যে প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত হন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ১৬:৪৪ | প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ০৯:০০

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন। বুধবার কমিশন বৈঠকের পর এই তফসিল ঘোষণার কথা রয়েছে। এই নির্বাচনের মাধ্যমে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক পদে আসবেন নতুন মুখ।

দেশের সর্বোচ্চ এই পদে কে আসছেন এবিষয় দেশের মানুষ জানতে যেমন কৌতুহল এবং তেমনি কৌতূহল রয়েছে কারা রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত করবেন এবং প্রক্রিয়া বা কী।

সংবিধানের ৪৮ (১) অনুচ্ছেদে বলা আছে, ‘আইন অনুযায়ী সংসদ সদস্য কর্তৃক রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হবেন। কারও বয়স ৩৫ বছরের কম ও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার যোগ্য না হলে কেউ রাষ্ট্রপতি হতে পারবেন না। রাষ্ট্রপতির মনোনয়নপত্রে প্রস্তাবক ও সমর্থক হিসেবে সংসদ সদস্য থাকতে হবে। মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করার সময়ও তার সঙ্গে একজন সংসদ সদস্যকে উপস্থিত থাকতে হবে।’

রাষ্ট্রপতি পদের মেয়াদ কত:

বাংলাদেশের সংবিধানের ৫০ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতি তার পদে প্রবেশের তারিখ থেকে পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করবেন। তবে শর্ত থাকে যে তাদের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও রাষ্ট্রপতি তাদের উত্তরসূরি অফিসে প্রবেশ না করা অবধি পদে অধিষ্ঠিত থাকবেন।

কোনো ব্যক্তি দুইবারের বেশি রাষ্ট্রপতির পদে অধিষ্ঠিত থাকবেন না, এটি পরপর হোক বা না হোক। রাষ্ট্রপতি স্পিকারকে উদ্দেশ্য করে একটি চিঠি লিখে পদত্যাগ করতে পারেন। রাষ্ট্রপতি তাদের কার্যকালীন সময়ে সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচনের জন্য যোগ্য নন এবং সংসদের কোনো সদস্য রাষ্ট্রপতি হিসাবে নির্বাচিত হলে তারা রাষ্ট্রপতির পদে প্রবেশের দিন সংসদে তাদের আসন খালি ঘোষণা করবেন।

ভোটার কারা?

জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্যরা এবং সংরক্ষিত আসনের সদস্যদের ভোটের মাধমে নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি নিয়োগ হবে। এরআগে প্রত্যক্ষ ভোটে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলেও ১৯৯১ সালের ২ জুলাই সংবিধানের ১২তম সংশোধনীতে পরোক্ষ পদ্ধতিতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের বিধান করা হয়।

সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৪৮ অনুসারে সংসদ-সদস্যদের ভোটে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। সংসদ সদস্য হিসেবে স্পিকারও এই নির্বাচনে একজন ভোটার।

অর্থাৎ রাষ্ট্রপতি নির্বাচন আইন ও বিধিমালা অনুযায়ী, একাধিক প্রার্থী হলে সংসদের অধিবেশন কক্ষে নির্বাচনি কর্মকর্তার সামনে নির্ধারিত ব্যালট পেপারে পছন্দের প্রার্থীর নাম ও নিজের স্বাক্ষর দিয়ে তা জমা দিতে হবে। এর মুড়ি অংশে স্বাক্ষর দিয়ে ভোটারদের ব্যালট পেপার সংগ্রহ করতে হবে। ভোট দেওয়ার পর সংসদ কক্ষে স্থাপিত এক বা একাধিক ব্যালট বাক্সে তা জমা দিতে হবে।

ভোট শেষে নির্বাচন কমিশনার প্রকাশ্যে ভোট গণনা করবেন। সর্বাধিক সংখ্যক ভোটপ্রাপ্তকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে। আর সমান ভোট পেলে প্রার্থীদের মধ্যে লটারির মাধ্যমে ফল নির্ধারণ করা হবে।

নির্বাচন পরিচালনার বিধান:

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ‘নির্বাচনী কর্তা’ হিসেবে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন পরিচালনা করেন। রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করতে হলে স্পিকারের সঙ্গে আলোচনা করে সিডিউল ঘোষণা করেন।

কখন হবে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন:

সংবিধানের ১২৩ (১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি পদের মেয়াদ অবসানের কারণে উক্ত পদ শূন্য হইলে মেয়াদ-সমাপ্তির তারিখের পূর্ববর্তী নব্বই হইতে ষাট দিনের মধ্যে শূন্য পদ পূরণের জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

কখন ভোটের প্রয়োজন পড়ে না:

রাষ্ট্রপতি পদে একক প্রার্থী হলে বিধান অনুযায়ী ভোটগ্রহণের প্রয়োজন পড়ে না।

নির্বাচন কোথায় অনুষ্ঠিত হয়:

সংসদ অধিবেশনের সময় এই নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। তবে, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রয়োজনীয় সময়ে যদি অধিবেশন না থাকে, তাহলে নির্বাচন কমিশন স্পিকারের সঙ্গে আলোচনা করে প্রজ্ঞাপন জারি করে ভোটগ্রহণের কমপক্ষে সাতদিন আগে অধিবেশন আহ্বান করবে। অর্থাৎ এক্ষেত্রে স্বাভাবিক সময়ের মতো রাষ্ট্রপতিকে অধিবেশন ডাকতে হবে না।

রাষ্ট্রপতিকে অভিসংশন করার পদ্ধতি:

রাষ্ট্রপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হলে এবং সংসদের দুই তৃতীয়াংশেরও বেশি ভোটের সমর্থন পেলে তাকে অভিশংসন করা যায়।

সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের বিধান রয়েছে, রাষ্ট্রপতির মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্ববর্তী নব্বই থেকে ষাট দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে।

তবে, যে সংসদ রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত করেছে, ওই সংসদের মেয়াদে রাষ্ট্রপতির মেয়াদ শেষ হলে পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের প্রয়োজন পড়বে না। সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রথম বৈঠকের দিন থেকে ৩০ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। রাষ্ট্রপতির মৃত্যু, পদত্যাগ বা অপসারণের ফলে পদ শূন্য হলে শূন্য হওয়ার নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচন হবে।

(ঢাকাটাইমস/২৫জানুয়ারি/জেএ/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :