ডেল্টা লাইফের ৩৬৮৭ কোটি টাকার ক্ষতিসাধন, ব্যবস্থা নিচ্ছে বিএসইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ২২:০৩ | প্রকাশিত : ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ২১:২৭
ফাইল ছবি

গ্রাহকের স্বার্থ ক্ষুণ্নের অভিযোগে পরিচালনা পর্ষদ স্থগিত হওয়া ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের পরিচালনা পর্ষদ ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বড় অংকের টাকার ক্ষতি সাধনের অভিযোগ ওঠেছে। একটি নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রতিবেদনে বিষয়টি উঠে এসেছে বলে বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) জানিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির ক্ষতিসাধনের পরিমাণ টাকার অংকে তিন হাজার ৬৮৭ কোটি।

যদিও ডেল্টা লাইফের সাবেক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আদিবা রহমান এমন অভিযোগ অস্বীকার করে এটাকে বানোয়াট বলে দাবি করেছেন।

জানা গেছে, গত ১ ডিসেম্বর অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহকে এ বিষয়ে একটি চিঠি দিয়েছেন আইডিআরএর পরিচালক মো. শাহ আলম। চিঠির একটি অনুলিপি অর্থমন্ত্রীর নজরে আনার জন্যও দিয়েছে আইডিআরএ। চিঠিতে ৭৪ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনটিও সংযুক্ত করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের স্থগিত পরিচালনা পর্ষদ ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আত্মসাৎ ও দুর্নীতি, রাজস্ব ফাঁকি ও অব্যবস্থাপনার মাধ্যমে তিন হাজার ৬৮৭ কোটি টাকা ক্ষতি সাধনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডে নিয়োগ করা অডিট ফার্ম মেসার্স একনবীন, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টের বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বরাবর দেওয়া প্রভিশনাল ইন্টেরিম রিপোর্ট পর্যালোচনায় দেখা যায়, এই কোম্পানিতে প্রাথমিকভাবে উদ্‌ঘাটিত তিন হাজার ৬৮৭ কোটি টাকা অর্থ আত্মসাৎ ও দুর্নীতি, রাজস্ব ফাঁকি/বকেয়া এবং অব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কোম্পানিটির আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। প্রতিবেদনে মানি লন্ডারিংয়ের মতো অপরাধ সংঘটিত হওয়ার কথাও উল্লেখ রয়েছে।

চলতি বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের পরিচালনা পর্ষদকে চার মাসের জন্য স্থগিত করে আইডিআরএ। তারপর ১০ জুন ডেল্টা লাইফের পরিচালনা পর্ষদের স্থগিতাদেশের মেয়াদ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত অব্যাহত রাখার আদেশ জারি করে আইডিআরএ।

এ বিষয়ে আইডিআরএর পরিচালক শাহ আলম বলেন, অডিট ফার্ম যে ডকুমেন্ট দিয়েছে, তার আলোকে চিঠিটা পাঠানো হয়েছে। এখন কর্তৃপক্ষ মামলা করতে বললে বা কোনো নির্দেশনা দিলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অন্যদিকে এই প্রতিবেদনকে ‘বানোয়াট’ দাবি করে ডেল্টা লাইফের সাবেক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আদিবা রহমান বলেছেন, এটি প্রভিশনাল ইন্টেরিম প্রতিবেদন, চূড়ান্ত নয়। প্রতিবেদনটি তৈরি করার সময় সাবেক ব্যবস্থাপনা কমিটির কোনো বক্তব্য নেওয়া হয়নি। এটা একটা বানোয়াট রিপোর্ট।

ব্যবস্থা নিচ্ছে বিএসইসি

ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির স্থগিত হওয়া পরিচালনা পর্ষদ ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে ইতিমধ্যে দুজন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষককে কনসালটেন্ট হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বিএসইসি।

এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ডেল্টা লাইফের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে দুজন কনসালটেন্ট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তারা কোথায় কী অনিয়ম হয়েছে তা খুঁজে দেখবেন। অনিয়মের যে অভিযোগটি উঠেছে তা সঠিক হলে অবশ্যই অনিয়মকারীদের বিরুদ্ধে কমিশন ব্যবস্থা নেবে।

কমিশন ডকুমেন্ট হাতে পেলে স্থগিত হওয়া পর্ষদকে অফিসিয়ালি ডাকা হবে জানিয়ে বিএসইসির কমিশনার বলেন, যারা সাধারণ বিনিয়োগকারীদের টাকা লোপাট করেছে তাদের অবশ্যই অর্থ ফেরত দিতে হবে। আর প্রতিষ্ঠানটির নতুন বোর্ডে যারা আসবে তাদেরও বিষয়টি দেখতে হবে। সাধারণ বিনিয়োগকারীদের অর্থ আত্মসাতের সুযোগ যেন প্রতিষ্ঠানটির স্থগিত পর্ষদ না পায় সেজন্যই তাদের ডাকা হবে।

(ঢাকাটাইমস/০৪ডিসেম্বর/বিইউ/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :