মানুষকে বোকা বানিয়ে লাখ লাখ টাকা নেওয়া হচ্ছে কেন?

মেহেদী মিঠু
 | প্রকাশিত : ১৩ জুন ২০১৯, ০৯:৪২

আমরা মাকে নিয়ে গিয়েছিলাম ডায়াবেটিস হাসপাতালে MRI করতে। কারণ ডাক্তার মাকে দেখে বলল MRI না করলে কোনো ওষুধ দেওয়া যাবে না। মা বাথরুমে পরে গিয়ে পায়ে ব্যথা পেয়েছিলেন। তাই উপায় না দেখে ডায়াবেটিস হাসপাতালে জানতে গেলাম যে এই টেস্ট করতে কতো টাকা লাগবে। ওরা বলল সাত হাজার টাকা লাগবে।

আর লাগারই কথা। কারণ, ফরিদপুরে আর কোথাও নেই। ২৫০ বেডে ছিল, তাও না-কি মেশিন নষ্ট। যাইহোক মাকে নিয়ে কাউন্টারে টাকা জমা দিলাম। কাউন্টার থেকে একটা স্লিপ ধরিয়ে দিয়ে বলল ১৪ নাম্বারে যান। গেলাম। দেখলাম ভেতরে একজন আয়া। তাকে কাগজটা দিতেই সে বলল অনেকক্ষণ লাগবে। বাথরুমের চাপ থাকলে সেরে আসেন। আমি বললাম কতক্ষণ। আবারও বলল অনেকক্ষণ। মা বলল সমস্যা নেই আমি সব সেরে এসেছি। তখন আমি বললাম অনেকক্ষণ বলতে আপনি কি বুঝাচ্ছেন। ৪/৫ ঘণ্টা না তারও বেশি। একটা টাইম আছে না, যে ২০ মিনিট না ৪০ মিনিট।

তখন দেখি তার পেছনে একজন ডাক্তার। সে বলছে কি হয়েছে। আমি বললাম এটা করতে সঠিক সময় কতটুকু লাগবে। সে স্লিপ দেখে বলল এক থেকে দেড় ঘণ্টা। এবার বললাম ঠিক আছে। মা একটু ভয় পাচ্ছিল। মাকে সাহস দিয়ে বললাম কোনো চিন্তা করো না। এটাতো কোনো অপারেশন না, টেস্ট মাত্র। আল্লাহ আল্লাহ করো। ভয় পাওয়ার কিছু নেই।

মাকে নিয়ে ডাক্তার ভেতরে চলে গেল। আমি বাইরে বসে আছি। প্রায় আধা ঘণ্টা পর ওই আয়া আমাকে ডাকছে। একটা স্লিপ ধরিয়ে দিয়ে বলল এই ওষুধগুলো নিয়ে আসেন। আমি বললাম কি বলেন। আমি ওষুধ কিনব কেন? বললেন টেস্ট করতে লাগবে। আমি বললাম, লাগলে হাসপাতাল দেবে। আমিতো টেস্টের টাকা কাউন্টারে জমা দিয়েছি। উনি বলল, আপনি কাউন্টারে যোগাযোগ করেন, না হলে ডাক্তারকে বলেন। আমি কিছু জানি না।

আমি তখন কাউন্টারে গিয়ে বললাম, ভাই এই ওষুধ আমার কেনা লাগবে কেন? উনি তখন বলল লাগলে কিনবেন না? আর এটা আমাদের কাছ থেকে মানে আমার পাশের কাউন্টার থেকেই কিনতে হবে। বাইরে থেকে কেনা যাবে না। কতো বড় স্বৈরাচারিতা, একবার ভাবুন। কি করবো উপায় না দেখে ওষুধ কিনলাম। বিল ৯৮৭ টাকা।

ওষুধটা নিয়ে ডাক্তারকে দিলাম আর বললাম, এই ওষুধগুলো আমার কেনা লাগলো কেন? আমি যে টাকাটা কাউন্টারে জমা দিলাম, সেটা কিসের জন্য। সে বলল, সেটা হলো এই মেশিনের বিল। আমি কি করব। ওরা যা বোঝাবে তাই মেনে নিতে হবে। কিন্তু আমার জানামতে ডায়াবেটিসের এসব ভবন, মেশিনারিজ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় পাওয়া।

তবে কেন সাধারণ মানুষকে এভাবে বোকা বানিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। বন্ধুগণ আপনাদের কাছে এটাই জানতে চাওয়া। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন এই দোয়া করি।

লেখক: নাট্যকর্মী

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফেসবুক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত