ছিলেন ঢাকাই চলচ্চিত্রে।

২০২১ সালে বিশ্বজুড়ে যখন করোনাভাইরাসের মহাতাণ্ডব, ওই বছরেরই ১৬ এপ্রিল দিনের প্রথম প্রহরে তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস থাবা বসিয়েছিল কবরীর শরীরেও।

টানা ১২ দিন ধরে ঢাকার শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন এই অভিনেত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য। ১৩ দিনের মাথায় তিনি চলে যান না ফেরার দেশে। তাকে বনানী কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়।

কবরীর জন্ম হয়েছিল ১৯৫০ সালের ১৫ জুলাই চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে। তার জন্মনাম ছিল মিনা পাল। ১৯৬৪ সালে মাত্র ১৪ বছর বয়সে সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘সুতরাং’ সিনেমার মধ্য দিয়ে অভিনয় জীবন শুরু করেন তিনি। ওই সিনেমা থেকেই মিনা পাল নাম পাল্টে পরিচিতি পান কবরী নামে।

সুরকার সত্য সাহা সুভাষ দত্তকে কবরীর খোঁজ দিয়েছিলেন। তার ছবি দেখে সুভাষ দত্ত তাকে পছন্দ করেন এবং তাকে অডিশনের জন্য চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় ডেকে পাঠান। কণ্ঠ ও সংলাপ পরীক্ষার পর সুভাষ দত্ত ‘সুতরাং’ সিনেমায় তাকে জরিনা চরিত্রের জন্য নির্বাচন করেন। এরপর দত্তের পরামর্শে চলচ্চিত্রটির লেখক সৈয়দ শামসুল হক মিনা পাল নাম পাল্টে তার নতুন নাম দেন কবরী।

এরপর থেকে এই নামেই তিনি পরিচিত হতে থাকেন এবং একসময় অভিনয় দিয়ে উঠে যান খ্যাতির শীর্ষে। সেই সত্তরের দশক থেকে এখন পর্যন্ত মিনা পাল বললে হাতে গোনা কয়েকজনই কেবল এই অভিনেত্রীকে চিনবেন। কিন্তু কবরী নামে তিনি শুধু চলচ্চিত্রে নন, রাজনৈতিক অঙ্গণেও ব্যাপক পরিচিত।

সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে অসংখ্য দর্শকপ্রিয় সিনেমায় দাপটের সঙ্গে অভিনয় করেছেন কবরী। স্বীকৃতিস্বরূপ আজীবন সম্মাননাসহ পেয়েছেন দুটি ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’। তার মধ্যে একটি সেরা অভিনেত্রী বিভাগে, যেটি তিনি ১৯৭৮ সালে অর্জন করেছিলেন ‘সারেং বউ’ সিনেমাটির জন্য।

এছাড়া ছয়টি বাচসাস পুরস্কার আছে কবরীর ঝুলিতে। শ্রেষ্ঠ পরিচালক বিভাগে পেয়েছেন বিসিআরএ অ্যাওয়ার্ডস। তিনি বইও লিখেছিলেন। ২০১৭ সালের অমর একুশে বইমেলায় কবরীর আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ ‘স্মৃতিটুকু থাক’ প্রকাশিত হয়।

রাজনৈতিক জীবনে এই অভিনেত্রী আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ২০০৮ সালে দলটির মনোনয়নে তিনি নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৪ সাল পর্যন্ত সেই দায়িত্ব পালন করেন।

(ঢাকাটাইমস/১৬এপ্রিল/এজে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :