জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব হেফাজতে ৪ পুলিশসহ সাত আসামি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৪ আগস্ট ২০২০, ১২:২০ | প্রকাশিত : ১৪ আগস্ট ২০২০, ১০:৫০
ফাইল ছবি

কক্সবাজারে পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় চার পুলিশ সদস্যসহ সাতজনকে রিমান্ডে নেয়ার জন্য র‌্যাব কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে। শুক্রবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে তাদের জেলা কারাগার থেকে কক্সবাজারের র‌্যাব কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা কারাগারের জেল সুপার মোকাম্মেল হক।

তবে এখনও অন্যতম আসামি টেকনাফ থানার প্রত্যাহার হওয়ার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, প্রধান আসামি প্রত্যাহার হওয়া ফাঁড়ি পরিদর্শক লিয়াকত আলী ও নন্দ দুলাল রক্ষিত কক্সবাজার জেলা কারাগারেই রয়েছেন। আত্মসমর্পণের পর তাদেরও রিমান্ড দিয়েছিলেন আদালত।

গত বুধবার কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তামান্না ফারাহ এই আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন।

এই সাতজন হলেন উপপরিদর্শক (এসআই) লিটন, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন ও আবদুল্লাহ আল মামুন এবং সিনহা হত্যা মামলায় পুলিশের করা মামলার তিন সাক্ষী টেকনাফের বাহারছড়ার মারিশবুনিয়ার নুরুল আমিন, নিজাম উদ্দীন ও মোহাম্মদ আইয়াস।

এর আগে চার পুলিশ সদস্যকে কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দিয়েছিলেন আদালত। সেই জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বুধবার দ্বিতীয় দফায় তাদের ১০ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছিল র‌্যাব। আদালত এই চার পুলিশ সদস্যকে সাত দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেন।

গত ৩ জুলাই সিনহার সঙ্গে শিপ্রা দেবনাথ, সাহেদুল ইসলাম সিফাত ও তাসকিন কক্সবাজার যান ভ্রমণবিষয়ক ভিডিওচিত্র ধারণ করতে। গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফের মারিষবুনিয়া পাহাড়ে ভিডিওচিত্র ধারণ করে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকার নীলিমা রিসোর্টে ফেরার পথে শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন মেজর (অব.) সিনহা।

ঘটনার পর কক্সবাজার পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, রাশেদ তার পরিচয় দিয়ে ‘তল্লাশিতে বাধা দেন’। পরে ‘পিস্তল বের করলে’ চেকপোস্টে দায়িত্বরত পুলিশ তাকে গুলি করে। তবে পুলিশের এমন ভাষ্য নিয়ে শুরু থেকেই প্রশ্ন ওঠে।

পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা নিহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশের পক্ষ থেকে দুটি মামলা হয়। একটি মামলায় হয় টেকনাফ থানায়। এই মামলায় সরকারি কাজে বাধা ও গুলিতে নিহত হওয়ার অভিযোগ আনা হয়। সেই মামলার আসামি করা হয় সিনহার সঙ্গে থাকা সিফাতকে। আর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে রামু থানায় দায়ের করা মাদক মামলায় আসামি করা হয় তাদের আরেক সঙ্গী শিপ্রা দেবনাথকে। পরে পুলিশ সিফাত ও শিপ্রাকে আটক করে কারাগারে পাঠায়। দুজনই বর্তমানে জামিনে মুক্ত।

সিনহা নিহতের ঘটনার ৫ দিন পর তার বড় বোন বাদী হয়ে একই আদালতে টেকনাফ থানার বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলী, থানার এসআই নন্দলাল রক্ষিতসহ নয় পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। পরের দিন বিকালে ওসি প্রদীপ, পরিদর্শক লিয়াকত, এসআই নন্দলাল রক্ষিতসহ সাত পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। একই আদালত র‌্যাবের পৃথক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওসি প্রদীপ, পরিদর্শক লিয়াকত ও এসআই নন্দলাল রক্ষিতকে সাত দিনের রিমান্ড এবং অপর চার আসামি কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন ও এসআই লিটনকে কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন। অপর দুই আসামি এসআই টুটুল ও মো. মোস্তফা আদালতে হাজির হননি। এই নামে জেলা পুলিশে কেউ নেই বলে দাবি করে পুলিশ।

ঢাকাটাইমস/১৪আগস্ট/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

স্পিকারের সঙ্গে সিপিএ সেক্রেটারি জেনারেলের সাক্ষাৎ

বাংলাদেশি গ্লোবের ভ্যাকসিন করোনা প্রতিরোধে সক্ষম: মার্কিন জার্নাল

সেপ্টেম্বরে বিজিবির অভিযানে সাড়ে ৭৫ কোটি টাকার চোরাচালান-মাদকদ্রব্য জব্দ

বৈদেশিক কর্মসংস্থানে অনগ্রসর জেলাগুলোকে অগ্রাধিকার: প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী

মোটরযানে ঝুঁকি বিমা না থাকলেও মামলা না করার নির্দেশনা

তাকসিমই থাকলেন ওয়াসার এমডি

মানুষ যখনই বিপদে পড়ে পাশে দাঁড়িয়েছে পুলিশ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ধর্ষণ: ৬ আসামির ডিএনএ সংগ্রহ

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাবে: অস্ট্রিয়ার রাষ্ট্রপতি

স্বল্পমূল্যের প্লট দেখিয়ে ৩০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে নাসিম রিয়েল!

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :