দিনাজপুর হাসপাতালে ডাক্তার ফিরলেও সংকট কাটেনি

শাহ্ আলম শাহী
 | প্রকাশিত : ২৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯:০৪

দুদকের অভিযানের পর থেকে দিনাজপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত সরকারি হাসপাতালের অনুপস্থিত চিকিৎসকরা আর কাজে ফাঁকি দিচ্ছেন না। কিন্তু তাতে রোগীরা যে স্বস্তিতে, তা নয়। কারণ, এই হাসপাতালটিতে যত চিকিৎসকের পদ আছে, তার মধ্যে প্রায় অর্ধেকই শূন্য।

২৫০ শয্যার দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক দরকার অন্তত ৫৮ জন। কিন্তু আছেন কেবল ২৫ জন। বাকি ৩৩টি পদ শূন্য রয়েছে।

হৃদরোগ, নাক-কান-গলা ও যৌন-চর্ম বিভাগে তিনজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পদ শূন্য রয়েছে এই হাসপাতালে। ফলে এই রোগীদের যেতে হচ্ছে বেসরকারি হাসপাতালে।

এই ২৫ জনের মধ্যে চারজন ছুটিতে। বাকি ১৯ জন ২১ জানুয়ারি দুদকের অভিযানের পর থেকে নিয়মিত হাসপাতালে আসছেন। তবে অভিযানের দিন অনুপস্থিত ছিলেন ৪০ শতাংশ চিকিৎসক।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আহাদ আলী বলেছেন, স্বল্পসংখ্যক চিকিৎসক দিয়ে প্রতিদিন গড়ে আউটডোরে ৫০০ থেকে ৬৫০ জন রোগী এবং ইনডোরে ২০০ থেকে ২৫০ জন রোগীর চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এ ছাড়া জরুরি বিভাগে প্রতিদিন গড়ে ৭৫ থেকে ৮৫ জন সেবা নিচ্ছে। গত মাসে এ হাসপাতালে ৭২ জন প্রসূতি স্বাভাবিক প্রসব এবং ৪২ জন সন্তান প্রসব করেছেন সিজারিয়ান অপারেশনে।

গতকাল দুপুরে হাসপাতালে সরেজমিন গিয়ে কথা হয় কয়েকজন রোগী ও তাদের স্বজনদের সঙ্গে। সবাই জানালেন, চিকিৎসকের সংখ্যা আগের চেয়ে বেড়েছে। সেবাও ভালো হয়েছে। তবে বেশ কয়েকটি বিভাগে চিকিৎসক নেই।

পেটের পীড়ায় আক্রান্ত কবিরুল ইসলাম জানালেন, তাকে ডাক্তার দেখেছেন। ওষুধও পাওয়া গেছে। শুধু দুটি ওষুধ না থাকায় তা বাইরের ফার্মেসি থেকে কিনেছেন তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :