দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কূটনীতিকদের নাক গলানো সমীচিন নয়: তথ্যমন্ত্রী

চট্টগ্রাম ব্যুরো, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ৩১ মার্চ ২০২৩, ২০:০৫

বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অনেকের পছন্দ হয় না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বলেন, বর্তমানে কিছু পত্রিকায় উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নেতিবাচক প্রতিবেদন হয়।

এছাড়া বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে কূটনীতিকদের নাক গলানো সমীচিন নয় জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রয়োজনে কূটনীতিকদের আচরণ সম্পর্কিত ভিয়েনা কনভেনশন তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে।

শুক্রবার চট্টগ্রাম নগরীর দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের নিজ বাড়িতে সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজকে করোনা মহামারি এবং বিশ্বমন্দা পরিস্থিতির মধ্যেও দেশ যেভাবে এগিয়ে চলেছে, অর্থনীতিক সমৃদ্ধি যেভাবে অব্যাহত আছে, এটি পৃথিবীর বিভিন্ন পত্রপত্রিকা প্রশংসা করছে।

সম্প্রতি ব্লুমবার্গ একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, সেখানে তারা বলেছেন অর্থনীতিক সমৃদ্ধি এবং করোনার মধ্যেও অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার কারণে আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনা জয়লাভের সম্ভাবনা বেশি। তিনি চতুর্থ মেয়াদের মতো নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

ব্লুমবার্গের এমন প্রতিবেদনের কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যেভাবে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এসেছে এবং অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা যেভাবে তিনি ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছেন সেই কারণেই তিনি চতুর্থ বারের মতো নির্বাচিত হবার উজ্জ্বল সম্ভাবনা।

আওয়ামী লীগের শীর্ষ এই নেতা বলেন, কিছুদিন আগে পরিকল্পনা মন্ত্রী সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছেন ২০০৯ সালে আমরা যখন সরকার গঠন করি তখন আমাদের দারিদ্রসীমার নিচে বাস করা মানুষের সংখ্যা ছিল ৪১ শতাংশ, কিছুদিন আগে সেটা কমে ২০ শতাংশে নেমেছিল। এই করোনা মহামারি এবং বিশ্বমন্দা পরিস্থিতির মধ্যে এখন সেটি কমে ১৬ শতাংশে দাড়িয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে দারিদ্রতা হচ্ছে ১৭ শতাংশ। আইএমএফ এর রিপোর্ট অনুযায়ী এই করোনা মহামারির মধ্যে আমাদের মাথাপিছু আয় ভারতকে ছাড়িয়েছে। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ যখন সরকার গঠন করে তখন আমাদের অর্থনীতির আকার ছিল পৃথিবীর ৬০ তম অর্থনীতির দেশ, এখন আমরা জিডিপিতে পৃথিবীর ৩৫ তম অর্থনীতির দেশ। গত ১৪ বছরে আমরা ২৫টি দেশকে অতিক্রম করেছি। সেই ২৫টি দেশের মধ্যে মালয়েশিয়ার অর্থনীতিও আছে। পিপিপিতে আমরা পৃথিবীর ৩১তম অর্থনীতির দেশ।

দেশ এগিয়ে নিয়ে যাবার ক্ষেত্রে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকরা ভূমিকা রাখে জানিয়ে তিনি বলেন, গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গণমাধ্যম মানুষকে সঠিক তথ্য পেতে এবং সঠিক চিন্তা করার ক্ষেত্রে সহায়তা করে। একইসঙ্গে মানুষকে বিশ্বপরিস্থিতিও জানাতে সহায়তা করে।

তিনি বলেন, আজকে বিশ্ব মন্দা পরিস্থিতির মধ্যে যেখানে ইউকে এবং কন্টিনেন্টাল ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পণ্যের সঙ্কট হয়েছে। আমাদের দেশে কোন পণ্যেও সঙ্কট হয়নি। ইউরোপের সুপার মার্কেটে এক লিটারের বেশি ভোজ্যতেল ছয়টার বেশি ডিম কিনতে দেয়া হয় না একসঙ্গে, কারণ সেখানে পণ্যের সঙ্কট দেখা দিয়েছে।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে বিশ্বমন্দা পরিস্থিতির মধ্যে আমাদের দেশে পণ্যের মূল্য বেড়েছে, কিন্তু পণ্যের সঙ্কট তৈরি হয়নি। এখানেই হচ্ছে তাদের সঙ্গে আমাদের পার্থক্য।

ড. হাছান বলেন, সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে, স্বাধীনতা অব্যাহত রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর। আমরা মনেকরি গণমাধ্যমের স্বাধীনতার সঙ্গে রাষ্ট্রের বিকাশ, গণতন্ত্রের বিকাশ জড়িত, গণতান্ত্রিক রীতিনীতি চর্চার আমাদের যে সংস্কৃতি সেটিকে আরো গভীরে প্রোতিত করা নির্ভর করে। কিন্তু একইসঙ্গে আমাদের সম্মিলিত দায়িত্বশীলতাও আছে। স্বাধীনতার নামে যদি আমরা কেউ অপসাংবাদিকতা করি তাহলে দেশের আপামর জনগণ এবং সাংবাদিক সমাজ নিশ্চয় সেটিকে সমর্থন করেনা। সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে সাংবাদিকতার নামে রাজনীতি করা সেটি যে সমীচিন নয়।

প্রথম আলোর সাংবাদিক শামসুজ্জামানের গ্রেপ্তার বিষয়ে আমেরিকাসহ ১২টি দেশ বিবৃতির বিষয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ১২টি দেশের দূতাবাসের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি তাদের ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভারতের দিকে তাকিয়ে দেখুন, সেখানে কয়েকদিন ধরে বিবিসির কার্যালয়ে তল্লাশি করা হয়েছে, সেখানে কী এ ধরণের বিভিন্ন দেশ উদ্বেগ প্রকাশ বা বিবৃতি দিয়েছে? দেওয়া হয়নি। কারণ ভারত বড় দেশ, ভারতের শক্তি সামর্থ বেশি, সেজন্য সেখানে সেই সাহস দেখাতে পারেনি।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, তারা (বিএনপি) বিদেশী কূটনীতিকদের ধারে ধারে গিয়ে পদলেহন করে। আমি আশা করেছিলাম তারা দুঃস্থ মানুষের সঙ্গে ইফতার করবে, সেটি না করে ফাইভ স্টার হোটেলে বসে কূটনীতিকদের সঙ্গে ইফতার করেছে। সেখানে গিয়ে আমাদের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের জন্য অনুনয়-বিনয় করেছে।

তিনি বলেন, আসলে দোষটা কূটনীতিকদের চেয়েও আমাদের অনেক বেশি। কারণ আমরা গিয়ে তাদের হাতে পায়ে ধরি, একটু কিছু বলার জন্য। আমাদের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার জন্য। এটি আসলে দেশ বিরোধী, দেশের বিরেুদ্ধে ষড়যন্ত্রের শামিল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহাতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ সালাম, দক্ষিণ জেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রিয় সহ-সভাপতি সফর আলী।

(ঢাকাটাইমস/৩১মার্চ/এসএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

ঢাকা সিটি কলেজের সামনে রক্তাক্ত দেহ, ঢামেকে মৃত্যু

দেশের সব স্কুল কলেজ পলিটেকনিক বন্ধ ঘোষণা, ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত

কোটা আন্দোলনে হামলা-সংঘর্ষ: ঢাকা চট্টগ্রাম ও রংপুরে নিহত ৬

শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় ৯০ এর ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের নিন্দা

শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় মন্ত্রীদের উস্কানির নিন্দা জানানোর ভাষা নেই: টিআইবি

কোটার বিষয়ে আদালতকে পাশ কাটিয়ে কিছু করবে না সরকার: আইনমন্ত্রী

ঢাকা চট্টগ্রাম বগুড়া রাজশাহী ও রংপুরে বিজিবি মোতায়েন

মহাখালীতে রেলপথ অবরোধ

কোটা সংস্কার আন্দোলন: যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যে ‘হতাশ বাংলাদেশ’

যত আন্দোলনই হোক, আদালতকে পাশ কাটিয়ে কিছুই করবে না সরকার: আইনমন্ত্রী

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :