নির্বাচন বাতিল চাইলেন বিএনপির প্রার্থী, প্রতিবাদে দেননি ভোট

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:০৬ | প্রকাশিত : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪:৪১

ভোটগ্রহণে নানা অনিয়মের অভিযোগ তুলে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন পাবনা-৪ আসনের বিএনপির প্রার্থী হাবিবুর রহমান। শনিবার ভোটগ্রহণ শুরুর সাড়ে তিন ঘণ্টা পর বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে ভোট থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়ে পুনরায় নির্বাচনের দাবি করেছেন হাবিব।

ঈশ্বরদী উপজেলার শাহাপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে হাবিবুর রহমান হাবিব অভিযোগ করেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার পাবনায় সুষ্ঠু নির্বাচনের আশ্বাস দিলেও তা করা হয়নি। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে কখনও সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া সম্ভব নয়।

ভোটে অনিয়মের অভিযোগ তুলে নিজে ভোটও দেননি বলে জানান বিএনপির প্রার্থী। তিনি জানান, নির্বাচনে অনিয়মের প্রতিবাদে তিনি নিজে প্রার্থী হয়েও ভোট দেয়া থেকে বিরত থেকেছেন। তার নেতা-কর্মীরাও কেন্দ্রে ভোট দিতে যাননি।

পাবনার ঈশ্বরদী ও আটঘরিয়া উপজেলা নিয়ে গঠিত পাবনা-৪ সংসদীয় আসন। চলতি মেয়াদসহ গত ৫টি মেয়াদে শামসুর রহমান শরীফ ডিলু এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। গত ২ এপ্রিল তিনি মারা যাওয়ায় এই আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এ উপনির্বাচনে মুক্তিযোদ্ধা ও ঈশ্বরদী উপজেলার তিনবারের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান বিশ্বাস (নৌকা), বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব (ধানের শীষ) এবং জাতীয় পার্টির রেজাউল করিম (লাঙ্গল) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

হাবিব বলেন, ‘এই ভোটকে ভোট মনে করি না। আমাদের নেতা-কর্মীরা ভোট দিতে যায়নি।’

তাহলে ভোট বর্জন করছেন কি না, এ প্রশ্নের জবাবে হাবিবুর রহমান বলেন, ‘ভোটই তো হয়নি। এখানে বর্জন করব কী?’

ভোটগ্রহণের আগের দিন রাতেও সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন হাবিবুর রহমান।

শনিবারও আগের কথাগুলোই পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি। বলেন, ‘আমরা গতকাল রাতে মামলা প্রত্যাহারের দাবি করেছিলাম। কিন্তু সেটা হয়নি। হুমকি বন্ধ হয়নি। তাই আমাদের কেউ ভোটকেন্দ্রে যায়নি।’

(ঢাকাটাইমস/২৬সেপ্টেম্বর/বিইউ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :