দুবাইয়ে বিসিসি আল-আইনের উদ্যোগে আনন্দ ভ্রমণ 

ঢাকা টাইমস ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪:৩৪

সংযুক্ত আরব-আমিরাতের দুবাইয়ে ক্রিকে আল-আইন কালচারাল সেন্টারের উদ্যোগে প্রায় সাড়ে ৩০০ মানুষের অংশগ্রহণে প্রমোদতরী জাহাজে আনন্দ ভ্রমণের ব্যবস্থা করা হয়। শুক্রবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) এ ভ্রমণের ব্যবস্থা করা হয়।

এতে জাহাজে যেন বাংলাদেশিদের এক মিলন মেলায় পরিণত হয়। এত বড় আয়োজন দেখে অবাক হন ভিনদেশিরাও। বিশাল এই জাহাজে আয়োজনের মধ্যে ছিল মহিলাদের বালিশ খেলা, নৃত্য পরিবেশন, ছোটো ছোটো ছেলে-মেয়েদের নানা রকম খেলাধুলা, আরব সংস্কৃতি ঐতিহ্যের ও দেশীয় সংস্কৃতির গান নৃত্যসহ নানারকম পরিবেশনা।

শীতকালীন আনন্দ ভ্রমণ-২০২৪ উদযাপন কমিটির আহবায়ক কাদের সিদ্দিকীর সভপতিত্বে বিসিসির সাধারণ সম্পাদক নাছের উল্লাহ নাছের ও আনন্দ ভ্রমণ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব শহিদুল ইসলাম (শহিদ) এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, বিসিসির সভাপতি প্রকৌশলী এ আর মাকসুদ। প্রধান বক্তা ছিলেন, প্রমোদতরী ভ্রমণ পরিচালনা পরিষদের অন্যতম সদস্য শওকত ওসমান রানা। বিশেষ অতিথি ছিলেন, সংগঠনের উপদেষ্টা ফরিদ তালুকদার, ইঞ্জিনিয়ার রফিক আহমদ, হাজি ফারুক হোসেন, বৃহত্তর ঢাকা সমিতির সভাপতি শেখ ইব্রাহিম, প্রবাসী সাংবাদিক সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলাম তালুকদার, বিশিষ্ট সংগঠক মনসুর আহমদ, আতাউর রহমান আতা, মোহাম্মদ মনসুর প্রমুখ।

বক্তব্য রাখেন সংগঠনের বিভিন্ন কর্মকর্তাদের মধ্যে সর্বজনাব- হোসেন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান টিটু, মোহাম্মদ মামুন, নুরুল আমিন,মুজিবুল হক মিলন, ওমর ফারুক, মোহাম্মদ শহিদ, গাজী শাহজাহান, মো. এরশাদ, মো. এনাম, আবু সাইদ ও মোহাম্মদ বোরহান প্রমুখ।

প্রমোদতরী ভ্রমণ পরিচালনা পরিষদের অন্যতম সদস্য শওকত ওসমান রানা বলেন, ব্যস্ত প্রবাসী ও নতুন প্রজন্মকে আনন্দ দেওয়ার জন্য এই প্রমোদতরী। আজকের এই ক্ষুদ্র প্রয়াসে যতটুকু আনন্দ দিতে পেরেছি আশা করি সবাই খুশি হয়েছেন এবং আগামীতেও আপনাদের নিয়ে এরকম আনন্দ বিনোদনের আয়োজন করবো।

বিসিসি সাধারণ সম্পাদক নাসের উল্লাহ নাসের বলেন, আমরা এসেছি দুবাই আরব সাগরে আনন্দ ভ্রমণ করতে। শীতকালে আমরা প্রতিবছর বিসিসির পক্ষ থেকে আনন্দ ভ্রমণ করে থাকি। বিশেষ করে একুশে ফেব্রুয়ারিকে সামনে রেখে এবারও করেছি। তিনি এই আনন্দ ভ্রমণ সফল করায় সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

বিসিসি আল-আইনের সভাপতি প্রকৌশলী এ আর মাকসুদ বলেছেন, আমরা যারা প্রবাসে আছি মন থাকলেও একত্রিত হওয়ার সুযোগ হয়ে উঠে না। তাই পরিবার-পরিজন নিয়ে আজকের এই আয়োজন। বিশেষ করে আমাদের চেয়ে বাচ্চারা বেশি আনন্দিত হয়েছে। মাঝেমধ্যে এরকম আয়োজন করা উচিত। তাতে নতুন প্রজন্ম কিছুটা হলেও দেশের সংস্কৃতি সম্পর্কে জানতে পারবে।

উদযাপন কমিটির আহবায়ক আবদুল কাদের সিদ্দিকী বলেছেন, এই ব্যস্ত প্রবাস জীবনে আমাদের এই আয়োজনে আপনাদেরকে কতটুকু আনন্দ দিতে পেরেছি জানি না। তবে আগামীতে আরও সুন্দর কিছু উপহার দেওয়ার চেষ্টা করবো।

(ঢাকাটাইমস/১৮ফেব্রুয়ারি/জেডএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

প্রবাসের খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :