শাজাহান খানকে ইলিয়াস কাঞ্চনের আলটিমেটাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৬:৩৭

নিজের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের বিষয়ে ‘সৎ সাহস’ থাকলে প্রমাণ উপস্থাপনের জন্য সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী ও পরিবহন নেতা শাজাহান খানকে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিলেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) আন্দোলনের চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। প্রয়োজনে তার সঙ্গে লাইভ টক শো করারও ঘোষণা দিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। না হলে শাজাহান খানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন তিনি।

গত ৮ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জে এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি শাজাহান খান ইলিয়াস কাঞ্চনকে ‘জ্ঞানপাপী’ আখ্যায়িত করেন। ইলিয়াস কাঞ্চনকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘আপনি যে বিদেশিদের কাছ থেকে নিরাপদ সড়ক চাই এনজিওর নামে কোটি কোটি টাকা নিয়ে আসছেন। আপনি কয়টি প্রতিষ্ঠান করেছেন, কয়েকটি স্কুল করেছেন, কয়জন মানুষকে ট্রেনিং দিয়েছেন- আমি তার তথ্য বের করতেছি। তা আমি জনসম্মুখে তুলে ধরব।’

শাজাহান খানের এই বক্তব্যের পর তাকে ক্ষমা চাওয়ার জন্য ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। এবার সংগঠনের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে আলটিমেটাম দিলেন এই চিত্রনায়ক।

বুধবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে নিসচা আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘নিসচার পক্ষ থেকে ইতিপূর্বে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে তথ্যপ্রমাণ হাজির করতে বলা হয়েছিল। না পারলে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছিল।’

তিনি বলেন, ‘গত ৮ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে একটি অনুষ্ঠানে আমাকে ও নিরাপদ সড়ক চাইসহ আমার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নির্লজ্জ মিথ্যাচারের মাধ্যমে অসত্য, বানোয়াট ও উদ্ভট কিছু প্রসঙ্গে টেনে চরিত্র হননের অপচেষ্টা চালিয়েছেন। তার (শাজাহান খান) এমন মিথ্যাচার শুধুমাত্র নিজের দুর্বলতা ঢাকার জন্যই বলেছেন। জাতিকে বিভ্রান্ত করার জন্য তিনি এসব মানহানিকর কথা বলেছেন। সেই সাথে সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮-কে বাধাগ্রস্ত করতেই উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপাতে অবান্তর প্রশ্নের অবতারণা করেছেন।’

শাজাহান খান ওই সময় দেশের বাইরে ছিলেন জানিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও তিনি (শাজাহান খান) তথ্যপ্রমাণ হাজির করেননি, এমনকি ক্ষমাও চাননি।’

বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে শাজাহান খানের জবাব না পাওয়ায় আবারও ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অভিযোগের স্বপক্ষে তথ্যপ্রমাণ হাজির করার আহ্বান জানান ইলিয়াস কাঞ্চন। বলেন, ‘আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে এর আগেও তাকে ২৪ ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু উত্তর দেননি। এবার আমি তাকে ২৪ ঘণ্টা সময় দিলাম। আশা করি তিনি তা দেবেন। নইলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।’

পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের কখনই প্রতিপক্ষ মনে করেন না জানিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘কিন্তু শাজাহান খান আমার বিরুদ্ধে শ্রমিকদের ক্ষেপিয়ে তুলছেন। এ কারণে আমি ও আমার পরিবারের সদস্য এবং সংগঠনের সদস্যদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত।’

এসময় তিনি সংগঠনের আয়ের বিষয়েও কথা বলেন। শাজাহান খান দাবি করেছেন, বিদেশ থেকে টাকা আসে ইলিয়াস কাঞ্চনের সংগঠনে। তবে তার দাবি, নিরাপদ সড়কের আন্দোলন চালাতে বিদেশ থেকে কোনো টাকা আসে না। তিনি বলেন, ‘শুরুতে কারো কাছ থেকেই কোনো অর্থ নিইনি। পরে সদস্যদের কাছ থেকে চাঁদা নেওয়া শুরু হয়।’

সড়ক নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করতে নিসচা ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে এনজিও হিসেবে নিবন্ধিত হয় বলে জানান ইলিয়াস কাঞ্চন।

এনজিও হিসেবে নিবন্ধনের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘তা না হলে আন্তর্জাতিক সংগঠনের সঙ্গে কাজ করতে অসুবিধা হতো। এ কারণে আমরা এনজিও হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছি। আমাদের আয়ের উৎস নিজস্ব অর্থায়ন। সদস্যদের কাছ থেকে নেওয়া চাঁদা আমাদের আয়ের মূল উৎস। আমার সংগঠনে বিদেশ থেকে কোনো অনুদান আসে না।’

(ঢাকাটাইমস/১১ডিসেম্বর/বিইউ/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত