শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতা চান মন্ত্রী

ঢাবি প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৮:৩৯

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন এবং শিক্ষাক্রম বিষয়ে সাধারণ মানুষের গতানুগতিক মানসিকতা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

রবিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সিম্পোজিয়ামে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই মন্তব্য করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট-এর উদ্যোগে রিসার্চ এন্ড ইনোভেশন ফর সোশ্যাল ইম্প্যাক্ট: আইইআর’স রিসেন্ট কন্ট্রিবিউশন টু এডুকেশন’ শীর্ষক দিনব্যাপী এক জাতীয় সিম্পোজিয়াম ইনস্টিটিউটের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামালের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, দেশে দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টি এবং জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে ইতোমধ্যেই নতুন শিক্ষাক্রম চালু করা হয়েছে। এই নতুন শিক্ষাক্রম শিক্ষাদান পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা আরও বেশি শিখতে পারবে এবং তাদের সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটাতে পারবে।

মন্ত্রী বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য আমাদের সমাজে, সংস্কৃতিতে গতানুগতিক যে মানসিকতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সেটা ভাঙ্গতে সকলের সহযোগিতা লাগবে, বিশেষ করে শিক্ষা বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতা লাগবে এবং যত বেশি এইটা আমরা সমাজের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবো যে আমাদের বিদ্যালয়ে এগারো-বারো বছর বয়সে মেধার পরিচয় দিতে হবে, এ ধরনের মানসিকতা থেকে যাতে আমরা বের হয়ে আসতে পারি এজন্য সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন আছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা এই বিষয়ে কঠোর অবস্থানে আছেন। তিনি বলেছেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের শিখতে শেখার যাতে সুযোগ করে দেই। শুধু চাপ দিয়ে তাদের যে ধরনের মানসিক প্রেসারে রাখছি এতে করে সৃষ্টিশীলতা হচ্ছে না।

তার ভাষ্য, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা এই তিন বিভাগে বর্তমান অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাজেট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৮৮ হাজার কোটি টাকা। যা ২০০৬-৭ সালে সারা বাংলাদেশে শিক্ষাখাতের মোট বাজেটের থেকে ২০ হাজার কোটি টাকা বেশি। তখন এই বাজেট ছিল ৬৬ হাজার কোটি। টাকা অর্থাৎ তিনটি বিভাগের বাজেটেই মোট খাতের চেয়ে বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিলের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ এবং শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ড. এম অহিদুজ্জামান বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. আবদুল হালিম স্বাগত বক্তব্য দেন।

(ঢাকাটাইমস/০৩মার্চ/এসকে/এসআইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :