সার্চ কমিটিকে নাম দিল ২৭ রাজনৈতিক দল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ৩১ জানুয়ারি ২০১৭, ১৬:১৫
সার্চ কমিটিতে নাম জমা দিচ্ছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রতিনিধিরা

নতুন নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে রাষ্ট্রপতির করে দেয়া সার্চ কমিটির কাছে নাম জমা দিয়েছে দেশের ২৭টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল। ইসি গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপে অংশ নেয়া ৩১টি দলের কাছে সার্চ কমিটি নাম চাইলেও ২৭টি দল নাম জমা দিয়েছে।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে নাম জমা দেন রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিনিধিরা। এর মধ্যে রয়েছে দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। প্রতিটি দলই পাঁচটি করে নাম জমা দিয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন ও বিধি) আবদুল ওয়াদুদ ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘বিকাল তিনটা পর্যন্ত ২৭টি রাজনৈতিক দল সার্চ কমিটির কাছে নাম জমা দিয়েছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কারা কী নাম জমা দিয়েছেন সেটি বলার কোনো সুযোগ নেই।’

দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দলটির দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ ইসি গঠনে নাম দিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন ও বিধি) মো. আব্দুল ওয়াদুদের কক্ষে প্রবেশ করেন। নাম জমা দিয়ে ১২টা ৫৭ মিনিটে তিনি বেরিয়ে যান তিনি।

এর কিছুক্ষণ আগে দুপুর ১২টা ১৯ মিনিটে বিএনপির পক্ষ থেকে দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার নাম জমা দিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে আসেন। অতিরিক্ত সচিবের কাছে পাঁচজনের নামের তালিকা জমা দিয়ে তারা তিন মিনিটের মধ্যে কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান।

তবে নামের তালিকায় কারা রয়েছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পক্ষ থেকে সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

তালিকা জমা দেয়ার পর রুহুল কবির রিজভী সাংবাদিকদের বলেন, ‘দলের হাইকমান্ড, ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দ আমার কাছে একটি মুখবন্ধ খাম দিয়েছেন। এটি আমি সচিবালয়ে অতিরিক্ত সচিবের (প্রশাসন ও বিধি) কাছে জমা দিয়েছি। আপনাদের নিশ্চিত করে বলতে পারি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ইতোপূর্বে নির্বাচন কমিশন শক্তিশালী করতে ১৩ দফা প্রস্তাব দিয়েছেন তারই প্রতিফলন আছে নামগুলোর মধ্যে। এছাড়া আর আমি কিছুই জানি না।’

সার্চ কমিটির প্রতি বিএনপির আস্থা আছে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, ‘সার্চ কমিটি যেভাবে গঠিত হয়েছে তাতে আমরা দলের পক্ষ থেকে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছি। এরপরও আমরা গণতন্ত্রের স্বার্থে দেশের মানুষের নাগরিক স্বাধীনতার স্বার্থে, দেশের শান্তি ও স্থিতিশীলতার স্বার্থে নির্বাচন কমিশন শক্তিশালী করতে নামের তালিকা আমরা দিয়ে গেলাম।’

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক সাংবাদিকদের বলেন, ‘পাঁচটি নাম পাঠানো নিয়ে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ ও কার্যকরী কমিটির এক যৌথ সভা হয়। সেখানে সবার কাছে নাম আহ্বান করা হয়, সবাই গোপনে লিখিতভাবে নাম দেয়। অধিকতর সংখ্যায় যে নামগুলো এসেছে তার মধ্যে পাঁচটি নাম গ্রহণ করা হয়। সেই পাঁচটি নামই আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের পরামর্শ ও তার মাধ্যমেই সিল করা খাম ক্যাবনিটে ডিভিশনে জমা দিয়ে গেলাম।’

নামগুলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার বলার কোনো সুযোগ নেই।’

কী বিবেচনায় পাঁচজনের নাম চূড়ান্ত করা হলো- এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের অগ্রাধিকার দিয়ে, যোগ্য, স্বচ্ছ ব্যক্তিদের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে।’

রাষ্ট্রপতির নির্দেশে গত ২৫ জানুয়ারি ‍ছয় সদস্যের সার্চ কমিটি গঠন করে আদেশ জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। সার্চ কমিটি প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও চারজন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠনে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ দেবে।

ছয় সদস্যের সার্চ কমিটির আহ্বায়ক সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক, মহা-হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মাসুদ আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য শিরিণ আখতার।

গত ২৮ জানুয়ারি প্রথম বৈঠকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও চারজন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগে সুপারিশ দিতে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপ করা রাজনৈতিক দলগুলোর কাছ পাঁচটি করে নাম নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সার্চ (অনুসন্ধান) কমিটি।

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য সার্চ কমিটি করতে গত বছর ১৮ ডিসেম্বর থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শুরু করেন রাষ্ট্রপতি। সংলাপ শেষ হয় চলতি বছর ১৮ জানুয়ারি। এ সময়ে রাষ্ট্রপতি আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ ৩১টি দলের সঙ্গে সংলাপ করেন।

২৮ জানুয়ারিই সার্চ কমিটি ৩১টি দলের কাছে পাঁচটি করে নাম চেয়ে চিঠি পাঠায়। দলগুলো মঙ্গলবার বিকেল ৩টা পর্যন্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিবের (প্রশাসন ও বিধি) কাছে নাম দেয় তারা। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সার্চ কমিটিকে সাচিবিক সহায়তা দিচ্ছে।

নির্বাচন কমিশন গঠনে সোমবার জাতীয় পার্টি, বাংলাদেশ সাম্যবাদী দল, গণফ্রন্ট, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নাম জমা দেয়। বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি চিঠি দিলেও তারা কোনো নাম দেয়নি। দলটি নির্বাচন কমিশন গঠনের এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছে।

মঙ্গলবার সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) প্রথম নাম জমা দেয়। দলের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক ওমর ফারুক সুমন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. আবদুল ওয়াদুদের কাছে নির্বাচন কমিশন গঠনে পাঁচটি নাম জমা দেন।

এরপর ইসলামী ঐক্যজোটের সহকারী মহাসচিব মাওলানা আলতাফ হোসেন, খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমির সৈয়দ মজিবর রহমান, ন্যাপের (মোজাফফর) মহাসচিব ইসমাইল হোসেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ-এর প্রচার সম্পাদক জয়নুল আবেদীন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মতিন সাউদ, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের চেয়ারম্যান হাফেজ মাওলানা ক্বারী শাহ আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী হুজুর এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ- ইনু) সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান শওকত, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন, তরিকত ফেডারেশনের মহাসচিব এমএ আউয়াল, বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূইয়া মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে নাম জমা দেন।

সার্চ কমিটি নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনে সোমবার ১২ বিশিষ্টজনের মতামত নিয়েছেন। বুধবার তারা আরও পাঁচ বিশিষ্টজনের মত নেবেন।

(ঢাকাটাইমস/৩১জানুয়ারি/এমএম/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :