হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট, গুগল-ফেসবুকের জন্ম এই গ্রামে!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:১২

হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট, গুগল-ফেসবুকই শুধু নয় আমেরিকা, জাপান, কোরিয়ারও জন্ম এই গ্রামে। শুনতে বিস্ময়কর শোনালেও এটি পুরোপুরি সত্য কথা। ভারতের বেঙ্গালুরু থেকে ৪১৯ কিলোমিটার দূরে এই গ্রামের কথা জানলে অবাক হবেন আপনিও। বিশ্বাস না হলে ওই গ্রামে গিয়ে নিজের চোখে দেখেও আসতে পারেন।

এক সময়ে কর্নাটকে বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে ছিল হাক্কি পিক্কি জনজাতির বাস। যাযাবর এই জনজাতির বর্তমানে দেখা মেলে কর্নাটকের ভদ্রপুর গ্রামে। মূলত জঙ্গলেই থাকতেন তারা। জংলি ফল, পাখি, ছোট জীবজন্তু শিকার করে জীবন চালাতেন।

কিন্তু ১৯৭০ সালে কর্নাটক সরকার পাখি শিকার নিষিদ্ধ করে দেয়। পাখি শিকার আটকাতে তাদের জঙ্গল থেকে সরিয়ে দেয় প্রশাসন। তাদের জন্য আলাদা বসতি স্থাপন করা হয় প্রশাসন থেকেই। এরপর থেকেই ভদ্রপুর গ্রামে তাদের বাস।

আশেপাশে মানুষদের সঙ্গে মিলেমিশে থাকতে থাকতে ক্রমে তাদের মধ্যে আধুনিক চিন্তাধারা গড়ে উঠেছে। হাক্কি পিক্কিদের অনেকেই এখন গ্রামের সরকারি স্কুলে ভর্তি হয়েছেন। কেউ কেউ চাকরি করতে গ্রাম ছেড়ে শহরে চলেও গিয়েছেন। তবে এখনও বেশির ভাগের মন পড়ে রয়েছে সেই জঙ্গলেই। সেই জীবনটাই এখনও তাদের কাছে সুন্দর।

এই হাক্কি পিক্কি জনজাতিদের মধ্যেই নামকরণের অদ্ভুত রীতি প্রচলিত। সন্তান জন্মের পর তার মুখ দেখে প্রথমেই যা মনে আসবে বাবার, সন্তানের নাম সেটাই হবে। নামকরণের অদ্ভুত এই রীতি যুগ যুগ ধরে রয়েছে হাক্কি পিক্কিদের মধ্যে।

শিকারই ছিল জীবন ধারণের মূল অবলম্বন। তাই আগে বিভিন্ন শিকারিদের নামেই নাম রাখা হত সন্তানদের। নাম দেওয়া হত প্রাণী, গাছ, ফুল-ফল দিয়ে। এখনও প্রতিটা পরিবারে নামকরণের সেই রীতিই চলে আসছে।

তবে এখন যেহেতু তারা শহুরে মানুষদের সংস্পর্শে এসেছেন, বাইরের দুনিয়া নিয়ে অনেক বেশি খোঁজ খবর রাখেন, তাই নামকরণের ধরনও কিছুটা পাল্টেছে। যেমন এখন প্রাণী, ফুল, ফলের বদলে সেলব্রিটিদের নাম, খাবারের নাম এমনকি রাজনীতিকদের নামও রাখা হচ্ছে।

গুগল, হাইকোর্ট, ডলার, সুগার, কফি, মিলিটারি, সুপ্রিম কোর্ট, কংগ্রেস, ঘাস এমনকি আমেরিকা, উত্তর কোরিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপানের মতো দেশের নামেও সন্তানদের নামকরণ হয়েছে এই গ্রামে।

অমিতাভ, সালমানের মতো সেলিব্রিটির ‘জন্ম’ যেমন এই গ্রামে হয়েছে, রয়েছে প্রচুর বিদেশি সেলিব্রিটিও। তবে কয়েক বছর আগে আমেরিকা, জাপানের মৃত্যু হয়েছে। দুর্বল হয়ে পড়েছেন গভর্নমেন্ট।

জঙ্গলের জীবনে নামকরণ নিয়ে কারও কিছু বলার ছিল না। প্রশাসন এ নিয়ে মাথাও ঘামাত না। কিন্তু আশেপাশের মানুষদের সঙ্গে মিশে বসবাস শুরু করার পর থেকেই অনেক নাম নিয়ে আইনি বাধার মুখোমুখি পড়তে হয়েছে তাদের। মামলাও হয়েছে অনেক ক্ষেত্রে।

সম্প্রতি আদালত এই ধরনের নামকরণে ছাড়পত্র দিয়েছে। ফলে এই নামের ভোটার কার্ড, লাইসেন্স এবং পাসপোর্টও তৈরি হয়ে গিয়েছে হাক্কি পিক্কিদের। সূত্র: আনন্দবাজার।

ঢাকা টাইমস/১৫সেপ্টেম্বর/একে

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :