লিবিয়ায় ঘূর্ণিঝড়ে রাজবাড়ীর দুই যুবকের মৃত্যু

রাজবাড়ী প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১১:৪৭ | প্রকাশিত : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১১:৪১

উত্তর আফ্রিকার দেশ লিবিয়ায় ঘূর্ণিঝড় ড্যানিয়েলের প্রভাবে সৃষ্ট বন্যায় রাজবাড়ী জেলার দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের ফেসবুক পেজে দেওয়া এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

রাজবাড়ী জেলার নিহতরা হলেন- পাংশা উপজেলার যশাই ইউনিয়নের ধোপাকেল্লা গ্রামের দুলাল খানের ছেলে সুজন খান (২৩) ও একই উপজেলার হাবাসপুর ইউনিয়নের আরশেদ মণ্ডলের ছেলে শাহীন রেজা (৪০)।

রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার জি. এম. আবুল কালাম আজাদ জানান, বুধবার রাতে তারা বিষয়টি জানার পর মৃতদের পরিচয় উদ্ধারের চেষ্টা চালান। পরে রাত ১০টার দিকে মৃত দুজনের পরিচয় জানতে পারেন।

সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্যমতে, ঘূর্ণিঝড় ড্যানিয়েলের প্রভাবে দারনা শহরে বসবাসরত ছয় বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্য থেকে চার জনের প্রাথমিক পরিচয় পাওয়া গেছে।

তারা হলেন- রাজবাড়ী জেলার শাহীন ও সুজন এবং নারায়ণগঞ্জ জেলার মামুন ও শিহাব। তবে দূতাবাসের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত বাকি দুজনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি। এছাড়া দারনা শহরে বসবাসরত আরও কিছু সংখ্যক বাংলাদেশি নিখোঁজ থাকার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শাহীনের বাবা আরশেদ মন্ডল মোবাইলে বলেন, প্রায় ১০ মাস আগে অনেক কষ্ট করে শাহিনকে লিবিয়াতে পাঠাই। সবকিছু ভালোই চলছিল। হঠাৎ ঘূর্ণিঝড়ে সব লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে আমার। লিবিয়ার বন্যায় আমার ছেলে মারা গেছে। তাকে লিবিয়াতেই দাফন করা হয়েছে।

আর সুজনের বড় ভাই জুবায়ের খান বলেন, আমরা চার ভাইবোন। সুজন আমার ছোট। ২০১৯ সালে সুজন লিবিয়াতে যায়। অনেক ছোট বয়স থেকে ও প্রবাসে থাকে। সংসারে ভরণপোষণও সে চালাত। গতকাল হঠাৎ খবর পেলাম সুজন লিবিয়াতে ঘূর্ণিঝড়ে মারা গেছে। তার মরদেহ কী অবস্থায় আছে জানি না। তবে আমার মামাতো ভাই লিবিয়াতে থাকে। তার মাধ্যমে জানতে পেরেছি সুজনের মরদেহ দাফন হয়ে গেছে। আবার অন্য এক মাধ্যমে খবর পেয়েছি মরদেহ এখনো দাফন করা হয়নি। জানি না তার মরদেহ কোন অবস্থায় আছে।

তবে সুজনের লাশ দাফন না হয়ে থাকলে তার দেশে আনতে প্রশাসনের সহযোগিতা চান সুজনের পরিবার।

যশাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হোসেন খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমার ইউনিয়নে সুজন খান নামের এক যুবক লিবিয়াতে মারা গেছেন। আমি তার বাড়িতে গিয়েছিলাম। তার অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

হাবাসপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মামুন খান বলেন, আমার ইউনিয়নের শাহীন নামের এক যুবক লিবিয়াতে মারা গেছেন। আমি তার বাড়িতে গিয়ে খোঁজখবর নিয়েছি।

(ঢাকা টাইমস/১৪সেপ্টেম্বর/প্রতিনিধি/এসএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ এর সর্বশেষ

মৌলভীবাজারে র‍্যাবের অভিযানে অস্ত্র ও মাদকসহ ব্রিটিশ নাগরিক গ্রেপ্তার

চোখের সামনে দেবে গেল চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ

রেমালে বিধ্বস্ত কুয়াকাটার কলাপাড়া, উপকূলে মানুষের আহাজারি 

লক্ষ্মীপুরে রেমালের তাণ্ডবে বসতঘর চাপা পড়ে শিশুর মৃত্যু

এবারও ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডব থেকে সাতক্ষীরাকে বাঁচালো সুন্দরবন

রাঙ্গাবালীতে রেমালের হানায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, একজনের মৃত্যু

খুলনায় পাউবোর বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে ঢুকে পড়েছে পানি

লক্ষ্মীপুরে রেমালের তাণ্ডবে বিধ্বস্ত ঘরবাড়ি ও গাছপালা

ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব, বোনকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল ভাইয়ের

ছিনতাইকারীদের উপদ্রব ঠেকাতে সড়কের ঝোপ পরিষ্কারে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :