ভুঁড়ি কমিয়ে শরীরকে ফিট রাখতে চান? সমাধান এই পাঁচ খাবারেই

ফিচার ও স্বাস্থ্য ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১০ | প্রকাশিত : ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০১

শরীরের বাহ্যিক গঠন নিয়ে এখন অনেকেই বেশ সচেতন। তাই ভুঁড়ি একটু বাড়লেই তারা মন খারাপ করে বসেন। চটজলদি কমাতে চান পেটের ফ্যাট। কিন্তু রাস্তা খুঁজে পান না। জানলে অবাক হবেন, হাতের কাছে থাকা কিছু খাবারই পেটের মেদ কমিয়ে দিতে পারে। তাই শুধু ডায়েটে পরিবর্তন আনাটাই জরুরি।

পেটের মেদ কোনো বাহ্যিক সমস্যা নয়। তাই কেবল দেখতে খারাপ লাগছে বলেই যে ভুঁড়ি কমাতে হবে, এই ধারণা মন থেকে দূর করে দিন। বরং পেটের মেদ বাড়লে নানা জটিল অসুখও শরীরে বাসা বাঁধতে পারে। তাই সচেতন হওয়া ছাড়া বিকল্প কোনো রাস্তা নেই।

পেটের অন্দরে লিভার, প্যাংক্রিয়াস, কিডনিসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ রয়েছে। ভুঁড়ি বাড়লে এই অঙ্গগুলোর উপরও মেদের আস্তরণ জমা হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এমনকি ডায়াবেটিস, কোলেস্টেরলসহ নানা বিপাকীয় অসুখ ঘিরে ধরতে পারে।

তাই পেটের মেদ ঝরাতেই হবে। এই কাজটি করার স্বার্থে ডায়েটে অবশ্যই এই পাঁচ খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন।

বিনস খেলেই সমস্যার সমাধান​

বিনস বলতে কিন্তু এখানে কিডনি বিনসের কথা বলা হচ্ছে। এই খাবারটি এখন মোটামুটি সহজলভ্য। গ্রামে পাওয়া না গেলেও শহরে হামেশাই পাওয়া যায়। যদিও বাঙালিদের মধ্যে এই খাবারের এতটাও প্রচলন নেই। কিন্তু মেদ কমাতে চাইলে অবশ্যই বিনস খেতে হবে। এতে রয়েছে এমন কিছু ফাইবার যা ওজন কমায়।

বিশেষ করে, পেটের মেদ কমাতে বিনস এর জুড়ি মেলা ভার। সেই সঙ্গে এতে থাকা কিছু উপাদান শরীরের প্রদাহ কমাতে পারে। এমনকি বিনস খেলে বিএমআই কমে বলে জানাচ্ছে ওয়েব মেড। তাই বিনস নিয়মিত খাওয়ার চেষ্টা করুন।

নিয়মিত দই খান

গরমকালে দই খেলে প্রাণ জুড়িয়ে যায়। এর মাধ্যমে শরীর ঠান্ডা থাকে। ভুঁড়ি কমাতে চাইলে এই দইও হতে পারে আপনার হাতিয়ার। তবে এক্ষেত্রে ফ্যাটলেস দুধের টকদই খেতে হবে। বাড়িতেই সেই দই পাততে পারলে ভালো।

গবেষণায় দেখা গেছে, ফ্যাটলেস দই খেলে দ্রুত ওজন ঝরে। তাই ভুঁড়ি কমাতে ভরসা রাখুন এই দুগ্ধজাত খাবারের উপর।

ব্রকোলি খেলেই কিস্তিমাত​

ব্রকোলির চল এখনো সারাদেশে সেভাবে হয়নি। তবে শহরের মানুষ প্রচুর পরিমাণে খান এই সবজি। বর্তমানে স্বাস্থ্য সচেতন শহুরে মানুষ ব্রকলিকে ডায়েটে জায়গা করে দিচ্ছেন। এই সবজির অনেক গুণ। এতে আছে ভিটামিন সি, ফাইবারের ভাণ্ডার। তাই নিয়মিত ব্রকোলি আপনি খেতেই পারেন।

এই সবজি খেলে পেট অনেকক্ষণ ভরা থাকে। ফলে খিদে পায় না। এই কারণে ওজন ও ভুঁড়ি দুই-ই কমে। এই সবজি স্যালাড হিসাবে খাওয়া যায়। চাইলে রান্না করেও ব্রকোলি খেতে পারেন।

ভিনিগার খেতে পারেন​

অ্যাপেল সিডার ভিনিগারের নাম শুনেছেন নিশ্চয়ই। এই ভিনিগার কিন্তু বহু সমস্যার সমাধান করতে পারে। আসলে ভিনিগারের ভেতর থাকে অ্যাসিটিক অ্যাসিড। এই অ্যাসিড ফ্যাট মেটাবলিজম শুরু করে দেয়। ফলে দ্রুত ফ্যাট ঝরতে থাকে।

তবে সরাসরি নয়, বরং ডাইলিউটেড ভিনিগার খেতে হবে। আর ভিনিগার খাওয়ার আগে অবশ্যই একবার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। নইলে সমস্যা তৈরি হতে পারে।

ভুঁড়ি কমাতে ওটস ও ডালিয়া​

এই দুই দানাশস্য কিন্তু ফাইবারে ভরপুর। এই ফাইবার শরীরের বিভিন্ন উপকার করে। তাই ভুঁড়ি কমাতে চাইলে অবশ্যই ওটস এবং ডালিয়া খেতে হবে।

এই খাবারগুলো দীর্ঘক্ষণ পেট ভর্তি রাখে। ফলে খিদের জ্বালা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়া ভুঁড়ি কমানোর পাশাপাশি ওটস এবং ডালিয়া ব্লাড সুগার, কোলেস্টেরলও নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে সব দিক থেকেই সুরক্ষিত থাকবেন।

(ঢাকাটাইমস/১৩এপ্রিল/এজে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :