‘অনার্স পাস’ ইস্যুতে যা বললেন ডাকসুর এজিএস

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৩ জুন ২০১৯, ১৯:২৩

ছয় বছরের মধ্যে অনার্স শেষ করার কথা থাকলেও সাত বছরেও অনার্সের গণ্ডি পার হতে পারেননি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) এজিএস ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন। নিয়মানুযায়ী আট বছরের মধ্যে অনার্স এবং মাস্টার্স শেষ করার কথা। সাত বছর পরেও সাদ্দাম আটকে আছেন তৃতীয় বর্ষেই। সম্প্রতি তৃতীয় বর্ষের প্রকাশিত ফলাফলেও অকৃতকার্য হয়েছেন তিনি।

একাধিক গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশিত হলে অনেকে নানাভাবে এই ছাত্রলীগ নেতার সমালোচনা করে আসছিলেন। তবে শুরু থেকে এ নিয়ে চুপচাপ ছিলেন ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন।

সোমবার বিকালে নিজের ফেসবুকে এ নিয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন এজিএস। এতে নিজের একাডেমিক বিষয় নিয়ে যারা সমালোচনা করছেন তাদের স্বাগত জানিয়ে তিনি সামনের দিনগুলোতে ভুল ত্রুটি শুধরে চলার কথা বলেছেন।

স্ট্যাটাসে সাদ্দাম লিখেছেন- ‘একাডেমিক’ বিষয় নিয়ে যাবতীয় সমালোচনাকে আমি স্বাগত জানাই। এটি সত্য যে ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে জনপরিসরে কথা বলতে আমি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি না, কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রতি আমার দায়বদ্ধতা রয়েছে। আমি নিউজ, স্ট্যাটাস, মন্তব্যগুলো পড়েছি, মিমসগুলো দেখেছি এবং এটি অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই যে মতামতগুলো প্রায় সম্পূর্ণতই যৌক্তিক।

একইসাথে আমি বলতে চাই, আমার এই সীমাবদ্ধতার জন্য রাজনৈতিক ব্যস্ততার অজুহাত, একাডেমিক বিষয়কে গুরুত্বপূর্ণ না ভাবার আদিখ্যেতা বা অপরাপর কোন গ্রহণযোগ্য কারণ নেই, এ দায় একান্তই আমার।

আমি নিঃসঙ্কোচে স্বীকার করি, শিক্ষার্থীদের জন্য এটি কোন ভাল উদাহরণ নয়। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাকে আমি গুরুত্বপূর্ণ মনে করি এবং ছাত্ররাজনীতির কর্মীদের এই দায় আরও বেশি।

আমার প্রচেষ্টা থাকবে নিজের ত্রুটিগুলোকে অতিক্রম করার, শুধু একাডেমিক নয়, আমার চলার পথের যাবতীয় বিচ্যুতিগুলো থেকে যতদূর সম্ভব নিজেকে ক্রমাগত ভালো করার। আমি সবসময় নিজের জীবনটা যাপন করতে চেয়েছি এবং তার অনেক কিছুই হয়তো সঠিক ছিল না, কিন্তু নিজেকে নিজের মুখোমুখি করার, নিজেকে সাধারণ মানুষের সামষ্টিক বিবেচনাবোধের আয়নার সামনে তুলে ধরার প্রতি অবিচল অনুরাগ ও নিষ্ঠা নিয়েই আমি বাকিটা পথ চলতে চাই। সকলের মঙ্গল হোক।’

(ঢাকাটাইমস/০৩জুন/বিইউ/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

নির্বাচিত খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :