জাতির বিবেকের ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ’

নজরুল ইসলাম, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৮:০৫

বুদ্ধিজীবীদের বলা হয় জাতির বিবেক। একটি স্বাধীন, সার্বভৌম, শক্তিশালী, মননশীল জাতি গড়ার কারিগর তারা। ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর বাঙালি জাতি হারিয়েছিল তাদের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। জাতি সেদিন হারিয়েছিল আনোয়ার পাশা, জাহির রায়হান, শহীদুল্লা কায়সার, মুনীর চৌধুরী, আলতাফ মাহমুদ, গোবিন্দ চন্দ্র দেব, জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা, ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, আব্দুল জব্বার, সেলিনা পারভীন, সিরাজুদ্দীন হোসেন সহ আরও অনেক গুণী মানুষকে। পেশায় কেউ ছিলেন, শিক্ষক, ডাক্তার, প্রকৌশলী, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, শিল্পী, আইনজীবী প্রমুখ।

বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত যেসব  স্থান ও স্থাপনাগুলো রয়েছে তারই মধ্যে প্রধান একটি স্থাপনা হলো 'রায়ের বাজার শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ'। ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয়ের মাত্র দুইদিন আগে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর এদেশীয় দোসর- রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিনীর সদস্যদের হাতে অপহৃত হন অনেক বুদ্ধিজীবী। পরে তাদের নির্মম ও নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়।  বাংলাদেশি এসব বরেণ্য বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে নির্মিত হয়েছে মিরপুর ‘রায়ের বাজার শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ’।

ঢাকার মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ডের পশ্চিম পাশে স্মৃতিসৌধটির অবস্থান। ১৯৯৩ সালের ১৪ ডিসেম্বর এ স্মৃতিসৌধের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। এর নির্মাণ কাজ শুরু হয় ১৯৯৬ সালে এবং শেষ হয় ১৯৯৯ সালে। এটি নির্মাণে ব্যয় হয়  ১৮ কোটি টাকা। সৌধটির নকশা করেন যৌথভাবে স্থপতি ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ও স্থপতি জামি আল শফি। সমগ্র সৌধ কমপ্লেক্সটির আয়তন ছিল ৩.৫১ একর। মূল বেদিটি ভূমি থেকে ২.৪৪ মিটার উঁচু। দুই দিকের কোণার অংশে ভাঙা একটি ১১৫.৮২ মিটার দীর্ঘ অমসৃণ লাল দেয়াল সৌধটির অন্যতম প্রধান একটি অংশ।

এ ছাড়া এই দেয়ালের মাঝখানে একটি ৬.১০ মিটার বর্গায়তনের জানালা রয়েছে এবং দেয়ালের সামনে একটি পুল বা জলাধার আছে। এই জলাধার থেকেই উঠে এসেছে কালো গ্রানাইট পাথরের বর্গাকৃতির মূল স্তম্ভটি। বিশাল দেয়ালের দুই পাশের ভাঙা অংশ বুদ্ধিজীবী হত্যা ঘটনার দুঃখ ও শোকের গভীরতা প্রকাশ করে এবং জানালার ফ্রেমে ভেসে ওঠা আকাশ ও রক্তিম সূর্য নতুন দিনের আগমনী বার্তা শোনায়। আর গ্রানাইট পাথরের মূল স্তম্ভটি হলো শোকের প্রতীক বা শোকের কেন্দ্রবিন্দু।

বাঙালি জাতি বরাবরই এই দিনটিতে শ্রদ্ধা ও বেদনার সঙ্গে স্মরণ করে থাকে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ বুদ্ধিজীবীদের। এই দিন সকালে মিরপুর ও রায়েরবাজারে বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে দেশের স্বাধীনতার জন্য আত্মোৎসর্গকারী শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে অগণিত মানুষ পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

(ঢাকাটাইমস/১৪ ডিসেম্বর/এনআই/জেডএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত