বৃষ্টিতে টাঙ্গুয়ার হাওরে পর্যটকদের পূর্ণিমা দেখা হলো না

আমিনুল ইসলাম, তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) থেকে
| আপডেট : ২৮ জুলাই ২০১৮, ২৩:৫৫ | প্রকাশিত : ২৮ জুলাই ২০১৮, ২৩:৫০
নৌকায় ঘুরছেন পর্যটকরা

টাঙ্গুয়ার হাওরে রাতভর মুষলধারে বৃষ্টিপাতের কারণে শ্রাবণের ভরা পূর্ণিমা দেখা হলো না ভ্রমণ পিপাসুদের। শ্রাবণ মাসের ভরা পূর্ণিমা দেখতে শুক্রবার তাহিরপুর উপজেলা সদর পর্যটকদের আগমনে লোকারণ্য ছিল। উপজেলা সদরের মুদি দোকান, কনফেকশনরি, রেস্তোরাঁ, মাছবাজার, মুরগীর দোকানসহ সকল দোকান গুলোতে ছিল ঈদের কেনাকাটার মতো উৎসবমুখর পরিবেশ।

কিন্তু প্রকৃতির বৈরী আবহাওয়ার কারণে দুই শতাধিক নৌকা নিয়ে টাঙ্গুয়া হাওরে আগত পর্যটকরা নৌকার ভেতরেই গান বাজনা কিংবা ঘুমিয়ে কাটিয়েছেন।

পূর্ণিমা উপভোগ করতে এসেছিলেন ভাই ভাই পরিবহনের পরিচালক দিলশাদ মিয়া। তিনি বলেন, শুক্রবার রাত ১০টা থেকে শুরু করে শনিবার ভোর রাত পর্যন্ত অবিরাম বৃষ্টি হয়। ফলে টাঙ্গুয়া হাওরে আগত ভ্রমণ পিপাসুরা শ্রাবণের ভরা পূর্ণিমা দেখতে পারেননি। পুরো রাত্রিই তারা নৌকার ভেতরে থেকে পার করেছেন।

মনি এন্ড মাহিয়া পরিবহনের পরিচালক ফকির আলম বলেন, পর্যটকরা বৃষ্টির কারণে ভরা পূর্ণিমা দেখতে না পারলেও তারা টাঙ্গুয়া হাওরের নীল জলরাশি দেখে আনন্দিত হন। তা সবাই লাইফ জ্যাকেট পড়ে নৌকা থেকে ঝাপ দিয়ে পানিতে নেমে সাঁতরে বেড়ান। শুধু টাঙ্গুয়া হাওর নয়, পর‌্যটকরা টাঙ্গুয়া হাওরের পাশাপাশি নীলাদ্রি লেক ও যাদুকাটা নদীর স্বচ্ছ পানিতেও তাদের সাঁতার কাটেন।

অপরদিকে শিমুল বাগান, বারেকের টিলা ও লাকমা ছড়াতেও তারা শনিবার সারাদিন ঘুরাফেরা করেন পর্যটকরা।

ওয়াইটিজি ট্র্যাভেলের গ্রুপে আসা পর্যটক নোয়াখালী জেলার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, শ্রাবণের ভরা পূর্ণিমা দেখার জন্য ওয়াইটিজি ট্র্যাভেলের সাথে এসেছিলাম টাঙ্গুয়া হাওরে। বৈরী আবহাওয়ার কারণে ভরা পূর্নিমা দেখতে না পারলেও টাঙ্গুয়া হাওরে বিশাল নীল জলরাশি দেখতে পেরে তিনি খুবই আনন্দিত। পাশাপাশি নীলাদ্রি লেক, যাদুকাটা নদী, শিমুল বাগান, বারেকের টিলা ও লাকমা ছড়াতে গিয়ে প্রকৃতিকে অনেক জানতে ও শিখতে পেরেছি। শ্রাবণের ভরা পূর্ণিমা দেখতে না পারলেও রাতভর শ্রবণের ঝরা বৃষ্টি দেখে আমার খুব ভালো লেগেছে।

 ঢাকাটাইমস/২৮জুলাই/প্রতিনিধি/ইএস

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :